নীড় পাতা » করোনাভাইরাস আপডেট » স্বাস্থ্য ব্যবস্থা : উপজেলা প্রকৌশলীর মৃত্যু ও ইউএনও’র আবেগঘন স্ট্যাটাস

স্বাস্থ্য ব্যবস্থা : উপজেলা প্রকৌশলীর মৃত্যু ও ইউএনও’র আবেগঘন স্ট্যাটাস

বিলাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে

করোনার উপসর্গ নিয়ে সোমবার সকালে ঢাকার একটি প্রাইভেট হাসপাতালে মারা যান রাঙামাটির বিলাইছড়ি এলজিইডি’র উপজেলা প্রকৌশলী আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি ‍মৃত্যুর দুই সপ্তাহ আগে কাশিতে ভুগেন এবং দুই দিন আগে থেকে জ্বরে ভুগেন।

রোববার সকালে বেশি অসুস্থ হওয়ার পর তাকে প্রথমে বিলাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। পরে রাঙামাটি ও চট্টগ্রামে নেয়া হয়। চট্টগ্রামে আইসিইউ ব্যবস্থা না মেলায় সোমবার ভোরে তাকে ঢাকায় নেয়া হয়। কিন্তু এতটা চেষ্টার পরও বাঁচানো যায়নি এই প্রকৌশলীকে। তার অকাল মৃত্যুতে মর্মাহত হয়ে ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নয়ন নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন বিলাইছড়ি নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পারভেজ চৌধুরী।

ইউএনও’র ফেসবুক স্ট্যাটাস

দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রাম – এর পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো- “জনাব আনোয়ারুল ইসলাম, উপজেলা প্রকৌশলী, বিলাইছড়ি মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণ জনিত কারনে আজ সকালে ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। আল্লাহ উনাকে জান্নাতবাসী করুন। অত্যন্ত বিনয়ী একজন স্বল্পভাসী মানুষ ছিলেন।

অনেকটা চিকিৎসার অভাবেই মারা গেলেন বলতে হয়। পুরো চট্টগ্রামে আইসিইউ সাপোর্ট সবাই মিলে চেষ্টা করার পরেও ব্যর্থ হই সকলে, অবশেষে মুমূর্ষু অবস্থায় সারারাত চট্টগ্রাম মেডিকেল হতে ভোর বেলায় ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

খুব কষ্ট লাগছে এই ভেবে যে আমরা আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নয়নে এখনো এতোটা পিছিয়ে যে একজন সরকারি কর্মকর্তা তার দাপ্তরিক সকল মাধ্যমে ও আমাদের সকলের প্রচেষ্টার পরেও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা টুকু পেলেন না। একজন খুব সাধারণ জনগনের কথা চিন্তা করতে গেলে মাথা কাজ করে না।

তার স্ত্রী ( ভাবি) অসুস্থতার পরবর্তী সময় থেকে আমাকে খালি একটি কথাই বলছিলেন যে ভাই আপনার উপর ই ছেড়ে দিলাম আল্লাহ আর আপনি এখন উনাকে বাচাতে পারেন। আপনি আমার ভাই। আপনি আমাদের একটু সাহায্য করেন। আমাদের কেউ নেই আর তিনটি ছোট মেয়েকে নিয়ে আমি কি করবো। আল্লাহর দোহাই আমাদের এই বিপদ হিতে রক্ষা করুন। কিছুই করতে পারলামনা। আমরা কেউই কিছুই করতে পারিনি। কিছু দিন আগে ঢাকায় বাড়ি যেতে চেয়েছিলেন। করনা পরিস্থিতির কারনে উনাকে ঐ সুযোগ টাও দিতে পারিনি এই জন্য নিজেকে অনেক বড় অপরাধী লাগছে। লাশটাকেই পরিবার দেখতে হবে এতদিন পরে, জীবিত আনোয়ার কে তার পরিবার দেখতে পারলোনা একটি বার।”

(ইউএনও’র ফেসবুক থেকে নেয়া। লেখা হুবহু রাখা হয়েছে।)

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লংগদুতে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে রাঙামাটির লংগদুতে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে। …

Leave a Reply