নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » রাঙামাটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার কাজ সম্পন্নের তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

রাঙামাটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার কাজ সম্পন্নের তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

shekh-Hasina-coverপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবিপ্রবি) স্থাপনের প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্নের তাগিদ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী রোববার বাংলাদেশ সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে পাহাড়ী  এই জেলাটিতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা সম্প্রসারণে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের এ নির্দেশনা দেন।
রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজ বিলম্ব হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অন্যান্য ১১টি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো সম্পূর্ণ আবাসিকভাবে এটি স্থাপনের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছিল।
ভুটান সরকারকে এই বিশ্ববিদ্যায়টির নকশা প্রণয়নের জন্য একজন আর্কিটেক্ট দিয়ে সহায়তা করার অনুরোধ জানানো হয়েছে এ কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, এই প্রতিষ্ঠানটির স্থাপত্য নকশা সংশ্লিষ্ট এলাকায় পারিমান্ডলিক সৌন্দর্যের সাথে সঙ্গতি রেখে দৃষ্টিনন্দন করে প্রণয়ন করা প্রয়োজন এবং এটি দেশের একটি আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, আমরা প্রতিবছর অনেক স্কুল ও কলেজ এমপিওভুক্তির আবেদন পেয়ে থাকি। কিন্তু আমার মনে হয় প্রতি জেলায় কতটি স্কুল ও কলেজ এবং এসব প্রতিষ্ঠানে কতজন শিক্ষক দেয়া হবে এ সম্পর্কিত একটি নীতিমালা থাকা প্রয়োজন।
শেখ হাসিনা চলতি বছরের জানুয়ারিতে তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রত্যেক মন্ত্রণালয় পরিদর্শনের অংশ হিসেবে এদিন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আসেন।
শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ প্রধানমন্ত্রীকে মন্ত্রণালয়ে স্বাগত জানান। এ সময় শিক্ষা সচিব মুহাম্মদ সাদিক ও মন্ত্রণালয়টির বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
তিনি বলেন, তাঁর সরকার শিক্ষাখাতে ব্যয়কে বিনিয়োগ হিসেবে বিবেচনা করে। এ জন্য স্কুল ও কলেজ প্রতিষ্ঠায় প্রয়োজনে সব ধরনের সহায়তা দেয়া হবে। তবে শিক্ষার উন্নয়নে এই অর্থ অবশ্যই একটি নিয়ম ও কাঠামোর মধ্যে ব্যয় হওযা প্রয়োজন।
শেখ হাসিনা পাহাড়ী জেলাগুলোর যাতায়াতে অসুবিধা এমন প্রত্যন্ত এলাকায় শিক্ষার আলো পৌঁছে দিতে আবাসিক স্কুল প্রতিষ্ঠার এবং চরাঞ্চলের ছেলে-মেয়েদের জন্য শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টির উপর গুরুত্বারোপ করেন।

তিনি পরিকল্পিতভাবে প্রত্যেক জেলায় স্কুল ও কলেজ প্রতিষ্ঠায় প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য মাসিক বেতন প্রদান (এমপিও) নীতিমালা প্রণয়নের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

সূত্র : বাসস

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কাপ্তাইয়ে করোনা সংক্রমণ কমছে

প্রশাসনের কঠোর নজরদারি এবং থানা পুলিশের তৎপরতায় রাঙামাটির কাপ্তাইয়ে করোনা সংক্রমন হার কমছে। কাপ্তাই উপজেলা …

৩ comments

  1. আমাদের রাংগামাটিতে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের দরকার নেই । আমাদের এখানে আগে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা নিশ্চিত করুন । আমরা আগে প্রাথমিক শিক্ষা চাই । ভালো সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় চাই কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় নয় । প্রধানমন্ত্রীর এ পদক্ষেপ আমরা পার্বত্যবাসীরা তীব্র নিন্দা জানায় ॥

  2. প্রধানমন্ত্রীর ব্যাক্তিগত ইচ্ছাকে অত্যন্ত সাগ্রহে গ্রহণ করছে পার্বত্যবাসী। এর ফলে পার্বত্য চট্টগ্রামের স্থানীয় জনসাধারণের উচ্চ শিক্ষায় অংশগ্রহণ ব্যাপক বৃদ্ধি পাবে। আমরা আশা করবো, প্রধানমন্ত্রী যেমনটা বলছিলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়টিকে একটি বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হোক। স্থানীয় জনসাধারণের জন্য জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সর্বোচ্চ পরিমাণ কোটা নির্ধারণ রাখা হোক। এই বিষয়টি নিশ্চিতপূর্বক, বিশ্ববিদ্যালয়ে আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষার ব্যাবস্থা নিশ্চিতকল্পে দক্ষ শিক্ষক ও অন্যান্য প্রাসঙ্গিক অবকাঠামো ও সুবিধাদির ব্যাবস্থা করা হোক। ধন্যবাদ আবারো।

Leave a Reply

%d bloggers like this: