নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » স্কুল সরকারী ঘোষনায় শিক্ষকদের বেতন বন্ধ !

স্কুল সরকারী ঘোষনায় শিক্ষকদের বেতন বন্ধ !

Reg.-primary-schoolসরকারী ঘোষনার পর রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বন্ধ রয়েছে গত চার মাস যাবত। বেতন বন্ধ থাকায় মানবেতর জীবন যাপন করছে তারা। অনেকে ধার দেনা করে সংসার চালাচ্ছেন। তবে কখন বেতন পাবেন তারও নিশ্চয়তা নেই? তবে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রমেন্দ্র নাথ পোদ্দার জানান, রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা খুব শিঘ্রই শিক্ষকরা বকেয়া সহ সম্পূর্ণ বেতন পেয়ে যাবেন।

জানাযায়, গত বছরের ৯ জানুয়ারী জাতীয় প্যারেড স্কয়ারে রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের এক মহাসমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের ২৬ হাজার দুইশত বিদ্যালয়ের এক লক্ষ চার হাজার বেসরকারী শিক্ষকদের চাকুরী জাতীয়করণের ঘোষনা দেন। এর মধ্যে ঘোষনা অনুযায়ী এমপিওভুক্ত ২২ হাজার ৯২৫টি বিদ্যালয়ের ২২ হাজার ৯২৫টি প্রধান শিক্ষকের পদসহ এক লক্ষ চৌদ্দ হাজার ৬শত ২৫ জন শিক্ষক গত বছরের ১ জানুয়ারী থেকেই সরকারের আওতায় রাজস্ব খাতে চলে আসে। এছাড়া স্থায়ী,অস্থায়ী, পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত এবং এনজিও পরিচালিত প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো গত বছরের ১ জুলাই থেকে সরকারীকরণের আওতাভুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে। বিভিন্ন রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সূত্রে জানাযায়, সরকারীকরণের পরিপ্রেক্ষিতে ইতিমধ্যে রেজিষ্টার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি, গৃহ, নগদ তহবিল এবং শিক্ষক নিয়োগের জাবতীয় তথ্য, দলিল ও সম্পদ উপজেলা শিক্ষা কার্যালয়ের মাধ্যমে সরকারের অনুকূলে হস্তান্তর করা হয়।

এদিকে জাতীয়করণের ঘোষনার পর গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে দীঘিনালা উপজেলার ৩৫টি সহ খাগড়াছড়ি জেলার ১৫৬টি রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের গত চার মাস যাবত বেতন বন্ধ রয়েছে। শিক্ষকদের বেতন বন্ধ থাকায় অনেক শিক্ষক ধার-দেনা করেই দিন যাপন করছেন।

এ ব্যাপারে দীঘিনালা উপজেলার উত্তর কবাখালী রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নজরুল ইসলাম জানান, আগে তো নিয়মিত বেতন পেতাম এখন সরকারী ঘোষনার পর সেপ্টেম্বর থেকে বেতন বন্ধ রয়েছে। বেতন বন্ধ থাকায় আর্থিক সংকটে পড়তে হয়েছে।

কড়ইতলী রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা জয়া চাকমা জানান, সরকার এক বছর আগে আমাদের বিদ্যালয়গুলো সরকারী ঘোষনা দিলেও দাপ্তরিক বিভিন্ন কাজে এখনো বেসরকারী হিসেবেই লিখতে হচ্ছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নাসির উদ্দিন ভূইয়া জানান, রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা যে বেতন পাচ্ছেন না তা উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের নিকট লিখিতভাবে অবহিত করা হয়েছে।

খাগড়াছড়ি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রমেন্দ্র নাথ পোদ্দার জানান, সারাদেশেই রেজিষ্টার বেসরকারী শিক্ষকদের বেতন বন্ধ রয়েছে। আগে তাদের বেতন দেয়া হতো বেসরকারী খাত থেকে। এখন তাদের বেতন আসবে রাজস্ব খাত থেকে, প্রক্রিয়াগত কারণে বেতন না আসায় তাদের বেতনের চাহিদা প্রতিমাসেই দেয়া হচ্ছে। খুব শিঘ্রই বকেয়াসহ পুরো বেতন দেয়া যাবে বলে আশা করছি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান কুজেন্দ্রের

কভিড-১৯ মহামারী উত্তরণে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রীর ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেছে খাগড়াছড়ি পার্বত্য …

Leave a Reply