নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » ‘শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে পাহাড়ে সরকারকে সহযোগিতা করছে সেনাবাহিনী’

‘শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে পাহাড়ে সরকারকে সহযোগিতা করছে সেনাবাহিনী’

DSC00005‘পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য পাহাড়ে সেনাবাহিনী কাজ করছে। সেনাবাহিনী নানা সীমাবদ্ধতার মাঝেও এলাকার শিক্ষা সংস্কৃতি ও ক্রীড়ার উন্নয়নে কাজ করে চলেছে। একই সাথে এলাকার দুস্থ ও অসহায় লোকজনদের বিভিন্ন সময় আর্থিকভাবেও সহযোগিতা করছে। এসব কাজ জনগনের সাথে সেতুবন্ধনের জন্য এবং সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য।’ সোমবার জুড়াছড়িতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এইসব কথা বলেছেন রাঙামাটি রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ সরোয়ার হোসেন এইচডিএমসি, পিএসসি।

রাঙামাটির জুরাছড়ি সেনা জোনের উদ্যোগে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মহিলাদের সেলাই মেশিন, ধাত্রীবিদ্যায় প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের সরঞ্জামাদি, স্কুলের শিক্ষার্থীদের মাঝে খেলার ব্যাট-বল এবং ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মেরামত ও উন্নত চিকিৎসার জন্য নগদ অর্থ প্রদান করা উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এইসব কথা বলেন রিজিয়ন কমান্ডার।
সোমবার উপজেলা সদরে অবস্থিত সেনা ক্যাম্পে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে পার্বত্যাঞ্চলে চাঁদাবাজির ব্যাপারে আক্ষেপ করে রিজিয়ন কমান্ডার বলেন, কতিপয় চাঁদাবাজের কাছে গোটা পার্বত্যাঞ্চলের মানুষ জিম্মি। পাহাড়ের মানুষ নিজেদের কষ্টার্জিত আয় থেকে চাঁদাবাজদের চাঁদা দেয়, কিন্তু আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে এ সম্পর্কে কিছুই বলে না। এটা খুবই দুঃখজনক। তিনি বলেন এসব অপরাধীদের বিরুদ্ধে সকলে একযোগে কাজ করলে এদের অস্তিত্বই থাকবে না। তিনি চাঁদাবাজদের প্রশ্রয় না দেয়ার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে জুরাছড়ি সেনা জোনের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মিঞা মোঃ হেমায়েত হোসেন, রাঙামাটি রিজিয়নের জিটুআই মেজর মোঃ রাজিব হোসেন খান, জুরাছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, উপজেলার সকল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, মেম্বার, মহিলা মেম্বার, হেডম্যান-কার্বারীসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
প্রশিক্ষনার্থীদের উদ্দেশ্যে রিজিয়ন কমান্ডার বলেন, নিজেদের মেধা ও শ্রম দিয়ে যে বিদ্যা অর্জন করেছেন তা দুর্গম পাহাড়ের অবহেলিত মানুষের সেবায় কাজে লাগবে। এ বিদ্যায় গুরুতর কোনো রোগের চিকিৎসা হয়তো করা যাবে না, কিন্তু প্রাথমিক চিকিৎসা সেবাতো দেয়া যাবে। প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা পেলে যে কোনো রোগিকে পরে সারিয়ে তোলা যায়। প্রত্যেকের মধ্যে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা সম্পর্কে প্রাথমিক জ্ঞান থাকা জরুরী বলে রিজিয়ন কমান্ডার মন্তব্য করেন।

অনুষ্ঠানে তিনমাস ব্যাপী প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত দুস্থ মহিলাদের মাঝে ১৫টি সেলাই মেশিন ও সনদ, মা ও শিশু মৃত্যুর হার কমানোর লক্ষ্যে প্রসূতি মায়েদের চিকিৎসা সেবার জন্য দিনব্যাপী ধাত্রীবিদ্যায় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ৩৬ জন বয়োজৈষ্ঠ মহিলাদের মাঝে সরঞ্জামাদি প্রদান করা হয়। এছাড়াও স্থানীয় ভুবনজয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্লাবের জন্য জন্য ফুটবল, ভলিবল ও ক্রিকেট খেলার সরঞ্জাম এবং শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা সামগ্রী দেয়া হয়। বনযোগিছড়ার নির্মানাধীন উপগুপ্ত বৌদ্ধ মন্দির সংস্কারের জন্য এবং উন্নত চিকিৎসা সেবার জন্যও নগদ টাকা অনুদান দেয়া হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফের জন্মবার্ষিকী আজ 

আজ বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফের জন্মবার্ষিকী। ১৯৪৩ সালের ১ মে তিনি ফরিদপুর জেলার মধুখালী থানার …

Leave a Reply