যেভাবে আটক ঘাতক রফিকুল

অবশেষে আটক হলো জেলার দীঘিনালায় কমান্ডার হত্যাকারী আনসার সদস্য ঘাতক রফিকুল ইসলাম। শনিবার বিকালে দীঘিনালা-লংগদু সড়কের চৌধুরী পাড়া এলাকার স্কুল শিক্ষক উষা চাকমার বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়। চোংড়াছড়ি সেনা সাবজোনের টহলদল গোপন সংবাদ পেয়ে তাকে আটক করতে গেলে সে পালানোর চেষ্টা করে। তখন সেনাবাহিনী দৌঁড়ে তাকে আটক করে বলে জানিয়েছে অভিযান পরিচালনাকারী সেনাসূত্র।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দীঘিনালা থানার ওসি আটকের বরাত দিয়ে জানান, শুক্রবার রাতেই সে জঙ্গল দিয়ে পালিয়ে মাঈনী নদীতে নামে। এরপর বাঁশ ও গাছ ভর করে নদী দিয়ে ভাসতে ভাসতে ভোর নাগাদ চৌধূরী পাড়া পর্যন্ত পৌঁছে। সকালে সেখানে পাহাড়ি গ্রামে গিয়ে পানি খেতে চায়। এক পর্যায়ে স্থানীয় স্কুল শিক্ষকের বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে সেখানে ভাত খায় এবং পরিবারের লোকজনের সাথে ফোনে কথা বলে। ওই বাড়িতে তার অবস্থানের বিষয়টি গোয়েন্দা সূত্রে নিশ্চিত হয়ে সেনাবাহিনী অভিযান চালিয়ে আটকের পর পুলিশে সোপর্দ করেছে।

অভিযান পরিচালনাকারী সেনাবাহিনীর একটি সূত্র দাবি করেছে, সে পাহাড়ি গ্রামে অবস্থান করে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) এর স্থানীয় নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করে আত্ম রক্ষার্থে তাদের দলে ভর্তি হতে তাদের স্থানীয় নেতাদের সাথে আলোচনা করছিল রফিকুল।
সকালে জঙ্গল থেকে অস্ত্রগুলি উদ্ধারঃ শুক্রবার বিকালে চৌধুরী টিলা আনসার পোস্টে এ ঘটনার পর থেকে একটি রাইফেল ও ৮০ রাউন্ড গুলিসহ পার্শ্ববর্তি জঙ্গলের দিকে পালিয়ে যায় ঘাতক। শনিবার সকালে ওই জঙ্গলে সেনা-পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে পরিত্যক্ত অবস্থায় অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করলেও ধরা পরেনি ঘাতক। তখন ওসি জানিয়েছিলেন, ঘাতক রফিকুল দীঘিনালার মেরুং সড়ক হয়ে রাঙামাটির লংগদু উপজেলার দিকে পালিয়ে গেছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে। তাকে আটকের সার্বিক চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও দাবি করেছিলেন তিনি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কারাতে ফেডারেশনের ব্ল্যাক বেল্ট প্রাপ্তদের সংবর্ধনা

বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশন হতে ২০২১ সালে ব্ল্যাক বেল্ট বিজয়ী রাঙামাটির কারাতে খেলোয়াড়দের সংবধর্না দিয়েছে রাঙামাটি …

Leave a Reply