নীড় পাতা » ব্রেকিং » সব স্রোত মিশেছে স্মৃতির মিনারে

সব স্রোত মিশেছে স্মৃতির মিনারে

রাঙামাটিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের মাধ্যমে শুরু হয়েছে দিবসটি আনুষ্ঠানিকতা।

এদিন রাত ১২.০১ মিনিটে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নিরবতা পালন শেষে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে রাঙামাটিতে জেলা প্রশাসক মো. মো. মামুনুর রশিদ, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা ও পুলিশ সুপার আলমগীর কবির শহীদ মিনারে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান করেন। এরপর একে একে সরকারি বেসরকারি ও রাজনৈতিক দলগুলোসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

এরপর শুক্রবার ভোর থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল পুষ্পমাল্য অর্পণ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা প্রভাত ফেরিতে অংশগ্রহণ করে। রাঙামাটির বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রভাত ফেরিতে অংশ নেয়। বিভিন্ন স্কুলের শিশু শিক্ষার্থীরা ছোট ছোট শহীদ মিনার ও ফুল হাতে নিয়ে শহীদ মিনারে শহীদদের শ্রদ্ধা জানায়। পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন গ্লোবাল ভিলেজের উদ্যোগে শহীদ মিনারে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, বর্ণমালা লিখন ও কবিতা আবৃত্তি পরিবেশন করা হয়।

অন্যদিকে পাহাড়ের অন্য জেলা খাগড়াছড়িও যথাযোগ্যা মর্যাদায় শহীদদের স্মরণ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়। একুশের প্রথম প্রহরে খাগড়াছড়িতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়েছে সব শ্রেণি পেশার মানুষ। রাত ১২টা ১ মিনিটে থেকে শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। তবে এর অনেক আগে থেকে শহীদ মিনারের আশপাশে ভিড় জমে যায়। পাহাড়ের অন্য জেলা বান্দরবানে যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

খুলছে না রাঙামাটির পর্যটনকেন্দ্র, স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলছে হোটেল-মোটেল

কভিড-১৯ এর কারণে সারাদেশের মত রাঙামাটির পর্যটনকেন্দ্র ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। তবে সরকারের ঘোষিত …

Leave a Reply