নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » ভাষা শিক্ষায় আশার আলো

ভাষা শিক্ষায় আশার আলো

pic-02একটা সময় ছিলো যখন প্রাথমিক স্তরে মাতৃভাষা শিক্ষার ক্ষেত্রে সরকারকে অন্যতম প্রতিবন্ধকতা মনে করতেন অনেকেই। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে বদলেছে সেই দৃষ্টিভঙ্গীর,সরকারি মনোভাব। এখন প্রাথমিক স্তরে মাতৃভাষা শিক্ষার ক্ষেত্রে সরকারকে বেশ দায়িত্বশীল ও আন্তরিক মনে করেন ভাষা নিয়ে কাজ করা বিশিষ্টজনরা। তবে সরকারি আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন না থাকলেও কাজের গতি নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন তারা।
সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে,জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০,পিডিপি-১/২.পার্বত্য শান্তিচুক্তি,জেলা পরিষদ আইন সবখানেই সকলের মাতৃভাষায় শিক্ষার বিষয়টি লিপিবদ্ধ করে এর প্রয়োজনীয়তাকে মেনে নিয়ে সরকার। শুধু তাই নয়, জাতীয় জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর বিষয়টি বাস্তবায়ন ও মনিটরিংয়ে একটি জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটিও করেছে। একই সাথে আবার বিভিন্ন ভাষার বিশেষজ্ঞদের নিয়ে জাতীয় পর্যায়ের লেখক কমিটিও করা হয়েছে,যারা সংশ্লিষ্ট ভাষার বর্ণমালা বিতর্কের অবসান করে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য বর্ণমালা তৈরি ও লেখন পদ্ধতি চূড়ান্তকরণের কাজ করছেন।

সরকারের এই উদ্যোগ ও কার্যক্রমে আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন দীর্ঘদিন ধরে ভাষা নিয়ে কাজ করছেন এমন ব্যক্তিরা।
জাবারাং এর নির্বাহী পরিচালক মথুরা ত্রিপুরা বলেন, সরকারি বেশ কিছু পদক্ষেপ ও কার্যক্রমে আমি আশান্বিত হচ্ছি তবে কাজের গতি আরো বেশি হওয়া উচিত। তাহলেই হয়তো দীর্ঘদিন ধরে মাতৃভাষায় শিক্ষা নিয়ে যে স্থবিরতা চলছে তাতে গতি আসবে।

সাস’র নির্বাহী পরিচালক ললিত সি চাকমা বলেন, একসময় মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা নিয়ে সরকারি পর্যায়ে যে দৃষ্টিভঙ্গী ছিল এখন তা বদলেছে। শিক্ষা বিভাগ এ সংক্রান্ত কাজে সর্বতোভাবে সহযোগিতা করছে এবং সরকারের দৃষ্টিভঙ্গীও ইতিবাচক। এটা আশার দিক।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

রাঙামাটিতে টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রি

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)’র মাধ্যমে পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে ৪৫ টাকা মূল্যে পেঁয়াজ …

Leave a Reply