নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » মামলার তদন্তে চমক, পলাতক খালাত ভাই গ্রেফতার

খালার বাড়িতে এসে লাশ হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যুবক

মামলার তদন্তে চমক, পলাতক খালাত ভাই গ্রেফতার

দীঘিনালায় একটি হত্যা ঘটনার প্রায় ১বছর পর সন্দেহভাজন প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত মনির হোসেন (৩০) দীর্ঘদিন ধরে তার স্থান বদল করে পুলিশকে ফাঁকি দিয়ে পলাতক ছিলেন। পরে এক পুলিশ সদস্য চারমাস ছদ্মবেশে মনিরকে অনুসরন করে সর্বশেষ রোববার রাতে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় বলে জানিয়েছেন দীঘিনালা থানার ওসি উত্তম চন্দ্র দেব।

পুলিশ জানায়, দীঘিনালার বাচামেরুং এলাকায় খালার বাড়ি বেড়াতে এসে লাশ হন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থানার মাধবপুর গ্রামের জহুর আলির ছেলে আজগর আলি (২২)। ২০১৮ সালের ১৬ নভেম্বর খালার বাড়ির অদূর থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহতের শরীরে থাকা আঘাতের চি‎হ্ন এবং লাশের অবস্থাদৃষ্টে পুলিশের ধারণা ছিল, লাশ উদ্ধারের ২/৩দিন আগে তাকে হত্যা করা হয়েছে। কিন্তু কোনোভাবেই হত্যা রহস্যের জট খুলছিল না। মোবাইল কলরেকর্ডসহ বিভিন্ন সূত্রমতে তদন্ত করতে গিয়ে ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততার সন্দেহ হয় নিহতের খালাতো ভাই মনিরের দিকে, এরমধ্যেই মনির হয়ে যায় লাপাত্তা।

ওসি উত্তম চন্দ্র দেব জানান, গত এক বছরে মনির দাঁড়ি রেখে, নিজের অবস্থারন বার বার পরিবর্তন করে এমনকি মোবাইলে প্রায় ৩০টি সীমকার্ড পরিবর্তন করেছে। এই ফাঁকে শিশু সন্তানসহ তাঁর স্ত্রীও কুমিল্লায় চলে যায়। তার স্ত্রীও কয়েকদিন পর পর বাসা পরিবর্তন করছিল। ইতিমধ্যে পুলিশের এক সদস্যকে ছদ্মবেশে কুমিল্লায় প্রেরণ করা হয়। সে পুলিশ সদস্য দীর্ঘ ৪মাস অনুসরন করে মনিরের অবস্থান নিশ্চিত হয়। তখন কুমিল্লা পুলিশের সহযোগিতায় মনিরকে কুমিল্লার কতোয়ালী থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

পানছড়িতে বিষপানে কিশোরীর আত্মহত্যা

খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলায় বিষপান করে নুরুন নাহার (১৮) নামে এক কিশোরী আত্মহত্যা করেছে। সে উপজেলার …

Leave a Reply