নীড় পাতা » ব্রেকিং » লংগদুতে ব্যাপক অগ্নিসংযোগ,১৪৪ ধারা জারি

লংগদুতে ব্যাপক অগ্নিসংযোগ,১৪৪ ধারা জারি

রাঙামাটির লংগদু উপজেলায় যুবলীগের এক নেতাকে হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে লংগদুবাসির ব্যানারে আয়োজিত এক মিছিল থেকে পাহাড়ীদের অসংখ্য বাড়ীঘরে অগ্নিসংযোগ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনার পর লংগদু উপজেলায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, গত বৃহস্পতিবার লংগদু উপজেলা থেকে ভাড়ায় মোটর সাইকেল চালক ও স্থানীয় সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন দুইজন যাত্রী নিয়ে দীঘিনালার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। কিন্তু দুপুরের পর দীঘিনালার চারমাইল এলাকায় তার মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয় সথ। পরে সন্ধ্যায় ফেসবুকে তার মৃতদেহের ছবি দেখে সনাক্ত করে পরিবার ও বন্ধুরা। আজ শুক্রবার সকালে নয়নের লাশ লংগদুতে তার গ্রামের বাড়ী বাইট্টাপাড়া আনা হয়। সেখান থেকে লংগদু বাসির ব্যানারে কয়েক হাজার বাঙালীর একটি বিশাল শোক মিছিল উপজেলা সদরের দিকে যাচ্ছিলো জানাজার উদ্দেশ্যে। হঠাৎ একই উপজেলার ঝর্ণাটিলা এলাকায় মারফত আলী নামের এক বাঙালীর বাড়ীতে দুর্বৃত্তরা আগুন দিয়েছে এমন খবর পেয়ে এই মিছিল থেকেই প্রধান সড়কের পাশের লংগদু উপজেলা জনসংহতি সমিতির কার্যালয় সহ আশেপাশের পাহাড়ীদের বাড়ীঘরে ব্যাপক অগ্নিসংযোগ করা শুরু হয়। আগের দিন রাতেই স্থানীয় পাহাড়ীরা সম্ভাব্য গোলযোগের শংকায় সড়ে পড়ায় কোন হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও পাহাড়ী অধ্যুষিত তিনটিলা পাড়ার ব্যাপক অগ্নিসংযোগ করা হয়। ঘটনাস্থলে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও আইনশৃংখলাবাহিনীর সদস্যরা থাকলেও তারাও নিরূপায় হয়ে পড়েন।

পরে উপজেলা পরিষদ মাঠে নয়নের জানাজা ও শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়। শোকসভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান তোফাজ্জ্বল হোসেন,ভাইস চেয়ারম্যান নাসিরউদ্দিন,জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মো: জানে আলম, পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদের জেলা সভাপতি আলমগীর হোসেন, উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, সমঅধিকার নেতা এডভোকেট আবছার আলী। এখানে এসে বক্তব্য প্রদান কালে সেনাবাহিনীর লংগদু জোন কমান্ডার লে: কর্ণেল আ: আলীম চৌধুরী ও লংগদু থানার অফিসার মোমিনুল ইসলাম, সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান এবং নয়নের খুনিদের গ্রেফতারের আশ^াস দেন।

তিনটিলা এলাকার বাসিন্দা ও উপজেলা জনসংহতি সমিতির সাধারন সম্পাদক মনিশংকর চাকমা জানিয়েছেন, আমাদের পাড়ার একটি ঘরও অবশিষ্ট নেই। প্রায় দুইশতাধিক বাড়ীঘর সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, এই হত্যার ঘটনার সাথে তো আমাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই,আমরা তো কিছুই জানিনা, তবুও কেনো আমাদের বাড়ী ঘর আগুনে পোড়ানো হলো জানিনা। তিনি কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, ১৯৮৯ সালে একবার নি:স্ব হয়েছিলাম আগুনে,আবার নি:স্ব হলাম। তিনি সহ অসংখ্য মানুষ স্থানীয় বনবিহারে আশ্রয় নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

লংগদু উপজেলা সমঅধিকার আন্দোলনের সভাপতি খলিলুর রহমান বলেন, আমরা লংগদুবাসির ব্যানারে সর্বদলীয়ভাবে নয়নের লাশ গোসল শেষে জানাজার জন্য উপজেলা সদরের মাঠের দিকে যাচ্ছিলাম। হঠাৎ খবর আসে ঝর্ণাটিলায় একটি বাঙালী বাড়ীতে অগ্নিসংযোগের খবর আসায় মিছিলের উত্তেজিত লোকজন জনসংহতি সমিতির কার্যালয়ে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে, পরে পরিস্থিতি আমাদের নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে যায়।

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান জানিয়েছেন, আমি বিষয়টি জানার সাথে সাথেই লংগদু উপজেলায় ১৪৪ ধারা জারি করেছি। আইনশৃংখলা পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক আছে এবং আইনশৃংখলাবাহিনী সর্বোচ্চ সতর্কবস্থায় আছে।

প্রসঙ্গত, ১৯৮৯ সালে এই তিনটিলা এলাকায় তৎকালিন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদকে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। এরপর বিক্ষুদ্ধ বাঙালীরা এই পাড়ায় ব্যাপক অগ্নিসংযোগ করেন এবং ওই এলাকার পাহাড়ীরা দীর্ঘদিন ভারতে উদ্বাস্তু হিসেবে ছিলেন এবং ১৯৯৭ সালে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি সাক্ষরিত হওয়ার পর দেশে ফেরত আসেন।

এদিকে যুবলীগ নেতা নয়নকে হত্যার প্রতিবাদে রাঙামাটি জেলা শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ এবং পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদ। দুপুরে শহরের বনরূপা থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে বনরূপায় এসে সমাবেশ করে। জেলা যুবলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সম্পাদক নুর মোহাম্মদ কাজলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ছাওয়াল উদ্দিন, পৌর যুবলীগের সভাপতি আবুল খায়ের,জেলা মৎসজীবি লীগের সভাপতি উদয়ন বড়–য়া,কৃষকলীগের সাধারন সম্পাদক উদয় শংকর চাকমা। সমাবেশ থেকে অবিলম্বে পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করার জানানো হয়। দ্রুত নয়নের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানানো হয়, অন্যথায় কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে বলে জানানো হয়।

একই ঘটনার প্রতিবাদে শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদ। শহরের কাঠালতলি থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে বনরূপায় সমাবেশ করে। জেলা সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সভাপতি হাবিবুর রহমান, পার্বত্য নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক নূরজাহান বেগম,তুহিন প্রমূখ। সমাবেশ থেকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে নয়নের খুনিদের গ্রেফতার করা না হলে পার্বত্য চট্টগ্রামকে অচল করে দেয়ার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

প্রেমিকের সঙ্গে বিয়েতে পরিবারের অসম্মতি, অতপর…

বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় মুবিনা আক্তার নয়ন (১৬) নামের এক তরুনী গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে …

48 comments

  1. Bansot police,army bahini ra….etookon jari korte parenai….jokon gor,bari,dokan pure chai hoye gese tokon jari korlo….kankir police bahinira..

  2. ১৪৪ ধারাজারি শুধু পাহারিদের জন্য।সেটেলার পশুদের জন্য নয়।

  3. একজন সাধারন বাঙ্গালিকে মেরে রাস্তার পাশে ফেলে রেখেছে অবৈধ সন্ত্রাসীরা এরপরই দাঙ্গা শুরু হয়

  4. অটা কেমন কথা, সে সাধারন বা অসাধারন মানুষতো অকজন মানুষ অারেকজন মানুষকে কেটে ফেলবে অটা মেনে নিতে কষ্ট হয়। সে যে জাতিই হোকনা কেন।

  5. Hmm.jokhon marpit hoy tokhon police koy? Ki kore police or wife satha pream kore naki?

  6. এরা সবাই আগে নৌকায় ভরসা করেচিল বলেই আজ তাদের এই পরিনতি।
    তবে আমি পাহাড়িদের বলব আপনারা কি শান্তিচক্তুির সময় সব অস্ত্র জমা দিয়ে দিয়েচেন নাকি? না দিয়ে থাকলে খেলা শুরু করে দিন। প্রথমে বাহদুর, দিপন্কর, এদের দিয়ে শুরু করুন ???

  7. কথা টা সত্যা নয়, এই ছবি অন্য জায়গার।

  8. রাস্তায় যখন নয়নের লাশ বহন কারী গাড়ীটি নয়নের লাশ নিয়ে নিজ বাড়িতে যাচ্ছিল আমার বুকটা কেপে উঠলো।গাড়ীটি দেখে মনকে মানাতে পারলাম না।কত নিষ্ঠুর উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা।

    চট্রগ্রাম এসে খবর পেলে নতুন করে আরেক খবর।বাঙালীদের আন্দোলন যখন যোরদার করার প্রস্তুতি নিচ্ছে তখনি খুনিরা নতুন নাটক সাজিয়ে বসলো।

    নিশ্চিত থাকেন একটু পড়েই বাংলাদেশের মিডিয়ায় একটি মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করা হবে! পাহাড়ে উপজাতিদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে খবরটি প্রকাশ হবে। অতীতেও এমন বহু ঘটনা ঘটেছে।

    প্রকৃত ঘটনা আগেই জেনে নিনঃ
    (মিডিয়ায় কারসাজি করার আগে দ্রুত ছড়িয়ে দিন)
    লাশ দাফন নিয়ে ব্যস্ত লংগদু উপজেলার বাঙ্গালী। জানাযা নামাজে সমবেত হচ্ছিল বিভিন্ন এলাকা হতে দলে দলে। ঠিক তখনই লংগদু উপজেলায় জেএসএস এর ঘাটি কাঠাতলীতে অগ্নি সংযোগের সংবাদ পেলো সমবেত মানুষ। ঘটনাটা কি??????

    ঘটনা হচ্ছে নয়ন হত্যার মূল হোতা লংগদু উপজেলার বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মী দীপালো চাকমা। যার সাথে নয়ন হত্যার দুদিন আগে নয়নের সাথে তর্ক হয়। সেই তর্কের রেশ ধরে জেএসএস নেতা দীপালো নয়নকে জেএসএস সদস্য দ্বারা হত্যা করিয়েছে। গতকাল দীপালোকে নয়নের মোটর সাইকেলে নজর রাখতে ডাংগা বাজার, দীঘিনালায় দেখা গিয়েছে। এমনকি এই হত্যায় উপজেলা জেএসএস এর বড় বড় নেতাদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে……. এটা এখন মোটামুটি সুস্পষ্ট হয়ে গিয়েছে।

    ঠিক তখনই নয়নের জানাযায় লোকজন সমবেত হওয়ার মাধ্যমে তিব্র আন্দোলনের আভাস পেয়ে জেএসএস নিজের ঘাটিতেই অগ্নী সংযোগ করেছে।
    উদ্দেশ্য নিজেদের ঘরে অগ্নী সংযোগ করে আন্দোলন ভিন্ন ঘাতে প্রভাবিত করা। নয়ন হত্যাকে ধামাচাপা দিয়ে নিজেদের ক্ষতিগ্রস্থ হিসেবে মিডিয়ায় তুলে ধরা ………..

    পরিমার্জিতঃ রূপকথার রাজ পুত্র

  9. (মিডিয়ায় কারসাজি করার আগে দ্রুত ছড়িয়ে দিন)

    লাশ দাফন নিয়ে ব্যস্ত লংগদু উপজেলার বাঙ্গালী। জানাযা নামাজে সমবেত হচ্ছিল বিভিন্ন এলাকা হতে দলে দলে। ঠিক তখনই লংগদু উপজেলায় জেএসএস এর ঘাটি কাঠাতলীতে অগ্নি সংযোগের সংবাদ পেলো সমবেত মানুষ। ঘটনাটা কি??????

    ঘটনা হচ্ছে নয়ন হত্যার মূল হোতা লংগদু উপজেলার বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মী দীপালো চাকমা। যার সাথে নয়ন হত্যার দুদিন আগে নয়নের সাথে তর্ক হয়। সেই তর্কের রেশ ধরে জেএসএস নেতা দীপালো নয়নকে জেএসএস সদস্য দ্বারা হত্যা করিয়েছে। গতকাল দীপালোকে নয়নের মোটর সাইকেলে নজর রাখতে ডাংগা বাজার, দীঘিনালায় দেখা গিয়েছে। এমনকি এই হত্যায় উপজেলা জেএসএস এর বড় বড় নেতাদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে……. এটা এখন মোটামুটি সুস্পষ্ট হয়ে গিয়েছে।

    ঠিক তখনই নয়নের জানাযায় লোকজন সমবেত হওয়ার মাধ্যমে তিব্র আন্দোলনের আভাস পেয়ে জেএসএস নিজের ঘাটিতেই অগ্নী সংযোগ করেছে।
    উদ্দেশ্য নিজেদের ঘরে অগ্নী সংযোগ করে আন্দোলন ভিন্ন ঘাতে প্রভাবিত করা। নয়ন হত্যাকে ধামাচাপা দিয়ে নিজেদের ক্ষতিগ্রস্থ হিসেবে মিডিয়ায় তুলে ধরা ………..

  10. জুম্মা সন্ত্রাসিরা নিষ্ঠুর ভাবে নয়ন ভাই কে হত্যা করে,যখন বুজলো বাঙ্গালীরা আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত তখনি নয়ন ভাইয়ের জানাজা নামাজ পড়ার সময় নিজেদের গর বাড়ি পুরিয়ে দেয় জুম্ম সন্ত্রাসিরা যাতে করে বাঙ্গালীদের আন্দোলন দমিয়ে রাখা যায়,আচ্ছা কি এমন অপরাধ ছিল নয়ন ভাই এর বলতে পারবেন কেউ?

  11. ইতিহাস সৃষ্টি কারী পার্বত্য শান্তি চুক্তির আলোকে রাজনৈতিক সমাধানের মাধ্যমেই এই হানাহানি চিরতরে বন্ধ করতে হবে । সব সম্প্রদায়ের সহাবস্থান আশা করছি ।

  12. সবাইকে অনুরোধ করছি দয়া করে কোন উস্কানি মুলক কমেন্টস না করার জন্য ।ধন্যবাদ

  13. একজন নিরিহ বাঙ্গালী জখন মারে জানোয়ারের জাতেরা তখন নাম দারি কিছু দুরনিতি বাচ সুসিল সমাজ কোথায় থাকে।?

  14. চঁাদাবাজী অস্রবাজী বন্দ ছাড়া এ সমস্যার সমাধান হবে না।

  15. মাদারচুদ ভুল ন‌িউজ প্রচার চুদাস! বল না স‌েটেলার কুত্তা রা অাগুন দ‌িয়‌ে‌ছে, কুত্তা বাহ‌িনীদ‌ের ন‌িয়ে

  16. This has been happening in CHT, the usual helped and supported by the Bangladesh military to the Bengali settler in order to CHT Land grave, killing, burning, steeling, torching, sexing, fucking, and so on from many decades. This is not new incident in Bangladesh and there is no human right in Bangladesh. They are killing all innocent Indigenous people in CHT Bangladesh. What a shame in Bangladesh! No education, no jobs, and only growing and fucking, killing…

    This has been happening in CHT, the usual helped and supported by the Bangladesh military to the Bengali settler in order to CHT Land grave, killing, burning, steeling, torching, sexing, fucking, and so on from many decades. This is not new incident in Bangladesh and there is no human right in Bangladesh. They are killing all innocent Indigenous people in CHT Bangladesh. What a shame in Bangladesh! No education, no jobs, and only growing and fucking, killing…

  17. পাহাড় ২৪# তোর মারে শুকরের তেল দিয়ে চুদি। ভূয়া নিউজ দেন কেন?

  18. This has been happening in CHT, the usual helped and supported by the Bangladesh military to the Bengali settler in order to CHT Land grave, killing, burning, steeling, torching, sexing, fucking, and so on from many decades. This is not new incident in Bangladesh and there is no human right in Bangladesh. They are killing all innocent Indigenous people in CHT Bangladesh. What a shame in Bangladesh! No education, no jobs, and only growing and fucking, killing…

  19. This has been happening in CHT, the usual helped and supported by the Bangladesh military to the Bengali settler in order to CHT Land grave, killing, burning, steeling, torching, sexing, fucking, and so on from many decades. This is not new incident in Bangladesh and there is no human right in Bangladesh. They are killing all innocent Indigenous people in CHT Bangladesh. What a shame in Bangladesh! No education, no jobs, and only growing and fucking, killing…

  20. মানুষ নামের এমন কতগুলো অমানুষ জানোয়ার আছে, ভুয়া নিউস দিয়ে মানুষকে উসকে দিতে ভাল লাগে। যেমন– Shah Nawaz Rocky. জানোয়ারের বাচ্চা জানোয়া। তোমাদের কারনে এমন দুর্ঘটনা ঘটে।

  21. ভুয়া নিউজ হলে থানায় গিয়ে রিপোর্ট দেন গালাগালী করেন কেন চাকমা দাদারা।

  22. Sob kicho poriye diye chai Kore diye keno abar 144 dara jari Kore diyecha prosason

  23. শান্তি চাই, নিরাপদ জীবনের গ্যারান্টি চাই ।

  24. যাকে মেরে ফেলা হয়েছে তার জন্য যেমন খারাপ লাগছে ঠিক তেমনি যাদের ঘর পুরে দেয়া হয়েছে তাদের জন্য খারাপ লাগছে, কিন্তু এখানে কিছু শিক্ষিত মুর্খ চাকমা আছে যারা গালাগালি করে, আরে গালাগালি করলে কি আর তাদের ঘরবাড়ি ঠিক হয়ে যাবে??? পারলে আন্দোলন, মানব বন্ধন, প্রতিবাদ করেন এতে লাভ হবে। গালাগালি করলে কোন লাভ নাই এতে বংশ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: