নীড় পাতা » পার্বত্য পুরাণ » ভালোবাসা,অভিমান ও শব্দহীন চলে যাওয়া…

ভালোবাসা,অভিমান ও শব্দহীন চলে যাওয়া…

বিকেলে দোতলার ব্যালকনিতে দাড়িঁয়ে আকাশ দেখছে গোধূলী। অস্থিরতা নিয়ে ছটফট করছো সে। অন্যদিকে অরণ্য যে ঘরের সামনে রাস্তার ওপারে দাড়াঁনো। কড়ই গাছের পিছনে লুকিয়ে আছি বলে গোধূলী তাকে দেখতে পাচ্ছেনা।
ছোট্ট একটি বিষয় নিয়ে অরণ্যকে ফোন না দিতে ও যোগাযোগ করতে বারণ করেছো সে। তিনদিন ধরে গোধূলীর সাথে কথা হচ্ছেনা অরণ্যর। যোগাযোগ করতে পারছেনা বলেই প্রায় সময় গোধূলীর বাসার সামনে দাড়িঁয়ে থাকে সে। অন্যদিকে অরণ্যর সাথে যোগাযোগ করতে না পারার যন্ত্রনায় ভুগছে গোধূলী। দীর্ঘ ৪ বছরের সম্পর্কে একবারো ১ ঘন্টার দুরত্ব তৈরি হয়নি তাদের দুজনের মধ্যে। তাইতো এতো আকূলতা, এতো অস্থিরতা।
অরণ্যর সাথে যোগাযোগ বন্ধ হওয়ার পর থেকে প্রতি মূহুর্ত বিষন্নতা আর অস্থিরতায় কাটাচ্ছে সে। শুধু অপেক্ষায় থাকে কবে অরণ্য ফোন দেবে। আজো তার ব্যাতিক্রম হয়নি। মুঠোফোন হাতে বেলকনির এই প্রান্তে একবার ঐ প্রান্তে ছটফট করে পায়চারি করছে গৌধূলী। সে অরণ্যর ফোন পাওয়ার জন্য অপেক্ষায় আছে। গাছের পিছনে দাড়িঁয়ে অরণ্য ফোন দিলো। গোধুলীর মুঠোফোন বেজে উঠলো। উচ্ছসিত গোধূলী স্বস্থি নিয়ে ফোনটি কিছুক্ষনের জন্য বুকে চেপে রাখলো। তারপর গম্ভীর গলায় হ্যালো……
গোধুলী…!?
হুম..
কেমন আছো..?
ভেজা কন্ঠে উত্তর দিলো ..‘ভালো’।
আমি কেমন আছি জিজ্ঞাস করবেনা..?
না..।
“আমার কথা কি তোমার মনে পরে না..?”
ফোনটা বুকে চেপে নিঃশব্দে কাদঁছে গোধূলী। আর দূর থেকে তা দেখে চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি অরণ্য। মুখ চেপে কানে ফোন দিয়ে আবার চুপ হয়ে রইলো গোধূলী।
“আমি ভালো নেই তোমাকে ছাড়া। প্রতিক্ষন প্রতি মূহুর্ত শুধু তোমাকে মিস করছি। তোমাকে ছাড়া সময় আমার কাটেনা। কিছুতে যে মন বসে না। আমি তোমায় অনেক ভালোবাসি”
কান্না আর ধরে রাখতে পারলো না। গৌধুলী। কান্নাজড়িত কন্ঠে…. “তাহলে কেনো তুমি ফোন দিলানা।” তোমাকে ছাড়া যে একটা ঘন্টাও কাটাতে পারবোনা এটা কি তুমি জানোনা। কেনো একবারো আমার সাথে দেখা করার চেষ্টা করলানা ?।”
কথা শেষ হতে না হতেই চোখ মুছে মুখে মুচকি হাসি নিয়ে গাছের পিছন থেকে রাস্তার পার হয়ে গোধুলীর বাড়ীর কাছাকাছি যেতে এগিয়ে চললো অরণ্য।
“আমিতো সব সময় তোমার আশপাশেই ছিলাম। এখনো তোমার সামনেই আছি। একটু নিচে দেখো”
নিচে অরন্যকে দাড়াঁনো দেখে গোধুলীর কান্না আরো বেড়ে গেলো। হঠাৎ কান্না থামিয়ে হাসি ফুটলো গোধুলীর মুখে। অন্যদিকে মুখের হাসির ঝিলিক নিয়ে রাস্তা পার হতেই হঠাৎ একটি মাইক্রো চাপা দিলো অরণ্যকে, প্রাণ কেড়ে নিলো অরণ্যর। রাস্তায় রক্তাক্ত হয়ে পরে রইলো তার শরীর। মূহুর্তে মানুষের জটলা তৈরি হলো। কিন্তু গোধূলী অবাক এবং অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলো নিচে……..শব্দহীন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জেসমিন সুরভী’র কবিতাগুচ্ছ

গন্তব্যের পথিক হাস্যরসাত্মক এই পৃথিবীর বুকে, পথিক চিন্তায় মগ্ন থাকে প্রতিটি ক্ষণে! কখনো ঘুরে দাঁড়ানোর …

Leave a Reply