নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » সেতুর কাজ শেষ না হতেই বিল পরিশোধ !

সেতুর কাজ শেষ না হতেই বিল পরিশোধ !

bridge-picখাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় ত্রান ও পূনর্বাসন অধিদপ্তরের সেতু ও কালভার্ট নির্মান কর্মসুচীর আওয়তায় সেতু নির্মাণ কাজ শেষ না করেই সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারকে জামানতের অর্থ ফেরত দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, ২০১২-১৩ অর্থ বছরে মাটিরাঙ্গা উপজেলার বেলছড়ি ইউনিয়নের আমবাগান হইতে অযোধ্যা রাস্তায় অযোধ্যা ছড়ার উপর নির্মিত সেতুর পুরো কাজ শেষ না করলেও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবয়ন কর্মকর্তা মো: জোবায়ের হাসান অনিয়মের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারকে জামানতের টাকা পরিশোধ করেছেন। এনিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মোটা অঙ্কের আর্থিক অনিয়মসহ দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ এনেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ঠিকাদার।

সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলার বেলছড়ি ইউনিয়নের আমবাগান হইতে অযোধ্যা রাস্তায় অযোধ্যা ছড়ার উপর নির্মিত সেতুর নির্মান কাজ এক বছর আগে শেষ হলেও ব্রীজের দুই পাশে মাটি ভরাট হয়নি এখনো। ফলে জনগণের প্রয়োজনে আসছেনা সরকারী টাকায় নির্মিত এ ব্রীজটি।

২০১২-১৩ অর্থ বছরে ত্রান ও পূনর্বাসন অধিদপ্তরের তত্বাবধানে ৩০ লাখ ৪৮ হাজার টাকা ব্যয়ে ৪০ ফুট দৈর্ঘ্য এ সেতুর কাজ শেষ না হতেই ১৬ মে ২০১৩ইং তারিখে তা উদ্বোধন করেন তৎকালীন উপজেলা চেয়ারম্যান মো: শামছুল হক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার শহীদ মোহাম্মদ ছাইদুল হক।

এ ব্যাপারে মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: জোবায়ের হাসানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্রথমে জামানতের অর্থ ছাড় করার বিষয়টি অস্বীকার করলেও পরে তা স্বীকার করেন। তিনি সেতুর দুই পাশে মাটি ভরাট করা হয়েছে দাবী করলেও এ প্রতিনিধি তাকে ছবি দেখালে তিনি বলেন মাটি সরে গেছে। জামানতের অর্থ ছাড় করার আগে সেতু পরিদর্শন করেছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঠিকাদারের কথা অনুযায়ী জামানতের টাকা দেয়া হয়েছে। তবে তিনি সেতুর দুই পাশে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার মাটি ভরাট করবেন বলেও জানান।

স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ঠিকাদার সেতু নির্মান কাজ শেষ করলেও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার যোগসাজশে দুই পাশে মাটি ভরাট করেনি। তারা বলেন, সরকারের মোটা অঙ্কের অর্থ ব্যায়ে সেতুটি নির্মান করা হলেও সেতুর দুই পাশে মাটি ভরাট না করায় তা জনগনের কোন কাজে আসছেনা। তবে কেউ কেউ সেতুর সাইড নির্বঅচন নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেছেন, নির্মিত সেতুটি দিয়ে গুটি কয়েক পরিবারের লোকজন যাতায়াত করতে পারবে। ব্যাপক জনগোষ্ঠির কোন উপকারে আসবেনা সেতুটি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লকডাউনে ফাঁকা খাগড়াছড়ি, বাড়ছে শনাক্ত

সারা দেশের মতো দ্বিতীয় দফায় সরকারের ঘোষিত লকডাউন চলছে পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়িতে। প্রথম দফার লকডাউন …

Leave a Reply