নীড় পাতা » পৌরসভা নির্বাচন ২০১৫ » ২৩ বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ‘নারী নির্যাতন’ মামলা !

২৩ বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ‘নারী নির্যাতন’ মামলা !

‘ধর্ষনের চেষ্টা করা হয়েছে’ এমন অভিযোগ এনে রাঙামাটি শহরের রিজার্ভবাজার,পুরাতন বাস স্টেশন,কাঠালতলি এবং কলেজগেইট এলাকার ২৩ বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় একটি মামলা করেছেন বরকল উপজেলার এক নারী। ২০ ডিসেম্বর কোতয়ালি থানায় দায়ের করা এই মামলাটিকে ‘ নির্বাচনী মামলা’ অভিহিত করে আসন্ন পৌর নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করা থেকে বিরত রাখা ও কেন্দ্র দখল চেষ্টা’য় সম্ভাব্য বাধাদানকারিদের এলাকাছাড়া রাখার প্রচেষ্টা বলে অভিহিত করেছেন মামলায় অভিযুক্তরা।

মামলা দায়েরের পরপরই এজাহারে উল্লেখ করা বিএনপির ওই ২৩ নেতাকর্মীকে গ্রেফতারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ,এমনটা জানিয়েছেন কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মুহম্মদ রশীদ।

২০ ডিসেম্বর কোতয়ালি থানায় দায়ের করা এই মামলায় বাদী নুরুন্নাহার,যার বাড়ী বরকল উপজেলা এবং তার স্বামীর নাম হেলাল মিয়া

নুরুন্নাহার নামের এই নারী অভিযোগ করেছেন,১৯ ডিসেম্বর বরকল থেকে চিকিৎসক দেখানোর জন্য বোটযোগে রাঙামাটিতে আসার পথে চেঙ্গীমুখে আরেকটি বোটযোগে ২০/২৫ জন লোক তাদের গতিরোধ করে তুলে নিয়ে যায় এবং ধর্ষনের চেষ্টা করে। কিন্তু ইকবাল,সুজন বড়–য়,আবু তৈয়ব এবং শফি নামের চার ব্যক্তি তাদের উদ্ধার করে।
পরে থানায় গিয়ে ওই মহিলা মামলা যাদের করেছেন। মামলায় যাদের আসামী করা হয় তারা হলেন,রাঙামাটি পৌর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মাহফুজ উদ্দীন,পৌর যুবদলের সাধারন সম্পাদক সিরাজুল মোস্তফা,ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি মোঃ মাসুম,বিএনপি নেতা আব্দুল মান্নান,যুবদল নেতা আব্দুল মান্নান,মোঃ নেজাম,মোঃ ফজল,নুর নবী,মোঃ দিদার,আব্দুল শুক্কুর,আবুল হাশেম মদন,রাশেদ,নাজিমউদ্দীন,শাহ আলম,লিটন,ইলিয়াছ,ঝন্টু,আলমগীর,রাজু,আরজু,সাদ্দাম এবং শামীম। এরা সবাই বিএনপি,যুবদল কিংবা ছাত্রদলের বিভিন্ন কমিটির দায়িত্বশীল নেতা এবং বিএনপির রাজনীতিতে সবচে বেশি সক্রিয়।

রাঙামাটি জেলা বিএনপির সভাপতি মোঃ শাহ আলম জানিয়েছেন, নির্বাচনের পূর্বে এই রকম নোংরামি করে আওয়ামীলীগ সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করে ভোটচুরির পাঁয়তারা করছে। যা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। এইভাবে নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট করে আওয়ামীলীগ যা করতে চাইছে তা রাঙামাটির মতো শান্তিপূর্ণ শহরের রাজনীতির পরিবেশকেই নষ্ট করবে।

রাঙামাটি পৌর বিএনপির সাধারন সম্পাদক মাহবুবুল বাসেত অপু বলেন, এটা একটা হাস্যকর,অযৌক্তিক এবং ভিত্তিহীন অভিযোগ। মূলত: ভোট কারচুপিতে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে এমন সব বিএনপি নেতাকর্মীকে টার্গেট করেই আসামী করা হয়েছে। মামলার এজাহারটি পড়লে এবং সাক্ষীদের নাম দেখলেই এই মামলার উদ্দেশ্য পরিষ্কার বোঝা যায়। এসবের পরিণতি কারো জন্যই ভালো হবেনা।

তবে বিএনপি নেতাদের অভিযোগ অস্বীকার করে রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ মুছা মাতব্বর বলেন, এই মামলার সাথে আমাদের কোন সম্পর্ক নাই। আমরা কিছু জানিওনা। ওরা অপকর্ম করেছে,ভিকটিম মামলা করেছে। এতে আমাদের কিইবা করার আছে।’

কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মুহম্মদ রশীদ বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়েছি,মামলা হয়েছে। সঙ্গত কারণেই অভিযুক্তদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্য বিভাগকে সুরক্ষা সামগ্রী দিলো রাঙামাটি রেড ক্রিসেন্ট

নভেল করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে রাঙামাটির ১২টি সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রসমূহে স্বাস্থ্য …

Leave a Reply