নীড় পাতা » করোনাভাইরাস আপডেট » রাঙামাটিতে কঠোর লকডাউনে সরব প্রশাসন

রাঙামাটিতে কঠোর লকডাউনে সরব প্রশাসন

রাঙামাটিতে কঠোরভাবে লকডাউন চলছে। বুধবার সকাল থেকে শহরের একমাত্র গণপরিবহন সিএনজিচালিত অটোরিকশা (সিএনজি) ও বিপণীবিতান গুলো বন্ধ ছিলো। জেলা শহরের তবলছড়ি, বনরূপা, রির্জাভবাজার ও কলেজগেইট ঘুরেও একই চিত্র দেখা দেছে। তবে কোথায়ও কোথায়ও কিছু মানুষের অযথা বাহিরে বসে আড্ডা দিতেও লক্ষ্য করা যায়।

এদিন রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুম্পা ঘোষের নেতৃত্বে একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত মাঠে কাজ করে। এসময় দোকানে মূল্য তালিকা না থাকা, পণ্যের বাড়তি দাম আদায় ও মাস্ক পরিধান না করায় ৮ জনকে ৭ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করা হয়। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুম্পা ঘোষ।

সকালে লকডাউন ও রমজান উপলক্ষে নিত্যপণ্যের বাজার মনিটরিং করেন রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। এসময় শহরের তবলছড়ি, বনরূপা, রির্জাভবাজার ও কলেজ গেইট কাঁচা বাজার ও মুদি দোকানগুলো পরিদর্শন করেন এবং একই সঙ্গে কোন পণ্য বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে কিনা সেটিও মনিটরিং করেন।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আল মামুন মিয়া, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তাপস রঞ্জন ঘোষ ও নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) বোরহান উদ্দিন মিঠু।

এ সময় জেলা প্রশাসক পণ্যের মধ্যে তেল, চিনি, পেঁয়াজ, ছোলা, খেজুরসহ নিত্য প্রয়োজনীয় মূল্য স্বাভাবিকে রাখার বিষয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলেন।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, প্রত্যেক বাজার ঘুরে দেখেছি, কিছু বাজারে পণ্যের দামে অসঙ্গতি হয়েছে সেটি মোবাইল কোর্ট দেখছে এবং কারণ খোজার চেষ্টা করবে। সব কিছু মিলে কঠোর ভাবে লকডাউন পালন হচ্ছে। বিনাপ্রয়োজনে কেউ যাতে ঘর থেকে বের না হয় সেটি সবার প্রতি অনুরোধ রাখছি। একটি সপ্তাহ কষ্ট করলে বাকিদিনগুলো ভালোভাবে সবাই মিলে এক সঙ্গে সময় কাটাতে পারবেন। আর একটি দিক হলো যারাই প্রয়োজনে বের হচ্ছে প্রায় মুখে মাস্ক ছিলো। প্রয়োজনে বের হওয়াতে কোন নিষেধ নেই। বের হলে অবশ্যই মাস্ক পরিধান ও অনুসরন করুন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বান্দরবানে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা

বান্দরবানের লামা উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাচিং প্রু মারমার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করা …

Leave a Reply