নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » লক্ষীছড়িতে গুলিতে ব্যসসায়ী নিহত, স্কুলছাত্রী গুলিবিদ্ধ

লক্ষীছড়িতে গুলিতে ব্যসসায়ী নিহত, স্কুলছাত্রী গুলিবিদ্ধ

lakshmichhariজেলার লক্ষীছড়ির জর্গাছড়িতে শনিবার সকালে দুর্বৃত্তের গুলিতে এক ব্যবসায়ী নিহত এবং গ্রামের স্কুল পড়ুয়া এক কিশোরী গুলিবিদ্ধ হয়। গুলির শব্দে দিগি¦দিক ছুটোছুটি করার সময় জয়কুমার চাকমা (৪৫) নামের লক্ষীছড়ি বাজারের এই ব্যবসায়ী ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এসময় পথচারী ওই এলাকার প্রদীপ কুমার চাকমার মেয়ে কল্পনা রানী চাকমা গুলিবিদ্ধ হন। ঘটনার পর আইন শৃংখলাবাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে অস্ত্র, গুলিসহ একজনকে আটক করেছে। ঘটনাস্থলটি লক্ষীছড়ি থানার মাত্র ১শ গজের ভেতরে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, সকালে সামরিক পোষাক পরিহিত একদল অস্ত্রধারী দুর্বৃত্ত এলোপাথারি গুলি চালালে ঘটনাস্থলেই হতাহতের ঘটনা ঘটে। নিরাপত্তাবাহিনী সূত্র জানিয়েছে, বিবদমান দুটি পাহাড়ী সংগঠনের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়েই এ ধরনের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।
স্থানীয় সূত্র জানায়, শনিবার সকাল ৮টার দিকে জনসংহতি সমিতির আস্তানা লক্ষ্য করে প্রথমে এলোপাথারি গুলি চালায় ইউপিডিএফ এর অস্ত্রধারীরা। এরপর পাল্টা গুলি চালায় জনসংহতি সমিতির কর্মীরা। তখন বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি বিনিময় হয়। এতে এলাকার বাসিন্দারা আতংকিত হয়ে দিগি¦দিক ছুটোছুটি শুরু করে। এতে জয় কুমার চাকমা নিহত ও তার স্যালকের মেয়ে কল্পনা রানী চাকমা গুলিবিদ্ধ হয়। ভয়ে পাহাড়ী গ্রামের বহু নারী-পুরুষ পাশের এলাকায় ছুটে যায়। আতংক ছড়িয়ে পড়ে।
লক্ষীছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা জানিয়েছেন, কে বা কারা অতর্কিতভাবে গ্রামে হামলা চালালে পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে। বিক্ষিপ্তভাবে গোলাগুলিতে নিরীহ গ্রামবাসী নিহত ও স্কুল ছাত্রী গুরুতর আহত হয়। কল্পনা রানী চাকমা লক্ষীছড়ি হাইস্কুলের সপ্তম শ্রেনীর ছাত্র।
গুলিবিদ্ধ কল্পনা চাকমার পিতা প্রদীপ কুমার চাকমা বলেন, ‘আমার মেয়ে কল্পনা স্কুলে যাবার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। সে ভাত খেয়ে উঠেছে মাত্র। তখন দুর্বৃত্তদের এলোপাথারি গুলিতে আহত হয়। অস্ত্রধারীরা সংখ্যায় ৭/৮জন ছিল।’ পাশ্ববর্তী দোকানদার ভোলাশীল জানান, জয় কুমার চাকমা বাজারে আসছিলেন। এসময় গোলাগুলিতে সড়কের ওপরই গুলিতে লুটিয়ে পড়েন।
গুলির শব্দ থামার পর সেনাবাহিনীর সদস্যরা এলাকাটিকে ঘিরে ফেলে। পুলিশ গিয়ে লাশ ও গুলিতে আহত কিশোরীকে উদ্বার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। উপজেলা সদরের কাছে হওয়ায় আইন শৃংখলাবাহিনী দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে।
সেনাবাহিনীর গুইমারা রিজিয়নের একজন সেনা কর্মকর্তা জানান, সেনাবাহিনী ও পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে ৪ রাউন্ড তাজা গুলিসহ বেশ কয়েক রাউন্ড গুলির খোসা এবং ১টি বিদেশী পিস্তল, ১টি পাইপগান উদ্বার করে। এসময় মঙ্গলা ত্রিপুরা (৩৭) নামের জনসংহতি সমিতির এক সদস্যকে আটক করা হয়।
এদিকে স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলা ত্রিপুরা জনসংহতি সমিতির প্রভাবশালী সদস্য। প্রতিপক্ষের লোকজনের ভয়ে জেএসএস এর এই সদস্য পাশের বাঙ্গালী গ্রামে ডুকে পড়েন। এসময় আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে আটক হন তিনি। মঙ্গলা ত্রিপুরা বাড়ী মাটিরাঙ্গা উপজেলার গুমতি এলাকায়।
লক্ষীছড়ি থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাহার মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, লাশ উদ্বার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। গুলিবিদ্ধ স্কুল ছাত্রীকে প্রথমে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার পর চট্টগ্রামে মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। চিকিৎসকরা জানান, তার কোমরে গুলি লেগেছে।
জনসংহতি সমিতির লক্ষীছড়ি শাখার সভাপতি জ্যোতিষ চাকমা জানিয়েছেন, ইউপিডিএফ এর সন্ত্রাসীরা অতর্কিতভাবে গ্রামবাসীর ওপর গুলি চালিয়েছে। এতে নিরীহ গ্রামবাসীরা হতাহত হন। তিনি গোলাগুলির কথা অস্বীকার করেছেন। অন্যদিকে ইউপিডিএফ ঘটনার সাথে তাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবী করেছেন। ইউপিডিএফ এর কেন্দ্রীয় মূখপাত্র নিরন চাকমা বলেন, জেএসএস এর মধ্যে আভ্যন্তরীন দ্বন্ধের জের ধরে এই ঘটনা ঘটেছে। সম্ভবত জয় কুমার চাকমার বাড়ীতেই বোরকা পার্টির সদস্যদের আস্তানা ছিল।

পাল্টাপাল্টি হামলায় দুই মাসে ৬ খুন
পার্বত্য চট্টগ্রামের বিবদমান পাহাড়ী সংগঠনগুলোর হামলা পাল্টা হামলায় গত দুই মাসে খুন হয়েছেন ৬জন। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আরো ৪জন। চলতি মাসের ৫ তারিখে লক্ষীছড়ি সদরের বেলতলীতে প্রতিপক্ষের গুলিতে পান হারান জনসংহতি সমিতির সদস্য নারায়ন মারমা। গুলিবিদ্ধ হন একই সংগঠনের সমর্থক জীতেন চাকমা।
এছাড়া ১২ এপ্রিল খাগড়াছড়ি সদরের ভাইবোনছড়ায় দুর্বৃত্তদের ব্রাশফায়ারে নিহত হন দুই ইউপিডিএফ সমর্থক। তারা হলেন, প্রতুলময় চাকমা ও নতুন কুমার চাকমা। এরআগে ৯ মার্চ বাবুছড়ায় ইউপিডিএফ সদস্য সুদৃষ্টি চাকমা নিহত ও হৃদি চাকমা আহত হন। ১ মার্চ দীঘিনালা দুর্গম পাবলাখালী হতে মিন্টু বিকাশ চাকমার লাশ উদ্বার করা হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লংগদুতে মাছের পোনা অবমুক্ত

রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের উৎপাদন ও বংশবৃদ্ধির লক্ষে লংগদুতে পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে। …

Leave a Reply