নীড় পাতা » ব্রেকিং » ‘সম্প্রীতি’র কথাই বললেন সবাই

‘সম্প্রীতি’র কথাই বললেন সবাই

DSC03816সভার নাম ‘শান্তি ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠায় বিশেষ সভা’। উপস্থিত ছিলেন শহরের গুরুত্বপূর্ণ সব ব্যক্তিই, ছিলেন প্রায় সবপক্ষই। দুই সংসদ সদস্য থেকে শুরু করে জেলার বিশিষ্ট জনেরা,সাবেক ও বর্তমান জনপ্রতিনিধিরা,আইনশৃংখরা বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারাও। ব্যক্তিগত নানান অভিজ্ঞতা বর্ণনার পাশাপাশি জানিয়েছেন,বিগত তিনদিনের ঘটনায় নিজেদের ক্ষোভ বেদনা আর হতাশার কথাও। নিজেদের ব্যর্থতার কথাও বারবার উল্লেখ করেছেন তারা। প্রবীণ বিশিষ্টজনেরা নিজেদের ফেলে আসা সময়ের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বললেন,নবীনেরা কিভাবে ‘জাতিগত বিভেদ’ ভুলে সামনে এগোবে। জানালেন সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাবনাও।

মঙ্গলবার রাঙামাটি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত চলা এই সভায় আইনশৃংখলাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন,আমরা এসেছি এই শহরে চাকুরি করতে,সরকারি দায়িত্ব পালন করতে,কিন্তু আপনারা সবাই এই শহরের। আপনারা যদি একের অপরকে শত্রু ভাবেন,পরস্পরের দিকে অস্ত্র হাতে ছুটে যান,আমরা অসহায় বোধ করি। তারা সবাইকে জাতিগত পরিচয়ের উর্ধ্বে উঠার অনুরোধ জানান। DSC03815

সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু এমপি বলেন,বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ নিয়ে যে কেউ পক্ষে বা বিপক্ষে আন্দোলন করতেই পারে,সেটা তার গনতান্ত্রিক অধিকার। কিন্তু অন্যের অধিকার খর্ব করে সেই আন্দোলন কেনো সংঘাতপূর্ণ হবে ! তিনি সবাইকে রাঙামাটির উন্নয়নের স্বার্থে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান।

সংসদ সদস্য ও জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি উষাতন তালুকদার এমপি বলেন,আমি আপনাদের এই নিশ্চয়তা দিতে চাই,আমি দায়িত্বে থাকা অবস্থায় এমন কোন সিদ্ধান্ত বা পদক্ষেপ নেয়া হবেনা,যাতে বাঙালীরা বঞ্চিত হয়। তিনি বলেন,কে পাহাড়ী কে বাঙালী সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়,আমরা সবাই রাঙামাটির মানুষ এটাই আমাদের প্রথম ও প্রধান পরিচয়। তিনি ভবিষ্যতে এই ধরণের সংঘাতে জড়িত না হওয়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ জানান।

বৈঠকে অংশ নেয়া অধিকাংশ বক্তাই সংঘাতের সূত্রপাতের সাথে জড়িতরা ‘পাহাড়ী কিংবা বাঙালী’ যেই হোক না কেনো তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান। একই আগে ২০১২ সালের ২২ সেপ্টেম্বর একইভাবে রাঙামাটি শহওে সৃষ্ট সহিংসতার পর গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট অনুসারে পরামর্শগুলো বিবেচনায় নেয়ার অনুরোধ জানান।

সভায় বক্তব্য রাখেন সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গৌতম দেওয়ান,মানিক লাল দেওয়ান,জগৎজ্যোতি চাকমা,বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ বাস্তবায়ন সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর আলম মুন্না,জনসংহতি সমিতির জেলা সম্পাদক নীলোৎপল খীসা,আওয়ামীলীগের সম্পাদক মো: মুছা মাতব্বর,জেলা বিএনপির সভাপতি দীপেন দেওয়ান,প্রকৃতি রজ্ঞন চাকমা,ফজলুর রহমান রাজন,কামালউদ্দিন প্রমূখ। প্রায় চারঘন্টা চলে এই সভা। DSC03856

সভা শেষে রাঙামাটির সংসদ সদস্য উষাতন তালুকদার এবং ফিরোজা বেগম চিনু রাঙামাটিবাসির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন গৌতম বুদ্ধের অহিংস চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সবাইকে জাতি ভেদাভেদ ভুলে সম্প্রীতির চেতনায় আবদ্ধ হতে। তারা ভবিষ্যতে রাঙামাটিতে যেনো এই ধরণের আর কোন ঘটনা না ঘটে সেই জন্য রাঙামাটিবাসির প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কাপ্তাইয়ে করোনা সংক্রমণ কমছে

প্রশাসনের কঠোর নজরদারি এবং থানা পুলিশের তৎপরতায় রাঙামাটির কাপ্তাইয়ে করোনা সংক্রমন হার কমছে। কাপ্তাই উপজেলা …

Leave a Reply

%d bloggers like this: