নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » রাঙামাটি বিএনপি অফিসে তুলকালাম, শ্রমিক দলের কর্মসূচী পন্ড

রাঙামাটি বিএনপি অফিসে তুলকালাম, শ্রমিক দলের কর্মসূচী পন্ড

bnP-03
নিজ অনুসারি ও পুলিশ সহযোগিতায় কার্যালয় ছাড়ছেন দীপেন দেওয়ান

bnp-01রাঙামাটিতে মে দিবসে শ্রমিকদলের কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে তুলকালাম কান্ড ঘটে গেছে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে। পন্ড হয়ে গেছে শ্রমিক দলের কর্মসূচী। দলীয় কর্মীদের চাপের মুখে পুলিশ প্রহরায় কার্যালয় ত্যাগ করতে বাধ্য হন দলীয় সভাপতি এডভোকেট দীপেন দেওয়ান। এসময় ভাংচুর করা হয় আলোচনা সভার চেয়ার এবং মাইক। চেয়ার ছুড়ে মারা হয় দীপেন দেওয়ান ও তার সমর্থকদের দিকে। পরে পুলিশী হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে। bnp-02
প্রত্যক্ষদর্শী বিএনপির নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন,বিকেলে জেলা শ্রমিক দলের মে দিবসের কর্মসূচী শুরু হলেও তাতে অনুপস্থিত ছিলেন বেশিরভাগ নেতাকর্মী। প্রধান অতিথি হিসেবে দীপেন দেওয়ান উপস্থিত থাকলেও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক,সাংগঠনিক সম্পাদক,পৌর বিএনপির সভাপতি,থানা বিএনপির সভাপতিসহ কেউই উপস্থিত ছিলেন না কর্মসূচীতে। এমনকি গরহাজির ছিলেন জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি,সাধারন সম্পাদকসহ গুরুত্বপূর্ণ প্রায় সকল নেতাই। তাদের না জানিয়েই কর্মসূচী শুরু হয় জনাকয়েক নেতাকর্মীর উপস্থিতিতে। কমূসূচী শুরুর এক পর্যায়ে একদল ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মী দীপেন দেওয়ানের বিরুদ্ধে শ্লোগান দিতে দিতে দলীয় কার্যালয়ে ঢুকে পড়ে এবং চেয়ার টেবিল ব্যাপক ভাংচুর করে। তারা আলোচনা সভার জন্য আনা মাইকটি ভেঙ্গে তছনছ করে দেয়। এসময় পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে এবং ধাওয়া দিয়ে বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীদের সরিয়ে দেয়। কিন্তু ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা দীপেন দেওয়ানকে দলীয় কার্যালয় থেকে চলে যাওয়ার দাবি জানাতে থাকেন। পরে পুলিশ দীপেন দেওয়ান ও তার অনুসারি গুটিকয়েক কর্মীকে দলীয় কার্যালয় ছেড়ে যাওয়ার অনুরোধ জানায়। এক পর্যায়ে দ্রুত অনুসারি ৩ জন কর্মীকে নিয়ে অটোরিক্সা করে কার্যালয় ত্যাগ করেন। তার দলীয় কার্যালয় ত্যাগের সময় বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা করতালি দিয়ে তার বিরুদ্ধে শ্লোগান দিতে থাকে।

দীপেন দেওয়ান অনুসারি হিসেবে পরিচিত এবং সর্বশেষ উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহিদুল ইসলাম জাহিদ বলেন, সর্বশেস উপজেলা নির্বাচন নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা ও ক্ষোভ ছিলো এবং দলীয় গ্রুপিংও আছে। তার উপর শ্রমিক দলের বেশিরভাগ নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে এবং বিএনপির সিনিয়র নেতৃবৃন্দের অনুপস্থিতিতে কর্মসূচী শুরু করায় এই ঘটনা ঘটেছে।

বিক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীদের মধ্যে যুবদলের আবুল কালাম চুঙ্গু ও মোহাম্মদ আলী স্বপন বলেন, যে ব্যক্তি নির্বাচনে পাহাড়ী ভোট আনতে পারেনা,কিন্তু পাহাড়ীদের পোস্ট দেয়ার জন্য ‘দালালি’ করতে পারে, তার বিএনপির সভাপতি থাকার কোন নৈতিক অধিকার নেই। তাই আমরা তাকে বিএনপি কার্যালয়ে অবাঞ্চিত করেছি,যে যখনই আসবে তখনই সমস্যা হবে।

bnp-04
কার্যালয়ে অবরুদ্ধ দীপেন দেওয়ান

রাঙামাটি জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু সাদাত সায়েম ও যুবদলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম শাকিল জানিয়েছেন, আমরা সেখানে যাইনি,তবে শুনেছি ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা দীপেন দেওয়ানকে দলীয় কার্যালয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে এবং পরে সে পুলিশ প্রহরায় দলীয় কার্যালয় ত্যাগ করতে বাধ্য হয়। তারা দুইজনই অভিযোগ করেন, সর্বশেষ উপজেলা নির্বাচনে দীপেন দেওয়ান বিতর্কিত ভূমিকা পালন করেছেন বলেই নেতাকর্মীরা ক্ষুদ্ধ।

মারামারির খবর শুনে দলীয় কার্যালয়ে আসা সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি এডভোকেট মামুনর রশীদও বলেন, সবাইকে না জানিয়ে কর্মসূচী পালন করা ঠিক নয়,  আমি নিজেও জানিনা আজ কর্মসূচী হচ্ছে।

রাঙামাটি জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি মমতাজ মিয়া বলেন, আমি ঢাকায়,রাঙামাটিতে গন্ডগোল হয়েছে বলে শুনেছি, কিন্তু কি হয়েছে সেই সম্পর্কে বিস্তারিত জানিনা।

bnp-05
এই টেক্সীতে করেই দ্রুত বাসায় চলে যান দীপেন দেওয়ান

কোতয়ালি থানার দ্বিতীয় কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম বলেন,বিএনপি অফিসে গোলযোগের খবর পেয়ে আমরা এসে দেখি চেয়ার টেবিল মাইক ভাংচুর করা হয়েছে,ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা ভাংচুর করছে দেখে আমরা তাদের ধাওয়া দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনি।

BNP-office-cover
মে দিবসের কর্মসূচীর মাইক ভাংচুর করা হয়

প্রসঙ্গত, গত ৩১ মার্চ উপজেলা নির্বাচনের পঞ্চম দফায় রাঙামাটি সদর উপজেলা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পরাজয় এবং প্রার্থী পাহাড়ী ভোট না পাওয়ায় ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা ১ এপ্রিল দলীয় কার্যালয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে এবং দীপেন দেওয়ানের ছবিতে আগুন ধরিয়ে দিয়ে তাকে দলীয় কার্যালয়ে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন। এর ফলে গত একমাস দলীয় কার্যালয়ে আসেননি দীপেন দেওয়ান। একমাস পর ১ মে শ্রমিক দলের সমাবেশের নামে দলীয় কার্যালয়ে আসেন দীপেন দেওয়ান এবং প্রতিরোধের মুখে পড়েন। একমাসের মধ্যে দুইটি ঘটনায় রাঙামাটি বিএনপিতে দীপেন দেওয়ান আরো কোনঠাসা হয়ে পড়েছেন। এর মধ্যে গত ২৮ এপ্রিল সারাদেশে বিএনপির দলীয় কর্মসূচী পালিত হলেও রাঙামাটিতে দলটির জেলা পর্যায়ের কোন কর্মসূচী পালিত হয়নি,শহরের ৯ নং ওয়ার্ড বিএনপির একটি কর্মসূচীকে জেলা বিএনপির কর্মসূচী হিসেবে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে বিপাকে পরে জেলা বিএনপি দীপেন দেওয়ান অনুসারিরা।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কারাতে ফেডারেশনের ব্ল্যাক বেল্ট প্রাপ্তদের সংবর্ধনা

বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশন হতে ২০২১ সালে ব্ল্যাক বেল্ট বিজয়ী রাঙামাটির কারাতে খেলোয়াড়দের সংবধর্না দিয়েছে রাঙামাটি …

Leave a Reply