নীড় পাতা » ব্রেকিং » লংগদুতে বারেক সরকারের মিশ্র খামার

লংগদুতে বারেক সরকারের মিশ্র খামার

রাঙামাটির লংগদু উপজেলার হাজাছড়া গ্রামের উঁচু নিচু পাহাড় ঘেরা ১০ একর জায়গা জুড়ে গড়ে উঠেছে আশা মিশ্র খামার। পাহাড়ের একদিকে কলা, আমলকি আর থাই পেঁয়ারার বাগান। অন্যদিকে দেশী-বিদেশী গরুর সমন্বয়ে ডেইরি খামার। দুই পাহাড়ের মাঝখানে বাঁধ দিয়ে তৈরিকরা হয়েছে মাছ ও হাঁসের চাষ। প্রায় পাঁচ একর জায়গা জুড়ে মাছের খামারে সাড়ে চার লাখ রুই কাতালসহ কার্প জাতীয় নানা মাছের চাষ করা হয়েছে। এক বছরে মাছের আকার বেশ ভালো হয়েছে। বিশাল এই মিশ্র খামারবাড়ি গড়ে তুলেছেন লংগদু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার। খামারটি ঘিরে দিনবদলের স্বপ্ন দেখছেন চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার। পাশাপাশি স্থানীয় তরুন উদ্যোক্তাদের সাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখাচ্ছে আশা মিশ্র খামার।

সম্প্রতি খামারে গিয়ে জানা যায়, ডেইরি খামারে দুগ্ধজাত ১৭টি দেশী-বিদেশী গাভীর ১১টিতে প্রতিদিন ১৫০ লিটার দুধ দেয়। শীঘ্রই আরও কয়েকটি গাভী দুধ দেয়া শুরু করবে। এসব দুধ ৬০ টাকা লিটার মূল্যে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করা হয়। গরুর খাদ্যের জন্য খামারের পাশেই চাষ করা হয়েছে নেপিয়ার ঘাসের। প্রায় প্রতিটি কলাগাছে কলা হয়েছে। আমলকি গাছগুলো বেশ রিষ্টপুষ্ট হয়ে বড় হচ্ছে। আর থাই পেয়ারার বাগানজুড়ে থোকায় থোকায় পেয়ারা ঝুলছে। স্থায়ী ৭ জন কর্মচারী মিলে খামারটি দেখাশোনা করেন। কেউ কলা বাগানের যতœ নিচ্ছেন। আবার কেউ পেয়ারা বাগানে পানি দেয়ায় ব্যস্ত। একদিকে ২/৩ জন মিলে গরুর খাদ্য তৈরির জন্য ঘাস কাটছেন। মাছের খামারেও খাবার দিতে হয় সকাল বিকাল। সব মিলিয়ে খামার বাড়ির প্রত্যেকেই ব্যস্ত সময় পার করেন এখানে। খামারটি পরিদর্শন ও নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে সহযোগীতা করছে স্থানীয় কৃষি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ বিভাগ।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম বলেন, কৃষি বাণিজ্যিকীকরণে আশা মিশ্র খামার হতে পারে অনন্য দৃষ্টান্ত। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর লংগদু উপজেলার পক্ষ থেকে উদ্বুদ্ধকরণ ও কারিগরি দিকনির্দেশনার মাধ্যমে এ বাগান সৃজনে সহযোগিতা করা হচ্ছে। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা নব আলো চাকমা বলেন, আশা মিশ্র খামারের মাছের প্রজেক্ট উপজেলার অন্যতম একটি প্রজেক্ট। আশা করছি, এখানে মাছের উৎপাদন বেশ ভালো হবে। আমরা চেষ্টা করছি পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করতে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা শুভাশিষ কর্মকার বলেন, আশা মিশ্র খামারের ডেইরি প্রজেক্টটি উপজেলার সবচেয়ে বড় একটি প্রজেক্ট। অত্র এলাকার ডেইরি খাতের উন্নয়নে খামারটি মাইলফলক হয়ে থাকবে। উপজেলা প্রাণি সম্পদ দপ্তর খামারটির গরুর ভ্যাক্সিনেশন, চিকিৎসা ও অন্যান্য পরামর্শসহ সার্বিক উন্নয়নে শুরু থেকেই সর্বাত্মক সহযোগিতা করে আসছে। তিনি বলেন, অত্র উপজেলায় গরুর দুধ উৎপাদন প্রয়োজনের তুলনায় এখনো অনেক কম। তাই এখানে ডেইরি শিল্পের প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে। পাহাড়ি এ উপজেলায় প্রচুর অনাবাদি ও পতিত জমি রয়েছে। যেখানে গরু পালনের জন্য উন্নতজাতের ঘাস চাষ করা যাবে। এখানে খামার করে সহজেই লাভবান হওয়া সম্ভব।

আশা মিশ্র খামারের উদ্যোক্তা ও লংগদু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার বলেন, অনেক স্বপ্ন নিয়ে প্রায় অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে এই খামার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। খামার থেকে আয় শুরু হয়েছে। তবে আরও একবছর পর পুরোপুরি আয় শুরু হবে। এখন দুধ বিক্রির টাকায় খামারের খরচ মেটানো হচ্ছে। সবকিছু ভালোভাবে চললে এ খামার থেকে ভালো আয় করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি স্থানীয় বেশ কিছু মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে। আমার দেখাদেখি এই উপজেলায় অনেকেই এখন খামার করা শুরু করেছে। আশা করছি স্থানীয় তরুণ উদ্যোক্তরা এগিয়ে আসলে দিন বদলে যাবে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লংগদুতে দুর্যোগ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা

রাঙামাটির লংগদুতে উপজেলা পর্যায়ে ‘দুর্যোগবিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলী (এসওডি)-২০১৯’ অবহিতকরণ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার লংগদু …

Leave a Reply