নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » রোদের পোস্টার

রোদের পোস্টার

[পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসী জীবনধারা ও সংস্কৃতির দিকে আমার আগ্রহের নজর সেই কিশোরকাল থেকেই। আমি নিজেও এ অঞ্চলটির লাগোয়া চট্টগ্রামের সন্তান। বিভিন্ন সময়ে গদ্যে—পদ্যে এ অঞ্চলের মানুষগুলোর আবেগ—অনুভূতি ও চেতনা জগতের ঝড়—ঝঞ্ঝা অনুবাদের চেষ্টা করেছি। অতি সম্প্রতি প্রকাশের জন্যে প্রস্তু হওয়া আদিবাসী জীবন নিয়ে আমার নতুন কবিতার বই ‘রোদের পোস্টার’ থেকে চারটি কবিতা প্রীতিভাজন সাংবাদিক প্রদীপ চৌধুরীর অনুরোধে এখানে মুদ্রণের জন্যে পাঠালাম। এ কবিতাগুলোতে সাম্প্রতিক সময়ের পার্বত্য অঞ্চলের ভ্রাতৃঘাতী বিরোধ, প্রাথমিক পর্যায়ের স্কুলগুলোতে মাতৃভাষায় শিক্ষাদান, ঐতিহ্য সংরক্ষণ, জুমিয়া জীবনের দৈনন্দিন আনন্দ—বেদনা. আশা—হতাশার কথা ব্যক্ত হয়েছে কবিতার কুলীন স্বভাব বজায় রেখে।
সচেতন পাঠকের বোধে কবিতাগুলো যদি সামান্য টংকারও তোলে, আমার আনন্দ হবে বর্ষায় দু’কূলপ্লাবী পাহাড়ি নদীর মতো।]

১.

ভ্রাতৃঘাতী

পাহাড়ের শীর্ষে চাঁদ এলো
যেন—বা প্রোজ্জ্বল মাকড়সা অষ্টপদী
আঁধারের জালে

দূরে প্রাচীন বৃক্ষরে নিচে
পাকানো দড়ির মতো শেকড়ের খসখসে গায়ে
হঠাৎ দেখতে পাই : স্বতোপ্রণোদিত
যোদ্ধাগণের বিনম্র লাশ
সারি—সারি

পার্শ্ববর্তী ঝোপঝাড়ে প্রাগৈতিহাসিক অন্ধকারের আড়ঙ্গ

তখনও প্রবহমান উষ্ণ রক্তে
কালো শেয়ালের পাল
বুভুক্ষার তিয়াস মেটাতে
জিভ বা’র করতে চাইলে

আমার চিৎকার এসে পৌঁছে :
ওই লাশ স্বজনের— হটো হায়েনার দল …

২.

বসতভূমে

ওই চবুতরে
খানিকটা বৃক্ষশোভিত বেড়ার ঘরটার নিচে
ঘাসের নতুন ডগাগুলো কাঁপে
প্রতিদিনের হাওয়ায়

চরকায় মায়ের সুতো বোনা
দূর থেকে জল আনা বোনটার ঘামভেজা মুখ
বাতাসের বুকে ভাসা ফুলের সৌরভ—
পাঁজরে এসব গেঁথে আছে

আসে সপ্তাহ শেষের হাটবার : লেনদেন—
কত কথা মহাজনের গদিতে
দোকানে— দোকানে দোলে নতুন পণ্যের ডাক
চোখ জুড়ানো আনন্দে ভাসে
হাটুরে নারী ও পুরুষের দল

বসতভূমের নানা বরণের সবজি ও শাক
মাটির উদর খুঁড়ে আনা
কন্দের বহর নিয়ে কাঁধে
আমিও হাজির হাঁপাতে—হাঁপাতে
জাঁহাপনা বাজার চৌধুরী …

হায় আমার বসার জায়গায় দেখি
আগন্তুক সওদাগর হাসিমাখা

ওদের কনুইয়ের গুঁতো
খেতে—খেতে
আমি কোন হাটে যাবো …

৩.

মাতৃভাষা

শিশু আমি
মা’র পাছে—পাছে চলি, বলি
যেখানে মা থামে আমিও তো থামি

তার রাগ ক্ষোভ দুঃখ পাওয়া না—পাওয়ার
আনন্দ—বেদনা
আমাতে বসত গেঁড়েছে অজান্তে
ঝাপসা—ঝাপসা বাংলা ভাষা লাগিয়াছে কানে
যখন প্রত্যহ যাই স্কুলে
আর পাশের দোকানে
এটা—ওটা কিনে আনতে

পাড়ার লোকেরা বলে: ‘ওটা তো তোমার
ভাষা নয়!’

‘কিন্তু ওরা তো আমার খুব প্রতিবেশি হয়’

‘ওটা রাষ্ট্রভাষা
অনেক—অনেক মানুষের আশা

নিজ ভাষা ভালো বুঝে তবে
বিশ্বে তোমাকে চলতে হবে …’

৪.

সংযোগ সড়কহীন সেতু

কবিতার সাবারাঙ গন্ধে বেশ কিছুদিন
হৃদয় রাঙিয়ে
চলে গেছিস কম্পিউটার বিশেষজ্ঞের
পাগড়ি পরবি বলে দূরে, খীসা

রাঙামাটির রিঝিও
কুহকী কথার উড়াল বাতাসে
বেঁধে রেখে পিছমোড়া
এখন দূরের বনের সুবাস

সংযোগ সড়ক নেই : এমন নিঃসঙ্গ সেতু
আমি এক
পাড়া গাঁ’র জনসমাজে অবহেলিত

সুদৃষ্টির প্রত্যাশায় বৃষ্টির বুলেটে কাঁদি
পুড়ি রৌদ্রের চাবুকে
ধিকি—ধিকি বেদনায় …

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লংগদুতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে বিএনপি’র প্রচারপত্র বিতরণ

রাঙামাটির লংগদু উপজেলায় ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়া প্রতিরোধে জনসচেতনতামূক প্রচারণা ও বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার …

Leave a Reply