নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » ‘শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন ছাড়া পার্বত্যাঞ্চলে কোনদিনও শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়’

‘শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন ছাড়া পার্বত্যাঞ্চলে কোনদিনও শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়’

21
রাঙামাটিতে পুষ্পমাল্য অর্পন

নানা আয়োজনে বান্দরবানে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) প্রতিষ্ঠাতা মানবেন্দ্র নারায়ন লারমার মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। রবিবার বান্দরবানে উজানীপাড়াস্থ সংগঠনের কার্যালয় চত্বরে পার্বত্য শান্তিচুক্তি সম্পাদনকারী আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) প্রতিষ্ঠাতা মানবেন্দ্র নারায়ন লারমার প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পনের মাধ্যমে কর্মসূচীর শুরু হয়।
সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতার ৩০ তম মৃত্যু বার্ষিকীতে জেএসএস কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক কেএস মং মারমা সংগঠনের নেতৃবৃন্দদের সঙ্গে নিয়ে প্রতিকৃতিতে প্রথমে পুস্পমাল্য অর্পন করেন। এরপর একে একে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ (পিসিপি), জনসংহতি সমিতি হিল ইউমেন্স ফেডারেশনসহ পাহাড়ীদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনের সংগঠনগুলো পুস্পমাল্য অর্পন করেন।

পরে দলীয় কার্যালয়ের সামনে জনসংহতি সমিতির উসাচিং মারমার সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যদের মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য ও জেএসএস কেন্দ্রীয় নেতা কেএস মং মারমা, জেলা জনসংহতি সমিতির সভাপতি সাধুরাম ত্রিপুরা মিল্টন, মহিলা সমিতির সভানেত্রী ওয়াই চিং প্রু, জেএসএস নেতা জীবন মারমাসহ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সভায় বক্তারা বলেছেন, পাহাড়ের অবিসংবাদিত নেতা মানবেন্দ্র নারায়ন লারমার রক্ত কখনো বৃথা হতে দেবো না। পাহাড়ীদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে পার্বত্য শান্তি চুক্তি শতভাগ বাস্তবায়ন করতে হবে। শান্তি চুক্তির বাস্তবায়ন ছাড়া পার্বত্যাঞ্চলে কোনদিনও স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়।

প্রসঙ্গত: ১৯৮৪ সালের ১০ নভেম্বর এই দিনে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) প্রতিষ্ঠাতা এমএন লারমা নিজের প্রতিষ্ঠিত সশস্ত্র সংগঠন শান্তিবাহিনীর একদল বিপথগামী সদস্যের হাতে আট সহযোগিসহ নিহত হন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বান্দরবানে ২ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ আদালতের

বান্দরবানে ব্যবসায়ীর কাছ থেকে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে পরিদর্শকসহ ২ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে র‌্যাবকে তদন্তের নির্দেশ …

Leave a Reply