নীড় পাতা » ব্রেকিং » রাজস্থলীতে অপহরণের পর সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানকে হত্যা

রাজস্থলীতে অপহরণের পর সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানকে হত্যা

দীপময় তালুকদার

রাঙামাটির রাজস্থলী উপজেলার ঘিলাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান দীপাময় তালুকদারের গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। বুধবার সকাল আটটায় ইউনিয়নের জিরোমাইল হলুদিয়াপাড়া থেকে তার গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

জানা গেছে, সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান দীপাময় তালুকদার ৩৩৩নং ঘিলাছড়ি মৌজার হেডম্যান, উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও জেলা বিএনপির কার্যকরী কমিটির সদস্য।

পরিবারের সদস্যরা জানান, দীপাময় তালুকদারকে মঙ্গলবার দুপুরে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী রাজস্থলী ঝুলন্ত ব্রিজের পাশে বগা পাড়া থেকে তাকে জোরপূর্বক অপহরণ করে নিয়ে যায়। বুধবার সকালে হলুদিয়া পাড়ায় তার লাশ পাওয়া যায়। তবে কী কারণ তাকে অপহরণ করা হয়েছে এবং কেন-ই বা হত্যা করা হলো এসব বিষয়ে কিছুই জানাতে পারেননি পরিবারের লোকজন।

ঘিলাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান সুশান্ত প্রসাদ তঞ্চঙ্গ্যার কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বুধবার সকালে দীপাময় তালুকদারের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জেনেছি। এ ব্যাপারে আমি তেমন কিছু জানি না।

রাজস্থলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মফজল আহম্মেদ জানান, বুধবার সকালে ঘিলাছড়ি ইউনিয়নে জিরোমাইল নামক এলাকায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দীপাময় তালুকদারকে পাওয়া যায়। পরে আমরা লাশটি উদ্ধার করি। গত মঙ্গলবার দুপুরে পরিবারের লোকজন মৌখিকভাবে তাকে অপহরণের অভিযোগ করেন। আমরাও বিভিন্ন এলাকায় খোঁজখবর নিচ্ছিলাম। কারা হত্যা করেছে এখনো বিষয়টি নিশ্চিত নয়। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে জেলা বিএনপির সদস্য ও উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি দীপাময় তালুকদারকে হত্যার প্রতিবাদে বুধবার সকালে রাঙামাটি শহরে প্রতিবাদ মিছিল ও বিক্ষোভ করেছে জেলা বিএনপি। বিক্ষোভ মিছিলটি জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে কোর্ট বিল্ডিং এলাকায় গিয়ে শেষ। এসময় নেতৃবৃন্দ সন্ত্রাসীদের গুলিতে বিএনপি নেতা নিহতের বিচার দাবি করেন।

জেলা বিএনপির সভাপতি মো. শাহ আলম বলেন, গত মঙ্গলবার বিকেলেই তাকে অপহরণ করা হয়েছিলো। পাহাড়ে বর্তমানে আঞ্চলিক সংগঠনের আধিপত্য বিস্তার রয়েছে। এছাড়া বান্দরবানেও মগ পার্টি নামে আরেকটি গ্রুপ রয়েছে। আমরা দীপাময় তালুকদারকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় তেমন কোনো সূত্র জানতে পারিনি।

অন্যদিকে সাবেক এই জনপ্রতিনিধিকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে পাহাড়ে পূর্ণসায়ত্বশাসনের দাবিতে আন্দোলনরত প্রসিত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ)।

বুধবার দুপুরে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে সংগঠনের রাঙামাটি জেলা ইউনিটের সংগঠক সচল চাকমা বলেন, বান্দরবানসহ সারা পার্বত্য চট্টগ্রামে একের পর এক হত্যাকাণ্ডের পরও অপরাধীদের বিচার ও শাস্তি না হওয়ায় সন্ত্রাসীরা এসব অপকর্ম চালিয়ে যেতে সাহস পাচ্ছে।

বিবৃতিতে সচল চাকমা অবিলম্বে দীপাময় তালুকদারের খুনিদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনারজন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

শক্তিমান চাকমা হত্যা মামলার আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত

রাঙামাটিতে নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শক্তিমান চাকমা হত্যা মামলার আসামি অর্পন …

Leave a Reply