নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » শংকা উড়িয়ে আস্থার জয়

শংকা উড়িয়ে আস্থার জয়

Digina-voter-011ঘড়ির কাটা তখন ৭টা বেজে ৩৫ মিনিটে। এই সময়ে দীঘিনালার বোয়ালখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট কেন্দ্রের লাইন ছাড়িয়ে গেছে স্কুল গেইট। চারপাশে লোকে লোকারন্য। এমন উপস্থিতি দেখে স্থানীয় প্রশাসন থেকে শুরু করে খোদ গনমাধ্যমকর্মীরা হতবাক। কারণ খাগড়াছড়ির বিগত ৭টি উপজেলা নির্বাচনে ভোটারদের এমন উপস্থিতি ছিলনা। ঐ কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার রাজীব ত্রিপুরা জানালেন, ভোট গ্রহনের প্রথম ঘন্টায় সংগ্রহ হয়েছে সাড়ে ৫শ ভোট।
একটু বিরক্ত হয়ে সুনীল কান্তি দে নামে এক ভোটার জানালেন, শুরুতে ভোটারদের ভীড় কম হবে ভেবেই এতো তাড়াতাড়ি আসা। কিন্তু এখন দেখছি দীর্ঘ লাইনে দাড়িঁয়ে থেকে ভোট দিতে হবে।’Digi-voter-02
শুধু কি এই কেন্দ্র? ভোটার উপস্থিতির এমন চিত্র দীঘিনালার প্রায় সব কেন্দ্রে। অনেক কেন্দ্রে সকাল ১০টার মধ্যে ৫০ শতাংশ ভোট সংগ্রহ হয়ে যায়।
পাহাড়ের আলোচিত এই উপজেলা নির্বাচন নিয়ে বাড়তি সতর্ক ছিলেন প্রশাসন। কারণ এটিই একমাত্র উপজেলা যেখানে কিনা খুন, অপহরণ ও গোলাগুলির খবর অহরহ। দীঘিনালার শান্তিপূর্ণ নির্বাচন নিয়ে শংকায় ছিলেন স্থানীয়রা। খোদ প্রার্থীরা প্রশাসনের কাছে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানিয়েছিলেন। প্রশাসন থেকে বারবার সর্বচ্চো নিরাপত্তা দিয়ে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করা হবে বলে আশ্বাস দেয়া হয়। শেষ পর্যন্ত স্থানীয় ভোটার ও প্রার্থীদের শংকা উড়িয়ে আস্থার জয় ছিনিয়ে এনেছেন প্রশাসন। ২৫টি কেন্দ্রেই পুলিশ ও আনসার সদস্যের পাশাপাশি সতর্ক অবস্থায় ছিলেন সেনাবাহিনীর সদস্যরা। মাঠে বিজিবি ও সেনা টহল। didgi-voter-03
দীঘিনালা থানার অফিসার ইনচার্জ শাহাদাৎ হোসেন টিটু বলেন, ‘এমনিতে বিভিন্ন এলাকায় ভোটারদের উপর আঞ্চলিক দলগুলো চাপ দিচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছিল। যার কারণে আতংকে ছিল ভোটাররা। আর সব কিছু বিবেচনা করে জোরদার করা হয়েছিল নিরাপত্তা ব্যবস্থা। কেন্দ্রগুলোতে ভোটারের উপস্থিতি নিয়ে মনে একটু সন্দিহান ছিল। কিন্তু উপস্থিতি দেখে সব সংশয় কেটে গেছে।
দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফজলুল জাহিদ পাবেল বলেন, কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই আমরা শান্তিপুর্ন ও উৎসব মুখর পরিবেশে নির্বাচন সম্পূর্ণ করেছি। এদিকে ভোট গ্রহনের শেষ সময়ে রশিদ নগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শনকালে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মোশারফ হোসেনের গাড়ীর কাচ ভাংচুর করা হয়। এছাড়া বোয়ালখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে দুটি পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।Digo-voter-04
নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে ৮ জন ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে সেনাবাহিনী ও বিজিবি’র ৮টি মোবাইল টিম, পুলিশের ২ জন এএসপির নেতৃত্বে ২টি বিশেষ টিম, ৫টি মোবাইল টিম, ২টি স্ট্রাইকিং টিম দায়িত্ব পালন করে।।
এদিকে উপজেলার ২৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ১২টি কেন্দ্র অধিক অধিক ঝুঁকিপূর্ন, ৫ ঝুঁকিপূর্ণ ও ৮টি সাধারণ কেন্দ্র হিসেবে চিহিৃত করা হয়েছিল। একটি কেন্দ্রে ব্যবহার করা হয় হেলিকপ্টার।
দীঘিনালা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিন পদে মোট ১৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। এরমধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৯ জন, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন। এই উপজেলার মোট ভোটার ৬৫ হাজার ৮শ ৭৪জন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

নানিয়ারচর সেতু : এক সেতুতেই দুর্গমতা ঘুচছে তিন উপজেলার

কাপ্তাই হ্রদ সৃষ্টির ৬০ বছর পর এক নানিয়ারচর সেতুতেই স্বপ্ন বুনছে রাঙামাটি জেলার দুর্গম তিন …

Leave a Reply