নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » ‘যারা ইসলামের নামে অন্য ধর্মের উপর আঘাত করে তারা কখনই ইসলামের অনুসারি হতে পারেনা’

‘যারা ইসলামের নামে অন্য ধর্মের উপর আঘাত করে তারা কখনই ইসলামের অনুসারি হতে পারেনা’

হাজারো ভক্তের সরব উপস্থিতিতে মুখর হয়ে উঠেছিল মাজারসহ এর আশপাশ। হযরত আব্দুল হাকিম প্রকাশ আব্দুল্লাহ ফকির (রহঃ)-এর পঞ্চম বার্ষিক ওরশ শরীফে হাজির হয় হাজার হাজার ভক্ত আশেকান। মঙ্গলবার রাতব্যাপী অনুষ্ঠিত ওরশ শরীফকে কেন্দ্র করে মাজার শরীফকে সাজানো হয়েছিল বর্ণিল সাজে। আয়োজন করা হয় খতমে কোরআন, খতমে গাউছিয়া শরীফ, খতমে খাজেগান ও মিলাদ মাহফিলের।
ওরশ শরীফ উপলক্ষে আয়োজিত মিলাদুন্নবী(দঃ) মাহফিলে প্রধান মেহমান ছিলেন চট্টগ্রামস্থ ফটিকছড়ি মাইজভান্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন শাহজাদায়ে গাউছুল আজম হযরতুলহাজ্ব আল্লামা ডাক্তার সৈয়দ মিশকাতুন-নুর মাইজভান্ডারী।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহজাদায়ে গাউছুল আজম হযরতুলহাজ্ব আল্লামা ডাক্তার সৈয়দ মিশকাতুন-নুর মাইজভান্ডারী বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। এ ধর্ম কখনো অপর ধর্মকে আঘাত করতে বলেনা। যারা ইসলামের নামে অন্য ধর্মের উপর আঘাত করে তারা কখনোই ইসলামের অনুসারি হতে পারেনা। এরা সমাজে ফিতনা সৃষ্টিকারী উল্লেখ করে তিনি এসব কুচক্রী মহলকে প্রতিহত করার আহবান জানান।

হযরত আব্দুল হাকিম প্রকাশ আব্দুল্লাহ ফকির (রহঃ)-এর ওরশ শরীফ উদযাপন কমিটির সভাপতি দৈনিক গিরিদর্পণ সম্পাদক এ কে এম মকছুদ আহম্মেদ-এর সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রামস্থ ষোলশহর জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার শিক্ষক হযরতুলহাজ্ব আল্লামা নুরুন্নবী আল-ক্বাদেরী, বনরূপা জামে মসজিদের খতিব আল্লামা রফিকুল ইসলাম আশরাফী, রাঙামাটি সিনিয়র মাদ্রাসার আরবী প্রভাষক মাওলানা নেছারুল ইসলাম এরশাদ, শান্তিনগর জামে মসজিদেও খতিব মাওলানা শফিউল আলম আল-ক্বাদেরী, কাঠালতলী জামে মসজিদের খতিব মাওলানা হাফেজ সেকান্দর হোসেন আল-ক্বাদেরী, পুরাতন বাস স্ট্যান্ড জামে মসজিদের খতিব মাওলানা জসীম উদ্দিন নুরী, রিজার্ভ বাজার জামে মসজিদের নায়েবে ইমাম মাওলানা হাফেজ ক্বারী ইব্রাহিম ক্বাদেরী প্রমুখ।

পরিচালনা করেন জাতীয় প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত ইমাম সমিতি রাঙামাটি জেলার সম্পাদক ও রাঙামাটি সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা ক্বারী ওসমান গনি চৌধুরী। এছাড়াও রাঙামাটি জেলার বিভিন্ন সামাজিক,সাংস্কৃতিক,রাজনৈতিক এবং মিডিয়া ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
ওরশ শরীফকে কেন্দ্র করে নানা রকমের পসরা সাজিয়ে বসে বিভিন্ন দোকানী। শত শত নারী পুরুষ মাজার জিয়ারতের উদ্দেশ্যে আসেন। এদিন জেলার প্রত্যন্ত উপজেলা হতে এবং জেলার বাইর থেকে বিভিন্ন স্থান থেকে শত শত ভক্ত আশেকান মাজার শরীফ জিয়ারতে আসেন।
মঙ্গলবার সকালে ফজরের নামাজের পর মাজার শরীফ গোসল করার মধ্য দিয়ে দিনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে শুরু হয় খতমে কোরআন, খতমে গাউছিয়া শরীফ, খতমে খাজেগান পাঠ। সন্ধ্যার পর শুরু হয় মনোজ্ঞ নাতে রাসুল (দঃ) পরিবেশনা। এসময় নাতে রাসুল (দঃ) পরিবেশন করেন আ’লা হযরত ইসলামী সাংস্কৃতিক ফোরামের শায়েরবৃন্দ। রাতে শুরু হয় মিলাদ মাহফিল। এতে আউলিয়ায়ে কেরামের জীবনীর উপর আলোচনা করা হয়। মধ্যরাতব্যাপী চলে আলোচনা। পরে মিলাদ কিয়াম এবং সবশেষে দেশ,জাতি ও বিশ্ব মুসলিমের উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনায় বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন মাহফিলে আগত প্রধান অতিথি। এরপর তবারুক বিতরণ করা হয়। মধ্যরাত থেকে রাতব্যাপী চলে ছেমা মাহফিল। বুধবার ভোরে শেষ হয় মাহফিলের সকল আনুষ্ঠানিকতা।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

নানিয়ারচর সেতু : এক সেতুতেই দুর্গমতা ঘুচছে তিন উপজেলার

কাপ্তাই হ্রদ সৃষ্টির ৬০ বছর পর এক নানিয়ারচর সেতুতেই স্বপ্ন বুনছে রাঙামাটি জেলার দুর্গম তিন …

Leave a Reply