নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » ৯ বছর পর কবাখালি বাজারে পাহাড়ি-বাঙালির মিলনমেলা

সোমবার মিলেছে সাপ্তাহিক হাট

৯ বছর পর কবাখালি বাজারে পাহাড়ি-বাঙালির মিলনমেলা

দীর্ঘ নয় বছর পর আবারও মিলেছে খাগড়াছড়ির দীঘিনালার কবাখালী হাট। ২০১১ সালের ডিসেম্বরে এক সাম্প্রদায়িক ঘটনার পর বাজারটি বর্জন করেছিল পাহাড়ি সম্প্রদায়। এরপর বন্ধ হয়ে গিয়েছিল সাপ্তাহিক হাট। সোমবার হাটবারে আবারো পাহাড়ি-বাঙালির উপস্থিতিতে মুখরিত হলো কবাখালী বাজার।

সোমবার সকালে কবাখালি বাজারে গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘ নয়বছর পর নারী-পুরুষের লক্ষ্যনীয় উপস্থিতিতে যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে বাজারটি। উৎসাহ-উদ্দীপনা আর প্রাণচাঞ্চল্য লক্ষ্য করা গেছে সকলের মাঝে। পাহাড়ি-বাঙালিদের ক্রয়-বিক্রয়ে সরব হয়ে উঠেছে আবারও কবাখালী হাট। পরিপূর্ণভাবে জমেছে হাট; দীর্ঘদিনের আশঙ্কা কাটিয়ে এ হাটের মাধ্যমে সম্প্রীতির আরেক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো স্থানীয় ক্রেতা-বিক্রেতারা।

মরিচ বিক্রেতা বীর কুমার চাকমা (৫৫) জানান, এত বছর পর কবাখালী হাট চালু হওয়ার কারণে তারা অনেক উপকৃত হয়েছেন। এখন পার্শ্ববর্তী বাজারেই বিক্রয় করতে পারছেন। একই ধরনের অনুভূতি জানান ক্রেতা জাপান চাকমা (৩০), অনিমা চাকমাসহ (৪০) অনেকেই।

সোমবার সকালে দীঘিনালা সেনাজোন এবং উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বেলুন উড়িয়ে হাটের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ উল্লাহ’র সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জোনের জোনাল ষ্টাফ অফিসার মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজি মোহাম্মদ কাশেম, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য শতরুপা চাকমা, থানার ওসি উত্তম চন্দ্র দেব, বোয়ালখালি (সদর) ইউপি চেয়ারম্যান এবং জেএসএস (এমএন লারমা) উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক চয়ন বিকাশ চাকমা, ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক জনপ্রিয় চাকমা, কবাখালি ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন, মেরুং ইউপি চেয়ারম্যান রহমান কবীর রতন, দীঘিনালা ইউপি চেয়ারম্যান প্রজ্ঞানজ্যোতি চাকমা।

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের ১৪ ডিসেম্বর উপজেলার কবাখালীর মোটরসাইকেল চালক সাত্তারের লাশ উদ্ধার হয় রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা থেকে। তিনি চাকমা সম্প্রদায়ের যাত্রী নিয়ে আগের দিন বাঘাইছড়ি গিয়ে নিখোঁজ হয়েছিলেন। এ ঘটনায় উত্তেজিত বাঙালি সম্প্রদায় কবাখালী বাজার এলাকায় যাত্রীবাহী গাড়িতে হামলা চালায়। তখন জোড়াব্রীজ এলাকার চিকনমিলা চাকমা (৪৮) মারাত্মক আহত হন। পরে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারীবাহিনী চিকনমিলাকে উদ্ধার করে হাসাপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে চিকনমিলার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় তখন থেকে কবাখালী বাজার বর্জন করেন পাহাড়ি সম্প্রদায়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

রাঙামাটিতে এক দিনেই ১১ জনের করোনা শনাক্ত

শীতের আবহে হঠাৎ করেই পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙামাটি জেলায় করোনা সংক্রমণে উল্লম্ফন দেখা দিয়েছে। বিগত কয়েকদিনের …

Leave a Reply