নীড় পাতা » আলোকিত পাহাড় » মাছ চাষে ভাগ্য বদল

মাছ চাষে ভাগ্য বদল

mohalchari-fish-pic‘দশে মিলি করি কাজ, হারি জিতি নাহি লাজ’- এমন প্রবাদ বাক্যের মতোই মিলে মিশে শ্রম আর নিষ্ঠা দিয়ে ভাগ্য বদলের সফল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, খাগড়াছড়ি জেলার মহালছড়ি উপজেলার যাদুগানালা গ্রামের দেড় শতাধিক পরিবার। কাপ্তাই হ্রদবর্তী দারিদ্র্যতা কবলিত এই এলাকার কয়েকজন যুবক ২০০১ সালে গঠন করেন, মনাটেক যাদুগানালা মৎসচাষ বহুমূখী সমবায় সমিতি। জীবনে স্বাছন্দ্য ফিরিয়ে আনতে সবাই মিলে মৎস্য চাষে উদ্যোগ নেন। কাপ্তাই হ্রদের প্রায় চার’শ একর এলাকাকে চারদিকে বাঁধ দিয়ে গ্রামবাসী সৃষ্টি করেন, হ্রদের ভেতরে আরেকটি ছোট হ্রদ। সেই হ্রদে বর্ষা মৌসুমে স্থানীয় ও দেশী জাতের মাছের পোনা ছেড়ে যাত্রা শুরু সম্মিলিত ভাগ্য বদলের অনন্য এক প্রচেষ্টা। স্বপ্ন যেমন ছিলো, ফলাফলও তেমনটাই পেয়েছেন তাঁরা। বিলুপ্ত প্রায় বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষসহ বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদে সফলতা আসে।

প্রথম দুই বছর মাছের পরিচর্যা এবং লালন পালনের মাধ্যমে অতিবাহিত হলেও তৃতীয় বছর ২০০৩ সাল থেকেই শুরু হয় মাছ বিক্রি। বার্ষিক ২৫ লক্ষাধিক টাকার মাছ বিক্রি করে সমিতির সদস্যরা সমভাবে শেয়ার বন্টন করেন নিজেরাই। তাদের উৎপাদিত মাছ স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে যাচ্ছে চট্টগ্রামের বিভিন্ন বাজারে। সাধারন সম্পাদক প্রদীপ শশী চাকমা জানান,এরই মধ্যে মনারটেক যাদুকানালা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি গত বছর জাতীয় মৎস্য সপ্তাহে মাছ চাষের বিশেষ স্বীকৃতি হিসেবে অর্জন করেছে প্রধানমন্ত্রী জাতীয় পুরস্কার।
মনাটেক যাদুগানালা মৎসচাষ বহুমূখী সমবায় সমিতির সভাপতি বিপলো চাকমা জানান, কাপ্তাই হ্রদে নানা ধরনের দূষণের ফলে অনেক প্রজাতির মাছ হারিয়ে গেলেও যাদুকানালা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির উদ্যোগে সংরক্ষিত হচ্ছে। লুপ্তপ্রায় সব মা মাছ তাদের বংশবৃদ্ধির নিরন্তর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। তারা মাছ চাষের পাশাপাশি সমিতির সদস্যভুক্ত প্রতিটি পরিবার হাঁস ও গবাদিপশু পালন এবং সামাজিক বনায়ন কার্যক্রম চালাচ্ছে। আর এই সংগঠনের সফলতার দৃষ্টান্ত ছড়িয়ে পড়ছে, আশে-পাশের অন্যান্য গ্রামেও।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

ফুটবলের বিকাশে আসছে ডায়নামিক একাডেমি

পার্বত্য এলাকা রাঙামাটিতে ফুটবলকে আরও জনপ্রিয় করে তোলা, তৃনমূল পর্যায় থেকে ক্ষুদে ফুটবল খেলোয়াড় খুঁজে …

২ comments

  1. প্রতিবেদনটি অত্যন্ত সুন্দর হলেও নাম এবং বানানে ভূল হওয়ায় মনাটেক যাদুগানালা মৎস্যচাষ বহুমূখী সমবায় সমিতি দুঃখ প্রকাশ করছে। যেমন :-
    ১। মনাটেক যাদুগানালা মৎস্যচাষ বহুমূখী সমবায় সমিতির নামের জায়গায় যাদুকানালা মৎস্যজীবি সমিতি লেখা হয়েছে।
    ২।সমিতির সভাপতি বিপলো চাকমা নামের জায়গায় বিপুল চাকমা লেখা হয়েছে।
    ৩। সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ শশী চাকমাকে সুফলভোগী হিসেবে লেখা হয়েছে।
    সম্মানিত পাঠক মহলকে প্রতিবেদনের উপরোক্ত ভূলসমূহ সংশোধন করে পাঠ করার জন্য সবিনয়ে অনুরোধ রইল।

    • প্রিয় রত্ন উজ্জ্বল চাকমা,
      আপনার সংশোধনীর জন্য ধন্যবাদ……..
      রিপোর্ট’র সংশ্লিষ্ট অংশগুলো সংশোধন করা হয়েছে।
      আপনার পরামর্শের জন্য আবারো ধন্যবাদ…………………………….সম্পাদক

Leave a Reply

%d bloggers like this: