নীড় পাতা » করোনাভাইরাস আপডেট » সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন পাহাড়ের প্রথম করোনা রোগী

আইসোলেশন থেকে

সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন পাহাড়ের প্রথম করোনা রোগী

করোনা শনাক্তের ১০ দিন পর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমের বাসিন্দা ৫৯ বছর বয়সী আবু ছিদ্দিক। রোববার দুপুরে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিট থেকে অ্যাম্বুলেন্স করে নিজ বাড়ি পাঠানোর ব্যবস্থা করে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এতে সার্বিক সহযোগিতায় করেন উপজেলা প্রশাসন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু জাফর মো. ছলিম জানান, “রোববার দুপুরে তৃতীয় বারের রিপোর্টটিও করোনা নেগেটিভ হয়েছে। বর্তমানে তাঁকে আমরা অনেকটাই সুস্থ বলতে পারি। তাই তাকে আমরা ঘরে ফিরিয়ে যাওয়ার যাবতীয় ব্যবস্থা করছি। তবে তিনি ঘরে গিয়ে আরও ৭দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার পর চতুর্থ বারের নমুনা সংগ্রহ করে ওই রিপোর্ট নেগেটিভ আসলে তাকে চূড়ান্ত ভাবে সুস্থ বলে দাবি করা যাবে।”

করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত হয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি সদর উপজেলার হাসপাতালের আইসোলেশনে থাকা আবু ছিদ্দিক জানান, “আমি করোনার রোগী ছিলাম। দায়িত্বরত চিকিৎসকরা আমাকে সঠিক চিকিৎসা দিয়েছেন এবং অধিকতর সেবা করেছেন বলেই আমি আজ মোটামোটি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। চিকিৎসকের পরার্মশ অনুযায়ী করো সাথে সংস্পর্শ না হয়ে সাতদিন যাবৎ থাকব।”

উল্লেখ্য, আবু ছিদ্দিক (৫৯) নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা ঘুমধুম ইউনিয়নের কোনারপাড়া বাসিন্দা। তার নমুনা সংগ্রহ করা হয় গত ১৫ এপ্রিল। ১৬ এপ্রিল বান্দরবান জেলায় এই প্রথম নমুনার রিপোর্ট আসে পজেটিভ। একদিন পর নিয়ে আসা হয় সদর নাইক্ষ্যংছড়ি হাসপাতালের আসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। করোনা রোগী শনাক্তের পর তার এলাকার ৩৬ পরিবারকে লকডাউনে রাখা হয়। তার স্ত্রীসহ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তাতে সকলের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লামায় ৪০০ মানুষ পেল ঈদ উপহার

বান্দরবানের লামা উপজেলায় প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রভাবে কর্মহীন ও দুস্থ ৪০০ মানুষ পেলেন ঈদ উপহার। পার্বত্য …

Leave a Reply