নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » মন্ত্রী হবেন বীর বাহাদুর!

মন্ত্রী হবেন বীর বাহাদুর!

BBN-Pic-01-ed-1পার্বত্য চট্টগ্রামের ‘অসাম্প্রদায়িক বীর’ হিসেবে খ্যাত বীর বাহাদুর এমপি’কে পূর্নমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান পাহাড়ের মানুষ। পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয় কিংবা অন্য কোন মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী করা হলে দীর্ঘ তেইশ বছরের সংসদ সদস্য এবং দুবার প্রতিমন্ত্রী পদ মর্যাদা সম্পন্ন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যানের ও দুইবার আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে পিছিয়ে পড়া জনপদ পার্বত্যাঞ্চলকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবে বীর বাহাদুর এমপি,এমন দাবি আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের। তবে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ বীর বাহাদুরকে মন্ত্রী হিসেবে চাইলেও জনসংহতি সমিতির রয়েছে ভিন্নমত।

‘দীর্ঘ বিশ বছর এমপি ছিলেন, এবার মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায় পাহাড়ের এগারটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সম্প্রদায়সহ বাঙ্গালীরা। মন্ত্রী করার জন্যই পঞ্চম বারের মত বীর বাহাদুর’কে নির্বাচিত করে জননেত্রী শেখ হাসিনা’কে বান্দরবান আসনটি উপহার দিয়েছে। পার্বত্যবাসীর প্রত্যাশা বঙ্গবন্ধু কন্যার স্নেহভাজন বীর বাহাদুর’কে মন্ত্রী বানিয়ে বান্দরবানবাসীর দীর্ঘদিনের আশা-আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটাবেন’- কথাগুলো বলেছেন পাহাড়ের উন্নয়নে অবদান রাখা শিক্ষক, মানবাধিকার নেত্রী, সুধিসমাজের প্রতিনিধি এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গরা। তাদের দাবি পার্বত্য মন্ত্রনালয় না হলেও এবার কোন না কোন মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব দেয়া হবে পাঁচ বারের নির্বাচিত এই সংসদ সদস্যকে।

বান্দরবান জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর থানজামা লুসাই বলেছেন, ‘শুধু বিশ বছরের সংসদ সদস্যের অভিজ্ঞতা নয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যানও ছিলেন দশ বছর। দারিদ্র বিমোচন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং অবকাঠামো উন্নয়নের অভিজ্ঞতাও রয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক পূর্নমন্ত্রী করে সামগ্রিকভাবে তিন পার্বত্য জেলার দায়িত্ব দেয়া হলে পিছিয়ে পড়া, সম্ভাবনাময় পার্বত্যাঞ্চল এগিয়ে যাবে। পঞ্চম বারের মত জনগন তাকে নির্বাচিত করেছে মন্ত্রী হিসেবে দেখার জন্যই। তার নেতৃত্বেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বান্দরবান। পাহাড়ের অন্যদুই জেলা রাঙামাটি ও খাগড়াছড়িতেও পাহাড়ী-বাঙ্গালী সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠায় অগ্রনী ভূমিকা রাখতে পারবে।’

বাংলাদেশ মানবাধিক কমিশন বান্দরবান জেলা সভানেত্রী ডনাই প্রু নেলী বলেছেন,- ‘জনপ্রিয়তা এবং যোগ্যতার কারণেই বারবার নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। বীর বাহাদুর দীর্ঘ বিশ বছর ধরে বান্দরবাসীর প্রতিনিধিত্ব করে আসছেন। পঞ্চম বারেরমত এমপি নির্বাচিত করে মন্ত্রীত্ত্ব প্রত্যাশা করতেই পারে মানুষ। পাহাড়ের উন্নয়নে তার ভূমিকা প্রশংসনীয়। পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নের দাবী পূরণের ব্যাপারেও ভূমিকা রাখতে দেখেছি। মারমা, চাকমা’সহ ১১টি পাহাড়ী জনগোষ্ঠীকে ভেদাভেদ করতে দেখেনি। পার্বত্য মন্ত্রী হওয়ার সব যোগ্যতাই রয়েছে বীর বাহাদুরের। এছাড়া নৌকার প্রতি বান্দরবানবাসীর ভালোবাসার প্রতিদান চায় এখানকার মানুষেরা।’

তবে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য ও জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) কেন্দ্রীয় নেতা কেএসমং মারমা বলেছেন, বীর বাহাদুর মন্ত্রী হলে পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নের কোনো উদ্যোগই নিবেন না। অতিতেও দেখা যায়নি। সরকারের নীতি নির্ধারণী সিদ্ধান্ত যারা বিগত পাঁচ বছর অধিক অর্থ আয় করেছে, দৃশ্যমানের চেয়ে অদৃশ্যমান আয় বেশি তাদের মন্ত্রী করা হবেনা। সেই সিদ্ধান্ত অনুসারে বীর বাহাদুর মন্ত্রী হওয়ার যোগ্যতা রাখেনা। তিনি অভিযোগ করেন, পাহাড়ে অশান্তির সাম্প্রদায়িক যে বীজ বপন করেছে বীর বাহাদুর, তা আগামীতে কাল হয়ে দাড়াবে আওয়ামীলীগের।

জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুর রহিম চৌধুরী বলেছেন, ‘শিক্ষা,স্বাস্থ্য, দারিদ্র বিমোচন এবং অবকাঠামোগত বিভিন্ন উন্নয়নের ফলশ্রুতিতে বারবার নির্বাচিত হয়েছে। পঞ্চম বারেরমত নির্বাচিত করায় বীর বাহাদুর’কে পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান। পাহাড়ের মানুষের প্রত্যাশা এবং জোরালো দাবী এটি।’Bir-Bahadur

প্রসঙ্গত, স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে বান্দরবান ৩০০নং সংসদীয় আসনে চাইথোয়াই রোয়াজা স্বতন্ত্র, ১৯৭৯ সালে স্বতন্ত্র অংশৈ প্রু চৌধুরী, ১৯৮৬-৮৮ সালে মংশৈ প্রু চেীধুরী (জাতীয় পার্টি) এবং ১৯৯৬ এর ১৫ ফেব্রুয়ারি বিতর্কিত নির্বাচন বাদে ১৯৯১ থেকে ২০১৪ এ পর্যন্ত আওয়ামীলীগের প্রার্থী বীর বাহাদুর পঞ্চমবার এমপি নির্বাচিত হন। বীর বাহাদুরের পূর্বে নির্বাচিতদের কেউই পূর্নাঙ্গ মন্ত্রী ছিলেন না এবং বর্তমানে তাদের কেউই বেঁচে নেই। টানা বিজয়,নিজের সাংগঠনিক দক্ষতা আর কর্মকান্ডের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে নিজেকে নিয়ে যাওয়ায় ধারণা করা হচ্ছে এবার ভাগ্যের ছিকে ছিঁড়ছে তার। নবগঠিত সরকারের কোন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রনালয়ে এবার দায়িত্ব মিলতে পারে পাহাড়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতির জন্য ক্রমশঃ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠা এই নেতার।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

সংবর্ধিত হলেন রাঙামাটি পৌরসভার অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা

রাঙামাটি পৌরসভার অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিদায়ী সংবর্ধনা দিয়েছে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার দুপুরে পৌরসভা মিলনায়তনে …

Leave a Reply