নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » মেয়র-এমপির ভূয়সী প্রশংসায় মন্ত্রী তাজুল

খাগড়াছড়ির

মেয়র-এমপির ভূয়সী প্রশংসায় মন্ত্রী তাজুল

এলাকায় উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের জন্য খাগড়াছড়ি পৌরসভার মেয়র ও স্থানীয় সংসদ সদস্য’র ভূয়সী প্রশংসা করলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এমপি। বললেন, জনপ্রতিনিধি হিসেবে মানুষের উন্নয়নের জন্য তারা দায়বদ্ধতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন। একজন ঘুরে ঘুরে ও উদ্ভাবনী চিন্তা দিয়ে আর অপরজন পার্লামেন্টে বক্তৃতা, বিবৃতির মাধ্যমে বলেন। এবং আমাকেও বিভিন্ন সময়ে বলেছেন এলাকার জন্য। এভাবে মানুষের জন্য করে যাচ্ছেন মেয়র রফিকুল আলম ও সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে খাগড়াছড়ি জেলা সদরের কুমিল্লাটিলা এলাকায় পৌরসভার বাস্তবায়নাধীন ‘বঙ্গবন্ধু পৌর আবাসন প্রকল্পে’র উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, আমি এই খাগড়াছড়িতে প্রথম এসেছি। আপনাদের মেয়র রফিকুল আলম আমাকে আসতে উৎসাহিত করেছে। এখানে মেয়র তাঁর নেতৃত্বে বিভিন্ন ধরণের উদ্ভাবনী চিন্তা চেতনার মাধ্যমে মানুষের উন্নত জীবনযাপন করার জন্য অবদান রেখেছে। এতে আমি সন্তুষ্ট এবং অবশ্যই ধন্যবাদ দিব। তবে এর জন্য মেয়রদের আমি বিদেশে পাঠাচ্ছি যাতে করে তারা ওখান থেকে দেখে এসে এলাকার জন্য কিছু করতে পারে।

সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরার প্রসঙ্গে তাজুল ইসলাম বলেন, আপনাদের সংসদ সদস্য প্রায় সময় এ খাগড়াছড়ি এলাকার মানুষের কথা পার্লামেন্টে বক্তৃতা, বিবৃতির মাধ্যমে বলেন। আমাকেও বিভিন্ন সময়ে বলেছেন উনার এলাকার জন্য কিছু দেয়ার জন্য এবং নিশ্চিত করতে। আমি আজ আপনাদেরকে কথা দিয়ে যাচ্ছি সারা বাংলাদেশ যদি একসাথে আমরা উন্নয়ন করি তাহলে সেখান থেকে খাগড়াছড়ি বঞ্চিত হবে না। খাগড়াছড়ি এগিয়ে যাবে। এখানের মানুষ সে উন্নয়নের সুফল ভোগ করতে পারবে।

এছাড়াও মন্ত্রী তার মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে যে সমস্ত সেবা দেয়ার সুযোগ আছে সেসব সেবা এখানের মানুষের উন্নয়নে মেয়র ও এমপিকে দিবেন বলেও অঙ্গীকার করেন।

পৌর মেয়র রফিকুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম শরণার্থী পুনর্বাসন বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান ও খাগড়াছড়ি আসনের সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। তিনিও পৌরসভার উদ্যোগে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করেন।

পরে বঙ্গবন্ধু পৌর আবাসন প্রকল্পে ঠাঁই পাওয়া ৩৪ পরিবারের হাতে ঘরের চাবি ও কম্বল তুলে দেন এবং নির্মিত আবাসন প্রকল্প ঘুরে দেখেন মন্ত্রী তাজুল ইসলামসহ অন্যান্য অতিথিরা। এ সময় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেলাল উদ্দীন আহম্মেদ,  খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়নের কমান্ডার ফয়জুর রহমানসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা এবং স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, পশ্চাৎপদ অনগ্রসর পার্বত্য এলাকায় সুবিধা বঞ্চিত মানুষের আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করার লক্ষে খাগড়াছড়ি পৌরসভা কর্তৃক প্রতিবন্ধী, গৃহহীন, ভূমিহীন, বিধবা ও অস্বচ্ছল মুক্তিয়োদ্ধাদের জন্য ইউজিপ-৩’র প্রকল্পের মাধ্যমে ৩৪টি পরিবারের জন্য বঙ্গবন্ধু পৌর আবাসন প্রকল্প নির্মাণ করা হয়। প্রকল্পের মোট ব্যয় ৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকা।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

নানিয়ারচর সেতু : এক সেতুতেই দুর্গমতা ঘুচছে তিন উপজেলার

কাপ্তাই হ্রদ সৃষ্টির ৬০ বছর পর এক নানিয়ারচর সেতুতেই স্বপ্ন বুনছে রাঙামাটি জেলার দুর্গম তিন …

Leave a Reply