নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » রাঙামাটিতে জশনে জুলুছ

রাঙামাটিতে জশনে জুলুছ

Rangamati-Pic-10-1-14--2১২ই রবিউল আউয়াল পবিত্র ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষ্যে পার্বত্য শহর রাঙামাটিতে জশনে জুলুছ বা বর্ণাঢ্য র‌্যালী’র আয়োজন করা হয়েছে। শুক্রবার জুমা’র নামাজের পর শহরের রিজার্ভ বাজার জামে মসজিদ হতে এ জুলুছ বের করা হয়। রাঙামাটির সর্বস্থরের সুন্নি জনতার উদ্যোগে আয়োজিত জশনে জুলুছটি শহরের প্রেস ক্লাব, দোয়েল চত্বর, পৌরসভা, কাঠালতলীসহ শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে বনরূপা জামে মসজিদে গিয়ে শেষ হয়। জশনে জুলুছে নেতৃত্ব দেন পার্বত্যাঞ্চলের সর্বপ্রথম দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রাঙামাটি সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব হাফেজ ক্বারি অধ্যক্ষ আল্লামা মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম নঈমী। বনরূপা জামে মসজিদে সমবেত হয় অসংখ্য মুসল্লি। এসময় মিলাদ কিয়াম পরিচালনা করেন শান্তিনগর জামে মসজিদের খতিব শফিউল আলম আল-ক্বাদেরী। সবশেষে দেশ-জাতি ও মুসলিম বিশ্বের শান্তি কামনায় বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন পার্বত্যাঞ্চলের প্রবীন ইসলামী ব্যক্তিত্ব অধ্যক্ষ আলহাজ্ব আল্লামা মুহাম্মদ নুরুল আলম হেজাজী।

জুলুছপূর্ব সমাবেশে অধ্যক্ষ আল্লামা হাফেজ ক্বারী নজরুল ইসলাম নঈমী বলেন,জশনে জুলুছ উদযাপন হচ্ছে ঈমানদার মুসলমানের নবী(দঃ)প্রেমের বহিঃপ্রকাশ। যুগে যুগে সাহাবায়ে কেরাম,তাবেঈন, তবে তাবেঈন, অলি-আউলিয়াগণ এ জশনে জুলুছে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী(দঃ) উদযাপন করেছেন এবং মুসলিম উম্মাহকে শিক্ষা দিয়ে গেছেন। এটি ইসলামী সংস্কৃতির একটি অপরিহার্য অংগ। তিনি বলেন, যারা এর বিরোধীতা করেন তারা মুসলমান নামধারী মোনাফেক। তাদের ব্যাপারে সজাগ থাকার জন্য সবাইকে অনুরোধ জানান।

জুলুছের অগ্রভাগে ছিল বিশাল মোটর সাইকেলের বহর। এছাড়া পবিত্র কলেমা খচিত পতাকা হাতে শত শত মুসুল্লি এ জুলুছে অংশ নেয়। রাঙামাটি আ’লা হযরত ইসলামী সাংস্কৃতিক ফোরামের শায়েরদের মুনমুগ্ধকর নাতে রাসুল (দঃ) পরিবেশন ছিল জুলুছের অন্যতম আকর্ষন। রাঙামাটির সকল সুন্নি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সহ সাধারন মুসল্লীরা জশনে জুলুছে অংশ নেয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্য বিভাগকে সুরক্ষা সামগ্রী দিলো রাঙামাটি রেড ক্রিসেন্ট

নভেল করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে রাঙামাটির ১২টি সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রসমূহে স্বাস্থ্য …

Leave a Reply