নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » বিলকিছ বেগম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ক্লাস বর্জন

বিলকিছ বেগম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ক্লাস বর্জন

Bandarban-Shool-Pic_1বেতন ভাতার দাবিতে বান্দরবানে বিলকিছ বেগম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা ক্লাস বর্জন কর্মসূচী শুরু করেছেন। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জেলা শহরের বালাঘাটায় অবস্থিত বিলকিছ বেগম বেসরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকারা অনিদিষ্টকালের জন্য এই ক্লাস বর্জন কর্মসূচি শুরু করেন। বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শহিদুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান জানান, অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার কারণে জেলা প্রশাসক প্রধান শিক্ষকের বেতন বন্ধ করে রাখায় স্বেচ্ছাচারিতামূলক প্রধান শিক্ষক আবুল কাসেম সহকারী শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বেতন-ভাতা বন্ধ করে রেখেছেন। ২০১৩ সালের জুন মাসে স্কুল পরিচালনা কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতায় পরিচালনা কমিটি গঠন করা যায়নি। জেলা প্রশাসকের করে দেয়া চার সদস্যের কমিটিও মেনে নেয়নি। শিক্ষা বোর্ডে জেলা প্রশাসকের কমিটির বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি করেছে। বেতন ভাতা না পাওয়া পর্যন্ত ক্লাস বর্জন কর্মসূচী অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন শিক্ষকেরা।
জানা গেছে, বিলকিছ বেগম উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রায় সাড়ে ৪ শতাধিক ছাত্রছাত্রী রয়েছে। এমপিও ভুক্ত শিক্ষক-শিক্ষিকা রয়েছে ১১ জন এবং দুজন খন্ডকালীন শিক্ষক কর্মরত আছেন। ১৯৮১ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়ে বর্তমান প্রধান শিক্ষক দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নানা সমস্যা লেগেই রয়েছে। আগের স্কুল পরিচালনা কমিটির সঙ্গেও বিরোধে জড়িয়ে যান প্রধান শিক্ষক। বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ে যাবার পরও শিক্ষকরা ক্লাস না নেয়ায় শিক্ষার্থীরা লেখা-পড়া করতে পারেনি। প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের দ্বন্দ্বে অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত।

তবে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ অস্বীকার করে প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল কাসেম জানান, স্কুল পরিচালনা এডহক কমিটি গঠন নিয়েই শিক্ষকদের সঙ্গে তার বিরোধ চলে আসছে। জেলা প্রশাসক কোনো নোটিশ ছাড়ায় তার বেতন ভাতা বন্ধ রেখে সহকারী শিক্ষকসহ স্কুলের অন্যান্য কর্মচারীদের বেতন ছাড় করেছেন। কিন্তু আমার বেতন ভাতা কেটে রাখায় অন্যদের বেতনভাতা আমি ছাড় করিনি। শিক্ষকদের আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সমস্যার সমাধান হলে বেতন ভাতা পাবে বলে আশ্বস্ত করেছি। কিন্তু তারা কথা না শুনে ক্লাস বজর্ন কর্মসূচী পালন করছে।

জেলা প্রশাসক কেএম তারিকুল ইসলাম জানান, শিক্ষার্থীদের কথা মাথায় রেখে দ্রুত সমস্যার সমাধানে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

রাঙামাটিতে পুলিশ কনস্টেবলের ‘আত্মহত্যা’, নেপথ্যে ‘প্রেম’

রাঙামাটিতে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় এক পুলিশ কনস্টেবলের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার সকালে জেলা …

Leave a Reply