নীড় পাতা » ব্রেকিং » ভারী যানে ঝুঁকির মুখে রিজার্ভমুখ সড়ক

ভারী যান চলাচল বন্ধের নির্দেশনা 

ভারী যানে ঝুঁকির মুখে রিজার্ভমুখ সড়ক

প্রাকৃতিক ও দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি অনুকূলে থাকায় গত কয়েকবছরের তুলনায় এই বছর রাঙামাটিতে পর্যটকের আনাগোনা বেড়েছে কয়েক গুণ। পাহাড়, হ্রদে বেষ্টিত রাঙামাটি পর্যটকদের খোরাক মেটাতে ঝুলন্ত ব্রিজের পাশাপাশি নতুন রূপে গড়ে ওঠছে পলওয়েল পার্ক, আরণ্যক রিসোর্টসহ বেশ কিছু পর্যটন স্পট।

২০১৭ সালে রাঙামাটিতে ভয়াবহ পাহাড় ধসের সময় রাঙামাটি সমাজ সেবা কার্যালয়ের গেইটের সম্মুখ ভাগের সড়কটির পূর্বপাশের প্রায় এক থেকে দেড়শত ফুট ভেঙে কাপ্তাই হ্রদে বিলিন হয়ে যায়। যার কারণে সড়কটি বাঁচাতে সড়ক ও জনপথ বিভাগ স্থায়ী কোনো পদক্ষেপ এখনো পর্যন্ত না নিলেও, নিয়ে ছিলেন খুঁটির মাধ্যমে অস্থায়ী সংস্কারের।

গত বৃহস্পতিবার রাতে পর্যটকবাহী একটি বাস সড়কটির পশ্চিমপাশে সীমানা প্রাচীরে আঘাত করলে সীমানা প্রাচীর ও সড়কটির ১০-১২ফুট অংশে ফাটল দেখা যায়। যার কারণে এলাকার লোকজন সম্মুখ সড়কটির বেশ কিছু অংশ লাল কাপড় উড়িয়ে ও কাঠ ফেলে রাখে। যাতে গাড়ি চলাচল সে পাশ দিয়ে না করে তার ব্যবস্থা করে। তেমনি ভাবে সড়কটির ডিসি বাংলো ও রাঙামাটির সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের চৌরাস্তা মোড়ের কিছুটা আগেও প্রায় ৪-৫ফিট জায়গাও রয়েছে ভাঙ্গণ ঝুঁকিতে। সেখানেও লাল কাপড় উড়িয়েছেন এলাকাবাসী।

ঝুঁকিতে থাকা সড়কটির পশ্চিম পাশে বসবাস করা নয়ন দে জানান, কোন কারণে এই সড়কের ভাঙ্গণ প্রতিরোধক প্রাচীরটি ভাঙ্গলে, সেটি আমাদের বাড়ি ওপরই পড়বে। বৃহস্পতিবার রাতে একটি বাস এই প্রাচীরটিতে আঘাত করলে সড়ক ও প্রাচীর অংশের মধ্যে ফাটল দেখা যায়। যার কারণে আমাদের দাবি এই সড়কটি পূর্বপাশ স্থায়ী সংস্কার না হওয়া পর্যন্ত যাতে এই সড়কে ভারি যান চলাচল না করে।

পলওয়েল পার্ক নতুন রূপে সাজানোর পর থেকে সেখানে আনাগোনা বেড়েছে দেশি বিদেশি পর্যটকের। কিন্তু সমাজ কল্যাণ কার্যালয়ের সম্মুখ ভাগে ঝুঁকিতে থাকা সড়কদিয়েই পলওয়েল পার্কে যাতায়াত করতে হয় পর্যটকবাহী বাস ও অন্যান্য গাড়িগুলোকে।

এমন পরিস্থিতিতে একদিকে সড়কটির পশ্চিমপাশে বসবাস করা বেশ কিছু পরিবার ভাঙন ভয়ে যেমন আছে, তেমনিভাবে যেসব পর্যটকদের পলওয়েল পার্ক পর্যন্ত গাড়িতে যেতে দেওয়া হচ্ছে না তাদেরও দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে পলওয়েল পার্কে যেতে।

রাঙামাটি ট্রাফিক পুলিশের টিআইও মো. ইসমাইল হোসেন জানিয়েছেন, আমরা আপাতত পর্যটকবাহী ভারি যানগুলোকে চলাচল করতে দিচ্ছি না এই সড়কটি দিয়ে।

রাঙামাটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহী আরেফিন জানিয়েছেন, আমরা বিষয়টি জেনেছি। আমরা এই সড়কটি পরিদর্শনে যাব দ্রুত সময়ের মধ্যে। সড়কটি পরিদর্শনের পর পরই আমরা সিদ্ধান্ত নিব সড়কটিতে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে কি ব্যবস্থা নেয়া যায়। সেটি সংস্কার হোক বা নতুন প্রকল্প হাতে নিতে হোক সে বিষয়ে আমরা ব্যবস্থা নিব।

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ শুক্রবার বিকালে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জরুরি সভায় বলেছেন, সড়কটি বাঁচাতে হলে সে সড়কে ভারী যানচলাচল বন্ধ করতে হবে এবং ভারী গাড়ি নিয়ে যেসব পর্যটক পলওয়েল পার্কে যাবেন তাদের শিশু পার্ক সংলগ্ন জায়গায় গাড়ি থেকে নেমে পলওয়েল পার্কে যাওয়ার জন্য আহবান জানান। পাশাপাশি তিনি সড়কটিতে যাতে ভারী যান চলাচল করতে না পারে সে বিষয়টি দেখার জন্য নিদের্শনা দেন রাঙামাটি জেলা পুলিশকে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

পাহাড়ের বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতি সংরক্ষণ-বিকাশে কাজ করছে সরকার: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এম খালিদ বলেছেন, ‘পাহাড়ের বৈচিত্রময় সংস্কৃতি সংরক্ষণ ও বিকাশে কাজ করছে সরকার। …

Leave a Reply