নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » রাঙামাটিতে জগদ্ধাত্রী পূজা ও মহানামযজ্ঞ শুরু

রাঙামাটিতে জগদ্ধাত্রী পূজা ও মহানামযজ্ঞ শুরু

2121প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও রাঙামাটির বনরূপাস্থ শ্রী শ্রী জগদ্ধাত্রী মাতৃমন্দির প্রাঙ্গনে অনুষ্টিত হচ্ছে জগদ্ধাত্রী পূজা এবং পূজা উপলক্ষ্যে ষোড়শপ্রহরব্যাপী মহানামযজ্ঞ ও মহোৎসব। ১১ই নভেম্বর থেকে ১৪ই নভেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন মাঙ্গলিক অনুষ্টানের আয়োজন করা হয়েছে। ১১ই নভেম্বর সোমবার দেবীর প্রথম কল্পীয় পূজা এবং শ্রী শ্রী চন্ডীপাঠের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভারম্ভ হয়। পূজা শেষে অষ্টোত্তর শত সংখ্যক দীপ দান, ভোগ নিবেদন এবং পুষ্পাঞ্জলী প্রদান করা হবে। রাতে অনুষ্টিত হয় তারকব্রম্ম মহানামযজ্ঞের শুভাধিবাস। ১২ এবং ১৩ নভেম্বর অনুষ্টিত হবে অহোরাত্র ষোড়শপ্রহরব্যাপী মহানামযজ্ঞ ও মহোৎসব। অনুষ্ঠানে আগত ভক্তবৃন্দের মাঝে প্রতিদিন মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হবে। ১৪ই নভেম্বর ঊষালগ্নে মহানামযজ্ঞের পূর্ণাহুতির মাধ্যমে অনুষ্ঠান সমাপ্ত হবে।
মহানামযজ্ঞে নামসুধা পরিবেশনের করবেন বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত মোট ৫টি কীর্ত্তনীয়া দল। দলগুলো হল, গোপালগঞ্জের বিশ্ববন্ধু সম্প্রদায়, কুমিল্লার বেদবাণী সংঘ, ভোলার জয় নারায়ণ সম্প্রদায়, খুলনার শ্রী দূর্গা সম্প্রদায় এবং চট্টগ্রামের শ্রী শ্রী জগন্নাথ সম্প্রদায়।
অনুষ্টনের সার্বিক পরিস্থিতি সর্ম্পকে জগদ্ধাত্রী পূজা ও মহোৎসব উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুজন মহাজন বলেন, জগদ্ধাত্রী মাতৃমন্দিরের এই অনুষ্টান রাঙামাটির একটি ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠান। দীর্ঘ ২৬বছর যাবৎ এই অনুষ্ঠান হয়ে আসছে। অনুষ্ঠান সুষ্টভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে তারা ইতিমধ্যে সমস্ত প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন প্রত্যেক বছরের ন্যায় এবছরও অনুষ্ঠান সুষ্ঠ ও জাকজমকপূর্ণ ভাবে অনুষ্টিত হবে।
এদিকে ১৮ দলীয় জোটের ডাকে সারাদেশে ৮৪ ঘন্টার টানা হরতাল চলছে । হরতালের কারণে বিপাকে পড়েছেন প্রতিবছর উৎসবে আসা মানুষেরা।
উৎসবে হরতালের প্রভাব সর্ম্পকে পূজা ও মহোৎসব উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন তারা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল,রাঙামাটি জেলা শাখার কাছে অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে হরতাল শিথিলের আহবান জানিয়েছেন তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হরতাল শিথিলের বিষয়ে দলের পক্ষ থেকে কোন আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দেয়া হয় নি।
মন্দিরে আগত এক ভক্ত বলেন, অনুষ্ঠানের কথা চিন্তা করে রাঙামাটিতে হরতাল শিথিল করা উচিত। তা না হলে দূর-দূরান্তের ভক্তরা উচ্ছে থাকা সত্বেও মন্দিরে আসতে পারবে না।
জগদ্ধাত্রী মন্দিরের এই অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে মন্দির এলাকায় বিরাট মেলা বসেছে। মেলায় মাটির তৈজসপত্র, বই, কসমেটিকসহ বিভিন্ন রকমের শতাধিক ষ্টল স্থান পেয়েছে।
জেলা বিএনপির একাধিক সিনিয়র নেতা পাহাড় টোয়েন্টিফোর ডট কম কে বলেছেন,যেহেতু জাতীয়ভাবে এই হরতালের ডাক দেয়া হয়েছে তাই হরতাল প্রত্যাহার বা শিথিল করার অধিকার তাদের নেই। কিন্তু পূজারী ও মেলায় আগতদের সুবিধার্থে বিকেল চারটা থেকে ভোর ছয়টা পর্যন্ত পিকেটিং থাকবেনা।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লংগদুতে ১০ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন

খাদ্য মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও রাঙামাটির সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার  রাঙামাটির লংগদু …

Leave a Reply