নীড় পাতা » আলোকিত পাহাড় » মিডিয়া কাপের সেরা রাঙামাটির সফিক পাহাড়ী

মিডিয়া কাপের সেরা রাঙামাটির সফিক পাহাড়ী

shafiq-pahariএকসময় পাহাড়ী শহর রাঙামাটির জিমনেসিয়াম কিংবা পাড়ার যেকোন ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতায় তিনিই ছিলেন হট ফেভারিট। কে লড়ে তার সাথে ! প্রায় প্রতিবারই চ্যাম্পিয়ন ট্রফিটা ছিলো তারই যেনো ‘চিরস্থায়ী সম্পদ’। সেই শফিকুল ইসলাম জীবনের প্রয়োজনে গেলেন ঢাকায়। জড়িয়ে পড়লেন গনমাধ্যমে।

বরাবরই আইটি’র মানুষ শফিক গনমাধ্যমের প্রেমে পড়লেন,নির্মাণ শুরু করলেন নানান অনুষ্ঠান। পরে পেশাগতভাবেই হলেন প্রযোজক। আরটিভি’র পর এখন দাপুটে কাজ করছেন যমুনা টিভিতে। জনপ্রিয়তা আর কর্মদক্ষতার পাশাপাশি নিজের নামেও এনেছেন বৈচিত্র্য।
দূর পাহাড় থেকে ঢাকায় গিয়েও ভোলেননি পাহাড়কে। তাইতো তার নাম ‘সফিক পাহাড়ী’। রাঙামাটি শহরের মাঝেরবস্তি এলাকার বাসিন্দা শফিকের মূলবাড়ী কাউখালি উপজেলায়। তার পিতা মরহুম রুহুল আমিন ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য। তার বড়ভাই ওমর ফারুক বিশিষ্ট উন্নয়নকর্মী ও আইটি বিশেষজ্ঞ।

সেই সফিক পাহাড়ী এবার রাঙামাটির সন্তান হিসেবে বয়ে এনেছেন বিরল সম্মান। বরাবরই ব্যাডমিন্টনের সেরা সফিক ঢাকায় সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ওয়ালটন মিডিয়া কাপের পুুরুষ এককে,পুরুষ দ্বৈত এবং মিক্স ডাবলে চ্যাম্পিয়ন হয়ে প্রমাণ করেছেন,ঢাকার যান্ত্রিক আর ব্যস্ত জীবন তার পুরনো দক্ষতায় এতোটুকুও আঁচড় লাগাতে পারেনি।

মিরপুরের শহীদ সোহরাওয়ার্দি ইনডোর স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমগুলোর কর্মীদের নিয়ে প্রথমবারের মত আয়োজিত এ টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছিলো দেশের প্রথম সারির দৈনিক কাগজ, অনলাইন এবং টিভি মিডিয়ার কর্মীরা।
টানা তিন দিনের জমজমাট এ আসরের পাঁচটি ইভেন্টে পুরুষ এককে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন যমুনা টেলিভিশনের সাংবাদিক শফিক পাহাড়ী। পুরুষ দ্বৈত ইভেন্টে মাছরাঙা টেলিভিশনের আশরাফুল হক ও তুশার কান্তি দাশকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন যমুনা টেলিভিশনের শফিক পাহাড়ী ও মনজুর মুরশেদ নয়ন। টুর্নামেন্টের পঞ্চম ইভেন্টটি ছিল পুরুষ-মহিলা দ্বৈত। এ ইভেন্টেও শফিক পাহাড়ীর সঙ্গে জুটিবদ্ধ হয়ে জয়লাভ করেছেন শার্লি শিশির।
মোট তিনটি ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন শিরোপা লাভ করে শফিক পাহাড়ী টুর্নামেন্টের শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড়ের মর্যাদা অর্জন করেন।

প্রসঙ্গত,গত ১৮ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এ টুর্নামেন্টে অংশ নেয় দেশের মোট ২৩টি সংবাদমাধ্যম। নক আউট পদ্ধতির এ টুর্নামেন্টে গত রোববার ও সোমবার পাঁচটি ভিন্ন ইভেন্টে প্রথম এবং দ্বিতীয় পর্বের খেলা অনুষ্ঠিত হয়। মঙ্গলবার ছিল এ টুর্নামেন্টের গ্র্যান্ড ফাইনাল।

আবেগে উদ্বেলিত সফিক পাহাড়ী শুক্রবার সকালে যমুনা টিভির ‘সকালের বাংলাদেশ’ অনুষ্ঠানে এসেছিলেন অতিথি হিসেবে। জানিয়েছেন নিজের আবেগ আর অনুভূতির কথাও।
রাঙামাটিবাসির পক্ষ থেকে সফিক পাহাড়ীর জন্য রইলো অফুরান ভালোবাসা।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান কুজেন্দ্রের

কভিড-১৯ মহামারী উত্তরণে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রীর ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেছে খাগড়াছড়ি পার্বত্য …

Leave a Reply