নীড় পাতা » ফিচার » অন্য আলো » বীরের ‘বাহাদুরি’ বরণ!

বীরের ‘বাহাদুরি’ বরণ!

pic-06_44965এমন পুষ্পবৃষ্টি কখনো দেখেনি পাহাড়বাসী। একসঙ্গে এত তোরণ দেখে পাহাড়ি-বাঙালির চোখ ছানাবড়া। খাওয়া-দাওয়া, মাস্তি, সারি সারি গাড়ি আর মোটরবাইকের মহড়া- সবই নতুন ইতিহাস। পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নতুন প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপিকে গত বুধবার এমনই ‘বাহাদুরি’ (চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় বা-দুরি) সংবর্ধনা দিল বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগ।

বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সহ-প্রচার সম্পাদক আবুল কালাম মুন্না জানান, বান্দরবানের প্রবেশমুখ কেরানিরহাট থেকে শহরের রাজবাড়ী মাঠ পর্যন্ত ২২ কিলোমিটার পথে ছিল ১৫০টি তোরণ। বাকি ৯টি তোরণ নির্মাণ করে দোহাজারি এলাকার মানুষ। তিনি জানান, এসব তোরণ নির্মাণে ব্যয় হয়েছে পাঁচ লাখ টাকার কাছাকাছি।

প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর চট্টগ্রাম শহরের বাসা থেকে বুধবার দুপুর ১২টায় যাত্রা করেন বান্দরবানের উদ্দেশে। অবশেষে হাজারো ভক্তের পুষ্পবৃষ্টির মধ্যে বিকেল পৌনে ৫টায় ফুলের পাপড়ি ছড়ানো কার্পেট পথ হেঁটে রাজার মাঠের মঞ্চে এসে দাঁড়ান তিনি। এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজারের রামু আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য সাইমুম সারোয়ার কমল, চট্টগ্রামের সাতকানিয়া-চন্দনাইশ আসন থেকে নির্বাচিত নজরুল ইসলাম ও সাতকানিয়া-লোহাগড়া আসনের সংসদ সদস্য ড. নাদভী।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, প্রতিমন্ত্রী নিয়োগকে স্মৃতিময় করে রাখতে রাতে অনুষ্ঠিত হয় বর্ণাঢ্য কনসার্ট। চ্যানেল আইয়ের ‘ক্ষুদে গানরাজ’ দলের বেশ কয়েকজন শিশু শিল্পী ও এসএ টিভির ‘বাংলাদেশি আইডল’ নির্বাচিত বান্দরবানের আদিবাসী শিল্পী মং এই কনসার্টে অংশ নেন।

আয়োজকদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী গণসংবর্ধনায় বিভিন্ন ইভেন্টে ব্যয় হয়েছে প্রায় ১৫ লাখ টাকা। এর মধ্যে প্রতিটি তোরণ নির্মাণে গড়ে তিন হাজার টাকা হিসেবে তোরণ খাতে ব্যয় হয়েছে প্রায় পাঁচ লাখ। খাবার বাবদ দেড় লাখ টাকা, গাড়ি ভাড়া ও জ্বালানি খাতে এক লাখ, ফুল কেনা বাবদ ৫০ হাজার টাকা। তবে কারো কারো মতে, খরচের পরিমাণ ৫০ লাখের মতো হবে।

ব্যয়বহুল ওই সংবর্ধনা ও কনসার্টের আয়োজন নিয়ে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তবে প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি কেউ।

অন্য সব খরচের মতোই ব্যয়ের তথ্য পাওয়া যায়নি রাতের ওপেন এয়ার কনসার্ট সম্পর্কেও। সংবর্ধনা আয়োজন উপলক্ষে জেলা আওয়ামী লীগ আটটি উপ-কমিটি গঠন করে। কিন্তু ব্যয় সম্পর্কে সেখানে কোনো তথ্য উল্লেখ করা হয়নি।

তবে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মঞ্চ নির্মাণ, সাউন্ড সিস্টেম ও আলোক প্রক্ষেপণ খাতে দুই লাখ টাকা খরচ হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দাবি, শিল্পীদের কোনো সম্মানী দিতে হয়নি। তবে ঢাকা থেকে শিল্পীদের আনা-নেওয়া, আবাসন ও আপ্যায়ন খাতে পাঁচ লাখ টাকার কাছাকাছি ব্যয় হয়েছে। এ ছাড়া দূর-দূরান্ত থেকে আসা দলীয় সমর্থকদের মধ্যে রাতে খাবারের প্যাকেট বিতরণ করা হয়।

বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মজিবুর রহমান সংবর্ধনা অনুষ্ঠান উপস্থাপন করলেও রাতের ওপেন এয়ার কনসার্ট উপস্থাপনায় নিয়ে আসা হয় চ্যানেল আইয়ের উপস্থাপক মৌসুমী বড়ুয়াকে। তাঁকেও হাজার বিশেক টাকা দিতে হয়েছে।

তোরণ নির্মাণকারীদের দাবি, চারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে বীর বাহাদুর দুইবার পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান, একবার বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সভাপতিসহ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনকালে এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। এ কারণে তাঁকে সম্মান জানাতেই তোরণ সাজানো হয়েছে। তবে অভিযোগ উঠেছে, অবৈধ সুবিধা পেতেই তোরণ উপঢৌকন দেওয়া হয়েছে।

এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন জানিয়েছেন, পুরো আয়োজন স্বতঃস্ফূর্ত ছিল এটা ঠিক নয়। এজন্য বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ, বান্দরবান পৌরসভা ও বড় বড় ব্যবসায়ী সংগঠনকে বিপুল অঙ্কের অর্থ ব্যয় করতে বাধ্য করা হয়েছে।

এদিকে বান্দরবান জেলা সদরের প্রবেশমুখ সুয়ালক ও বান্দরবান শহরের পুলিশ সুপারের অফিস এলাকায় কিছুসংখ্যক শিক্ষার্থীকে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ফুল ছিটাতে দেখা যায়। কয়েকজন অভিভাবক অভিযোগ করেছেন, শিক্ষার্থীদের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে ফুল ছিটাতে বাধ্য করা হয়েছে।

তবে বান্দরবান শহর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মমতাজ বেগমের দাবি, দীর্ঘক্ষণ নয়, তাঁর আসার সংবাদ শুনে স্কুলসংলগ্ন রাস্তায় দাঁড়িয়ে শিক্ষার্থীরা প্রতিমন্ত্রীকে ফুল ছিটিয়েছে।

( বীরের ‘বাহাদুরি’ বরণ ! শীর্ষক এই প্রতিবেদনটি ২৫ জানুয়ারি’২০১৪, দেশের অন্যতম জাতীয় পত্রিকা দৈনিক কালের কন্ঠে প্রকাশিত হয়েছে। কালের কন্ঠের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতাসহ আমরা প্রতিবেদনটি পাহাড়টোয়েন্টিফোর ডট কম এর পাঠকদের জন্য প্রকাশ করলাম……..সম্পাদক)

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লকডাউনে ফাঁকা খাগড়াছড়ি, বাড়ছে শনাক্ত

সারা দেশের মতো দ্বিতীয় দফায় সরকারের ঘোষিত লকডাউন চলছে পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়িতে। প্রথম দফার লকডাউন …

Leave a Reply