নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » মানিকছড়িতে মৌসুমি ফল তরমুজের চড়া দাম

মানিকছড়িতে মৌসুমি ফল তরমুজের চড়া দাম

চলছে রমজান, তার ওপর সরকার ঘোষিত লকডাউন। এদিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের দাম অনেকটা বেশি। আর এই বর্ধিত মূল্যে বাদ পড়েনি মৌসুমি ফল তরমুজও। বাজারে মাঝারি ধরনের একটি তরমুজের দাম হাঁকাচ্ছেন ৩০০-৪০০ টাকা। অন্যান্য বছর রমজানের এই সময়টাতে মাঝারি সাইজের তরমুজের দাম ছিল ৮০-১০০ টাকা মাত্র। ক্রেতাদের অভিযোগ, চলমান লকডাউন ও রমজানকে সামনে রেখে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে চড়া দামে তরমুজ বিক্রয় করছে।

স্থানীয় সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি উপজেলায় এবার তরমুজের ফলন হয়নি। দু’একজন কৃষক তরমুজ চাষ করলেও আশানুরূপ ফলন হয়নি। তাই স্থানীয় চাহিদা মেটাতে অন্যত্র থেকে তরমুজ নিয়ে আসে ব্যবসায়ীরা। স্থানীয় বাজারগুলোতে মধ্যম সাইজের একটি তরমুজ ৪০০-৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ভোক্তা অধিকার আইন প্রয়োগ ও নিয়মিত বাজার মনিটরিং নেই বলে মানিকছড়িসহ আশপাশের বাজারে যত্রতত্র বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম যেন আকামচুম্বী।

দিনমজুর আব্দুর রহিম বলেন, বাজারে নতুন ফল উঠলে মন চায় তা খেতে। কিন্তু আমাদের আয় বুঝে ব্যয় করতে হয়। এতো দাম দিয়ে ফল কিনে খাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। চোখের সামনে নতুন ফল দেখে ছেলে-মেয়েদের জন্য কিনতে ইচ্ছা করে। কিন্তু দাম বেশি হওয়ায় কিনতে পারছি না। দাম কমলে তখন কিনবো।

ব্যবসায়ীরা জানান, স্থানীয়ভাবে তরমুজের চাষ হয়না। তাই বাজারে বিভিন্ন জেলার মোকাম থেকে কালো ও বাংলালিংক জাতের তরমুজ কিনে আনতে হচ্ছে। মোকামে তরমুজের আমদানি কম থাকায় বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। তাই বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশি দামে। কংজরি মারমা বলেন, আমি স্বল্প আয়ের মানুষ, মৌসুমি ফল তরমুজ বাজারে এসেছে তাই পরিবার পরিজন নিয়ে তরমুজ খাওয়ার ইচ্ছা থাকলেও সাধ্যের বাহিরে দাম হওয়ায় তা সম্ভব হচ্ছে না।

মানিকছড়ি উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, অন্যান্য ফসলের তুলনায় এবছর মানিকছড়ি উপজেলায় তরমুজ চাষ হয়নি বলেই চলে। তবে তরমুজ চাষে আগ্রহ বাড়ানোর জন্য কৃষকদের কৃষি বিভাগ থেকে সার্বক্ষণিক পরামর্শ ও সহযোগিতা করা হচ্ছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান কুজেন্দ্রের

কভিড-১৯ মহামারী উত্তরণে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রীর ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেছে খাগড়াছড়ি পার্বত্য …

Leave a Reply