নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন

শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন

26.03মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সরকার হিসেবে জননেত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী বলেছেন, মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাচ্ছন্ধ্য জীবন-যাপনে তাদের ভাতা বৃদ্ধি করেছেন। যা আগামী জুলাই থেকে কাযৃকর হবে। দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে যুদ্ধকালীন সময়ের মতোই মুক্তিযোদ্ধাদেরকে দেশের জন্য কাজ করার আহবান জানান।

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক শহীদ পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। শনিবার দুপুরের দিকে মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা সভায সভাপতিত্ব করেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বি এম মশিউর রহমান।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংবর্ধনা আয়োজক কমিটির আহবায়ক ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) ইমরুল কায়েস। মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মো: সাহাদাত হোসেন টিটো, মাটিরাঙ্গা উপজেলার মুক্তিযুদ্ধকালীন কমান্ডার আলী আশরাফ, মাটিরাঙ্গা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো: মুনছুর আলী ও মাটিরাঙ্গা পৌর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো: আবুল হাসেম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগেই আমরা লাল সবুজের পতাকা পেয়েছি এমন কথা উল্লেখ করে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী বলেন, এদেশের সন্তান হিসেবে আমি সবসময়ই মুক্তিযোদ্ধাদের সুখে-দু:খে আপনাদের পাশে থাকবো। আগামী ২৬ মার্চের আগেই মাটিরাঙ্গায় মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য্য নির্মানের ঘোষনা দিয়ে তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের বাদ দিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস রচিত হতো না।

সংবর্ধনা সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে যে ভাবে দেশকে শত্রু মুক্ত করেছি, ঠিক একইভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত হয়ে স্বাধীনতা বিরোধী চক্রকে রুখে দিতে হবে। তারা বলেন, যুদ্ধাপরাধীরা স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য কলঙ্ক। এ কলঙ্ককে মুছে ফেলতে না পারলে আগামী প্রজন্মকে এর খেসারত দিতে হবে। তারা নতুন প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরার জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি আহবান জানান।

সভার শুরুতে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী অন্যান্যদের সাথে নিয়ে উপস্থিত রনাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের ফুল দিয়ে বরণ করেন। অনুষ্ঠানে মাটিরাঙ্গা উপজেলার মুক্তিযুদ্ধকালীন কমান্ডার আলী আশরাফকে সম্মাননা উপহার তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি।

এর আগে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও পরিবারের সদস্যদের জন্য ফ্রি চিকিৎসা শিবিরের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী। চিকিৎসা শিবিরে মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদল চিকিৎসা ও বিভিন্ন কোম্পানীর সৌজন্যে ঔষধ সরবরাহ করা হয় বিনামুল্যে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বিদ্যুৎ সুবিধাবঞ্চিত মহালছড়ি সদরের ২ গ্রামের মানুষ

আধুনিক প্রযুক্তির ক্রমবিকাশে পাল্টে যাচ্ছে দুনিয়া। প্রতিনিয়ত উদ্ভাবন হচ্ছে নতুন নতুন আবিষ্কার। মানুষের জনজীবনে পড়ছে …

Leave a Reply