নীড় পাতা » পার্বত্য পুরাণ (পাতা 4)

পার্বত্য পুরাণ

আমি নরকেই যাবো

কাকডাকা ভোরে ঘুমে,বিছানায় জবুথবু আমি শয়তান মোলায়েম হাত বুলায় আমার দেহে প্রার্থনা করবো বলে উঠার চেষটা বৃথা যায়। ঘুমিয়ে আবার স্বপ্নে হারাই আবছা কী সব দেখি দেখি উড়তে উড়তে সপ্তাকাশের উপরে আমি স্বর্গ নরকের মাঝে দ্বাররক্ষীর বাধাতে থামি বলা হলো স্বর্গ বা নরকে যেথা খুশি যেতে পার তবে একখানা শর্ত আাছে। স্বর্গে গেলে তোমাকে সেবার জন্য নয়জন স্বর্গসেবক বাছাই করে …

বিস্তারিত পড়ুন

স্বপ্ন ছুঁই

সুখের ঘরের অসুখ আমি নিত্য স্বপ্নচারী! বিলাস বেসন ভাল্ লাগে না স্বপ্নের নভোচারী! অনিন্দ্য আমি নিন্দিত আজ নিন্দার ফুলঝুড়ি! এলো বাতাসে উড়িয়েছি মোন আঁধার নিছরি। নিশুতি রাতের চুপিচুপি কথা আজো যে মর্মে গাঁথা—- তোমাতে আমাতে না হলো মিলন হৃদয়ে সে সুখ থাক আমরন, তোমার আমার খেলাঘর খানি অটুট বাঁধনে রয়ে যাবে জানি, কল্পিত সুখ বয়ে যাবে হেথা সুখের আলিঙ্গনে।

বিস্তারিত পড়ুন

এই শহর ছেড়ে পালাবো কোথায় ?

‘পাঁজরে দাড়ের শব্দ,রক্তে জল ছলছল করে নৌকার গুলই ভেঙে আসে কৃষ্ণা প্রতিপদে জলজ গুল্মের ভরে ,ভরে আছে সমস্ত শরীর আমার অতীত নেই ,ভবিষ্যতও নেই কোনখানে।’ প্রতিটি ভূলই এক একটি শুদ্ধতার পথ দেখায়। আর দুঃখ হচ্ছে জীবনের এমন একটি অলঙ্কার যা জীবনকে শুদ্ধ করে ,পরিপূর্ণতা আনার চ্যালেঞ্জ এনে দেয় দেহে মনে আর প্রাণে। কিন্তুু ভূল থেকে ,বিচ্যুতি থেকে শিক্ষা নেয়ার কিংবা …

বিস্তারিত পড়ুন

‘পার্বত্য গুর্খা সম্প্রদায়’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের মধ্যে অন্যতম জনগোষ্ঠী গুর্খা সম্প্রদায়ের বই এর মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টী সাংস্কৃতিক ইন্সটিটিউটের মিলনায়তনে রাঙামাটির কবি, লেখক ও সঙ্গীত শিল্পী মনোজ বাহাদুরের লেখা এ বইটির আনুষ্ঠানিক মোড়ক উন্মোচন করেন, রাঙামাটি-২৯৯ নং আসনে সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার। এসময় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ বেতার রাঙামাটি আঞ্চলিক পরিচালক সালাহ উদ্দিন, দৈনিক গিরিদর্পণ সম্পাদক একেএম মকছুদ …

বিস্তারিত পড়ুন

শ. ম. মঈন উদ্দিন মিন্টু’র দুটি কবিতা

ধূপকাঠি যেন ধুকছি ক্লান্ত অপূর্ণ বাসনা রথে তোমার আমার ভগ্ন হৃদয় মেতে নেই মৌতাতে। তবুও তোমার কঙ্কালসার দেহ আমার জমিনে গেড়ে আছে তার গেহ। পথ চলে যায় পথহীন বহুদূরে! ধূপকাঠি যেন, ধূপের আড়ালে স্মৃতি নিয়ে দুঃসহ!   কিছু পথ কিছু পথ হেঁটে চলে যাবো কিছু পথ পাখির ডানায়, শিশিরের শীতল নির্যাস নিয়ে নরম রোমের ভেতর, নকশি কাঁথার মতো আলপনায় তুলে …

বিস্তারিত পড়ুন

মত্তমাতাল

সকলেই ডিঙিয়ে যেতে চায় কারো কারো নৌকোর তলায় সূক্ষ্ম ছিদ্র; জলের আহ্বান গান গায়। মাঝ নদীতে মনে পড়ে বৈঠা নেই হাতে কোন কূলেতে ভীড়বে ভাসান্ তরী! মনে মনে নানান ফন্দি আঁটে; দোষটাকে তো ঢাকতে হবে কোনোমতে, না-কি? বিপদ যখন সদলবল নিয়ে হয় হাজির বিশ্বাস তখন হয় আরো নমনীয়, সুস্থির! যারা চলে গেছে চলেই গেছে রেখে গেছে কিছু অস্থায়ী দাগ বন্যার …

বিস্তারিত পড়ুন

রিপন দাশ’র কবিতা

জানালার কাচ ভেদ করে আলো ঢুকে পড়ে বেড়ে যায় ঘরের উত্তাপ পোষা ভুলের পশমী কুকুর বের হয়ে আসে ভিতরে চঞ্চল শত পাপ। নারকীয় বীভৎসচিত্ররূপ দেখে দেখে আকণ্ঠ পান করি রাত্রির শরাব, শরীরে নখের ক্ষত, বিবেকের গায়ে অবিরত কষাঘাত। তুচ্ছ পরিতাপ। ভেসে আসা আবর্জনার স্তূপে ঢেকে আছে নদী মৃত মানুষের ক্ষীণ চিৎকার! দিনদিন কত কত স্মৃতি মুছে যায়। ভালো যদি ভাসই …

বিস্তারিত পড়ুন

যদি তুমি ফেরো…অথবা না ফেরো

কিছু অভিমান আর খুঁনসুটি জমিয়ে রেখেছি তুমি আসবে বলে,তুমি ফিরবে তাই, মুখোমুখি হতেই ঝরে পড়বে অভিমান, বাঁধিয়ে বসবো পুরনো খুঁনসুটি কথায় কথায় বাড়বে কথা নতুন করে ছড়াবে না হয় কিছুটা নতুন অভিমান তবুও তুমি ফিরে আসবে এই ঢের। আমি প্রতীক্ষায় আছি,তুমি ফিরবে আবার মধ্যরাতে বেজে উঠবে তোমার ফোন কোন এক বিকেলে সিঁড়িতে বসা আমাকে দেখতে চলন্ত টেক্সী থেকে ঠিকই উঁকি …

বিস্তারিত পড়ুন

হাসান মনজু’র কবিতা

কবিতায় নুয়ে আছি, চেনা সুর ছুঁয়ে বাঁচি, ফিরে গেলে ক্ষতি নেই, জীবনে আকুতি নেই, কাঁধে হাত রেখে ফেরা হলোনা। কিছু স্পর্শ অনুগামী, হীরের চেয়েও দামী, তাই নিয়ে বেঁচে থাকি বাকিটুকু মিছে ফাঁকি, হাতে হাত রেখে চলা হলোনা। ছাই চাপা অভিমান, ফিরে আসে অফুরাণ, জীর্ণ শীর্ণ রথ সেই, পায়ের চিহ্ন নেই, ফেলে আসা পথটার গায়। হলো বুঝি বেলাশেষ, সময়ের খেলাশেষ, চলো …

বিস্তারিত পড়ুন

স ম য়ে র দা য় ভা গ

কাঁধ থেকে ছুড়ে ফেলে দায়ভাগ এবার ব্যাগ-এন্ড-ব্যাগেজ নেমে যাব; রূপক, ভাবাবেগ আর চিত্রকল্পের হাত ছেড়ে দিয়ে বলে দেবো সোজা – গুডবাই। হৃদয়ের যাবতীয় সবুজ আলো ক্রন্তিকালের হেফাজতে তুলে দিয়ে চলে যাবো ধুধুক বাজিয়ে অচিনপুরে। দিবসের কাছে আর পাতবো না হাত এক মুঠো রোদ্রের আশায়; জোছনার স্নিগ্ধতাও নয় আর পুর্ণিমার কাছে। শালিকের যতসব গান বিকিকিনি করে নিজেকে সঁপে দেবো অবশেষে খাঁ …

বিস্তারিত পড়ুন