নীড় পাতা » পাহাড়ের রাজনীতি » রাঙামাটির রাজনীতির মাঠ বিএনপির দখলে

রাঙামাটির রাজনীতির মাঠ বিএনপির দখলে

2013-10-19-0322মহাজোট সরকারের শেষ সময়ে এসে রাঙামাটির রাজনীতির মাঠ এখন প্রধান বিরোধীদল বিএনপির দখলে । গত কয়েকদিন ধরে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি পালন ছাড়াও স্থানীয় বিভিন্ন ইস্যুতে আন্দোলন করতে দেখা গেছে দলটিকে। কাঠালতলীর দলীয় কার্যালয় এখন প্রতিদিনই সরব নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে। নেতাকর্মীদের চাঙাভাব দেখা যাচ্ছে দলীয় কর্মসূচিতে। তবে এসব কর্মসূচিতে যুবদল ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের উপস্থিতিই সবচে বেশ লক্ষণীয়।

রাঙামাটি জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু সাদাৎ মোঃ সায়েম এবং সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার জানিয়েছেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে রাঙামাটিতে ছাত্রদল তত্ত্বাবধায়ক ইস্যুতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছে। এতে সাংগঠনিকভাবে ছাত্রদল বেশ শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে এই জেলায়। এছাড়া কেন্দ্রঘোষিত যেকোনো কর্মসূচি ছাত্রদল তাৎক্ষণিকভাবে পালন করছে।

রাঙামাটি জেলা যুবদলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম শাকিল এবং সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইলিয়াস জানান, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে না নিলে ২৫ অক্টোবর থেকে সরকার পতনের একদফা আন্দোলন ঘোষণা দিয়েছিলেন বেগম জিয়া। তাঁর নির্দেশনা অনুসারে কেন্দ্র ঘোষিত যেকোনো কমর্সূচিতে রাঙামাটি যুবদল বেশ শক্তিশালী ও সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে। যুবদলের নেতাকর্মীরা দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন প্রতিহত করতে রাজপথে আছে।

DSC04058সপ্তাহজুড়ে কেন্দ্রঘোষিত সবগুলো কর্মসূচিতে রাঙামাটিতে বিএনপির অবস্থান ছিলো বেশ শক্তিশালী। নেতাকর্মীদের উপস্থিতি বর্তমানে গত কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। মহাজোট সরকারের শেষ সময়ে এসে সরকারকে দুর্বল ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে নিতে বিএনপির এই শক্তিশালী অবস্থান বলে মনে করছে রাঙামাটির রাজনীতি সচেতনমহল। তবে বিএনপিতে অন্তর্কোন্দলের কারণে কর্মসূচিগুলোতে যুবদল ও ছাত্রদল নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণই বেশি দেখা যাচ্ছে।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম জানান, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি বাস্তবায়নে রাঙামাটিতে বিএনপির অবস্থান বেশ দৃঢ় ও মজবুত। নেতাকর্মীদের মনোবল এখন বেশ চাঙা। এতে যেকোনো কর্মসূচিতে নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলনে যোগ দিচ্ছেন। রাঙামাটির রাজপথ বিএনপির দখলে রয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মুছা মাতব্বর বলেন, অন্যান্য জেলার মতো আমরা রাঙামাটিতে রাজনীতি করি না। আমরা শান্তির জন্য রাজনীতি করি। কিন্তু কেউ আন্দোলনের নামে অশান্তি বা বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে চাইলে আমরা ঘরে বসে থাকবো না। বিএনপি তাদের স্বাভাবিক কার্যক্রম পালন করছে। এ নিয়ে আমরা চিন্তিত নই। ২৫ অক্টোবর রাঙামাটিতে আওয়ামী লীগের কোনো কর্মসূচি নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, তবে নেতাকর্মীদের স্ব স্ব ওয়ার্ডে অবস্থান করার কথা বলা হয়েছে। পরিস্থিতি বুঝে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

পিসিপি’র সংবাদ সম্মেলনে কর্মসূচি ঘোষণা

দেশে অনগ্রসর জাতিগোষ্ঠীর জন্য প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর সরকারি চাকুরীতে সংরক্ষিত ৫% কোটা পুনর্বহালের দাবিতে …

Leave a Reply