সেনাবাহিনী-বিজিবিকে কৃতজ্ঞতা,ইউএনডিপির প্রতি ক্ষোভ

tripura‘রাঙামাটির বাঘাইছড়ির দূর্গম সাজেকে ডায়রিয়া আক্রান্ত এলাকায় সেনাবাহিনী -বিজিবি যদি দ্রুত চিকিৎসা না দিতো তাহলে ১৩ হাজার ত্রিপুরা অধ্যুষিত সাজেকের গ্রামগুলি মৃত্যুপুরীতে পরিণত হতো। সাজেকে ডায়রিয়া ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে সেনাবাহিনী, বিজিবি, স্বাস্থ্য বিভাগ দ্রুত রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ায় অসংখ্য প্রাণ রক্ষা পেয়েছে। এজন্য সেনাবাহিনী ও বিজিবিকে ধন্যবাদ জানিয়ে রাঙামাটির ত্রিপুরা কল্যাণ ফাউন্ডেশন এর নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেছেন, সাজেকের ডায়রিয়া আক্রান্ত এলাকায় উন্নয়ন সংস্থাসহ ইউএনডিপি-সিএইচটিডিএফ কোন রকম সহায়তা নিয়ে এগিয়ে আসেনি। তারা ইউএনডিপির নির্লিপ্ততায় গভীর হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

রোববার বিকালে শহরের গর্জনতলীতে রাঙামাটি ত্রিপুরা কল্যাণ ফাউন্ডেশন সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ সব কথা বলেন সংগঠনটির নেতারা। সাজেকে ডায়রিয়া আক্রান্ত এলাকা ঘুরে এসে সেখানকার পরিস্থিতি গণমাধ্যমকে জানাতে এ সংবাদ সন্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সাজেকে দুর্গত মানুষের পাশে সাহায্য নিয়ে দাড়াতে সরকারসহ বিত্তবান মানুষের কাছে আবেদন জানায় সংগঠনটি। সাজেকে ডায়রিয়া আক্রান্ত এলাকায় সেনাবাহিনী -বিজিবি দ্রুত চিকিৎসা দিয়ে মানুষের প্রাণ রক্ষা করায় তাদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে সংগঠনটি। সাজেকের যে সব অঞ্চল এখনো যোগায়োগ ব্যবস্থার বাইরে রয়ে গেছে সেখানে দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা নির্মাণ সহ খাবার পারির ব্যবস্থা করতে সরকারের সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিঅনুরোধ জানান ত্রিপুরা নেতৃবৃন্দ।

সংবাদ সম্মেলনে ত্রিপুরা কল্যাণ ফাউন্ডেশন নেতা ও রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, রাঙামাটি জেলার প্রত্যন্ত ও দূর্গম উপজেলা বাঘাইছড়ি তারই একটি অংশ সাজেক। যেখানে যোগাযোগ ব্যবস্থা অত্যন্ত দুর্গম। আর এ অঞ্চলে বসবাস করা ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের মধ্যে একটি ক্ষুদ্র অংশ ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী, যেখানে ১৩ হাজার মানুষের বসবান । প্রত্যন্ত এ পাহাড়ি অঞ্চলে খাবার পানির অভাবে ডায়রিয়ার প্রার্দুভাব দেখা দিয়েছে। এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৬ জন ত্রিপুরা নারী-পুরুষ। বর্তমানে আক্রান্ত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছে প্রায় ২০০ জন গ্রামবাসী। চিকিৎসা সেবায় কাজ করছে স্থানীয় সেনাবাহিনী, বিজিবিসহ স্বাস্থ্য বিভাগের ৫টি মেডিকেল টিম। রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ, জেলা প্রশাসন, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি, ত্রিপুরা কল্যাণ ফাউন্ডেশনসহ বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগ আক্রান্ত এলাকায় মানুষের সহয়তায় এগিয়ে এসেছে তবে এখনো পর্যন্ত এগিয়ে আসেনি কোন এনজিও সংস্থাসহ ইউএনডিপি-সিএইচটিডিএফ।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, রাঙামাটি ত্রিপুরা কল্যাণ ফাউন্ডেশন সভাপতি সুরেশ ত্রিপুরা, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক কুঞ্জমনি ত্রিপুরা, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ঝিনুক ত্রিপুরা,যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অশোক ত্রিপুরা ।

প্রসঙ্গত, তীব্র গরম ও বিশুদ্ধ খাবার পানির অভাবে গত বুধবার বিকাল থেকে বৃহষ্পতিবার সকাল পর্যন্ত বাঘাইছড়ির সাজেক ইউনিয়নের ৩টি গ্রামে ডায়রিয়ায় অন্তত: ৬ জনের মৃত্যু হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কারাতে ফেডারেশনের ব্ল্যাক বেল্ট প্রাপ্তদের সংবর্ধনা

বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশন হতে ২০২১ সালে ব্ল্যাক বেল্ট বিজয়ী রাঙামাটির কারাতে খেলোয়াড়দের সংবধর্না দিয়েছে রাঙামাটি …

Leave a Reply