নীড় পাতা » ব্রেকিং » এগিয়ে চলছে বিশ্বশান্তি প্যাগোডার নির্মাণ কাজ

এগিয়ে চলছে বিশ্বশান্তি প্যাগোডার নির্মাণ কাজ

pagoda-01পার্বত্য জেলা রাঙামাটির বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের প্রাচীন পবিত্র ধর্মীয় স্থান রাজবন বিহারে নির্মাণ কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে বিশ্বশান্তি প্যাগোডার ।

রাঙামাটি রাজবনবিহারের নান্দনিক সৌন্দর্য্য উপভোগ আর ধর্মীয় আচর পালন করতে প্রতিদিনই হাজারো পুন্যার্থী আর পর্যটক। এখানেই সংরক্ষিত আছে বৌদ্ধ ধর্মের অন্যতম ধর্মীয় গুরুর শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির (বনভান্তের) দেহাবশেষ। সে কারণে এই পবিত্র স্থানটি বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি তীর্থস্থান হয়ে উঠেছে।

বনবিহারের প্রবেশ পথে বনভন্তের প্রতি শ্রদ্ধা নিদর্শন হিসেবে নির্মিতব্য এই বিশ্বশান্তি প্যাগোডার নির্মাণ ব্যয় প্রায় ৩০ কোটি টাকা নির্ধারন করা হয়েছে। এই প্যাগোডার উচ্চতা হবে ১০৮ মিটার বা ৩৫৪ ফুট, দৈর্ঘ্য ৭০ মিটার, প্রস্থ ৭০ মিটার। এটি প্রায় ৩৫ তলা বিশিষ্ট উচ্চতার হবে বলে জানিয়েছে রাজবনবিহার পরিচালনা কমিটি। ২০১২ সালের ১৪ মে প্যাগোডার ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হয়েছিলো। pagoda-03

বিহারে ঘুরতে আসা পর্যটকদের মধ্যে আলো জামান সরদার বলেন, বিশ্বশান্তি সকলের কাম্য। আমরা ঢাকা থেকে এই রাঙামাটির সৌন্দর্য্য দেখতে এসেছি, এখানে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য মনকে নাড়া দিয়ে যায়। এমন একটি জেলায় যদি এই ধরনের প্যাগোডা নিমার্ণ করা হয় তবে আরো মানুষের কাছে এই জেলাটি আরো প্রিয় হয়ে উঠবে। তাছাড়া এই কারুকাজ দেখতে সুদূর বিদেশ থেকেও মানুষেরা ছুটে আসবে। তাই আমার মনে হয় ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই, এটিকে যদি সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় তবে অনেক ভালো হবে।

নাদিয়া আক্তার নামের আরেকজন দর্শনার্থী বলেন, আমরা রাঙামাটিতে এসেছি বেড়ানোর জন্য। এখানে আমরা অনেক কিছু দেখেছি, তবে এই ধরণের প্যাগোডা নিমার্ণ হচ্ছে শুনে আসলে অনেক ভালো লাগছে। আশা করি নির্মিত হবার পরে আবারো রাঙামাটিতে এই প্যাগোডাটি দেখতে সপরিবারে আসবো।

বনবিহার দর্শন করতে আসা ত্রিদেব দেওয়ান বলেন, বনভন্তে সারা জীবন শান্তির বানী প্রচার করে গেছেন। তিনি সবাইকে বলতেন শান্তির কথা। তাই তার স্মরণে এই শান্তির প্যাগোডা নির্মাণ খুবই প্রশংসনীয় একটি উদ্যোগ। pagoda-02

রাজবন বিহারের কার্যনিবাহী পরিষদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অমিয় খীসা বলেন, বনভন্তে জীবনের শেষ সময়ে এসেও তার উপাসকদেরকে শান্তির কথা শুনিয়ে গেছেন। তিনি সারাটি জীবন মানবের শান্তি চেয়েছেন। গৌতম বুদ্ধের সে মহান বাণী প্রচারের মাধ্যমে সকল উপাসকদেরকে শিক্ষা দিয়েছেন শান্তির কথা। তাই তার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা রেখে আমাদের এই বিশ্বশান্তি প্যাগোডা নির্মান করা।

তিনি আরো বলেন, এই প্যাগোডা নির্মান ছিলো বনভান্তের ইচ্ছা, তাই আমরা চেষ্টা করছি, আমাদের শ্রদ্ধাদান দিয়ে এটিকে নির্মাণ করতে। এখানে কোন প্রকার সরকার এবং কোন সংস্থার থেকে টাকা নেওয়া হচ্ছে না। এটির সকল টাকা আমাদের এখানে বনভন্তেকে দর্শন করতে আশা উপাসকদের দানের।
তিনি আরো বলেন, এটি নির্মাণে অনেক টাকা প্রয়োজন, এজন্য এটির কাজ কবে নাগাদ শেষ হবে তা বলা যায় না।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জুরাছড়িতে গুলিতে নিহত কার্বারির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় স্থানীয় এক কার্বারিকে (গ্রামপ্রধান) গুলি করে হত্যা করেছে অজ্ঞাত বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা। রোববার …

Leave a Reply