নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » বিজয় মেলা’য় জুয়ার আসর, অশ্লীল নৃত্য

বিজয় মেলা’য় জুয়ার আসর, অশ্লীল নৃত্য

putul-nachপুরো মাঠজুড়ে টিনের ঘেরা। ছোট ছোট স্টলে আচার, গজা, জুতা কাপড়ের দোকান। আছে ফুচকা সহ বেশ কয়েকটি খাবারের দোকান। মেলার বাম দিকে আছে শিশুদের জন্য নাগের দোলনা আর ট্রেনে চড়া। নাহ! মেলার নামের সাথে মিল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা। মেলার শেষ প্রান্তের বাম দিকে চোখে পড়লো মানুষের জটলা। দুটি জটলা ঘিরে উৎসুক মানুষের ভীড়, চিৎকার। চারপাশে অন্ধকার হলে মানুষগুলোর দৃষ্টি যেখানে সেখানে সাদা লাইটের উজ্জ্বল আলো। কাছে গিয়ে চোখে পড়লো স্কুল/কলেজ পড়ুয়া ছাত্র থেকে শুরু করে দিন মজুর সবাই ব্যস্ত জুয়া খেলায়!ৎ

অন্যদিকে পুতুল নাচ দেখতে নানান বয়সী মানুষের ভীড়। ৫০ টাকায় টিকিট কেটে প্রবেশ করছে অনেকে। নিজের সন্তান নিয়ে এক মা পুতুল নাচ দেখ বের হয়ে আসার সময় এক কর্মীকে কটাক্ষ করে বললেন এগুলোকে কি পুতুল নাচ বলে?।
বাস্তবতা জানতে ভেতরে প্রবেশ করতেই চোখে পড়লো ১৮/১৯ বছরের এক যুবতী নারী গানের তালে তালে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করে নৃত্য করছে। মঞ্চের কাছাকাছি বসা মানুষগুলো যুবতীর সাথে তাল মিলিয়ে নাচে ব্যস্ত।

এই হল মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে খাগড়াছড়ি পৌরসভার উদ্যোগে আয়োজিত পক্ষকালব্যাপী বিজয় মেলার চিত্র। মেলায় আসা অনেকে বলেছেন অশ্লীল নাচ, জুয়া, হাউজি ছাড়াও এই মেলা জমানো সম্ভব।

এদিকে আয়োজন কমিটির পক্ষ থেকে জুয়া, হাউজি ও পুতুল নাচের অনুমোদন আছে দারি করা হলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ‘শুধু মেলার অনুমোদন আছে’। অন্যদিকে পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।
১৬ ডিসেম্বর বাঙ্গালীর বিজয় দিবস। এই দিনে লাখো রক্তের বিনিময়ে দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের পর বাঙ্গালী জাতি পায় কাঙ্খিত বিজয়। বিজয় মানে স্বাধীনতার চেতনা। কিন্তু সেই চেতনা এই মেলায় বাস্তবিক অর্থে দেখা দিয়েছে ব্যবসা।

নামের সাথে মিল রেখে মেলায় মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণা, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক নাটক-সংগীত-চলচ্চিত্র ও মুক্তিযুদ্ধের নানা প্রদর্শন নিদর্শন এবং বিজয়ের গৌরবগাথা নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার কথা থাকলেও তাঁর কোন বালাই নেই। তবে ঠিবি দেখা মিলবে মেলার ভীন্নরুপী দৃশ্য ! আর সব চলছে প্রশাসনের নাকের ডগায়।juaaa

খাগড়াছড়ি সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নাছির উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, বিজয় মেলায় মূলত মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কিত চলচিত্র, গৌরবময় স্মৃতিচারণ এগুলো থাকার কথা। কিন্তু বিজয় মেলার চলছে অশ্লীল নাচ, জুয়া খেলা হাউজি খেলা। যা কোনভাবে গ্রহনযোগ্য নয়। প্রশাসনের উচিৎ এগুলো বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া।

খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু দাউদ বলেন, এই জেলার মানুষের বিনোদনের অভাব রয়েছে। বিজয় মেলা সে অভাবটা অনেকাংশে পূরণ করতে পারে। বিজয় মেলার নামে জুয়া, হাউজি এবং পুতুল নাচের নামে অশ্লীল নাচ গানের অনুষ্ঠান বন্ধ করার দাবি জানান। তিনি প্রশাসনের নীরব ভূমিকারও সমালোচনা করেন।
এদিকে আশপাশে পুলিশ প্রহরায় মেলা চললেও জুয়া, হাউজির বিষয়ে কিছু জানেননা দাবী করে খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার শেখ মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এই মেলা উদ্বোধন করা হয়েছে। এখানে এসব চলার কথা না। তিনি বিষয়টি দেখবেন বলেও জানান।

এদিকে অভিযোগ রয়েছে পুলিশকে মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে এই মেলা পরিচালনা করা হচ্ছে। তবে বিজয় মেলা কমিটির আহ্বায়ক খাগড়াছড়ি পৌর কাউন্সিলর জাফর আহম্মদ জুয়া, হাউজি, পুতুল নাচের অনুমোদন আছে দাবী করে বলেন, এই বিষয়ে প্রশাসন অবগত আছে।

তবে খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছাম্মদ আনার কলি বলেন, আমি মেলার অনুমোদন দিয়েছি। তবে জুয়া, হাউজি ও পুতুল নাচের নামে অশ্লীল নাচের অনুমোদন দেইনি। তিনি ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করে এসব বন্ধে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেবেন বলে জানান।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লকডাউনে ফাঁকা খাগড়াছড়ি, বাড়ছে শনাক্ত

সারা দেশের মতো দ্বিতীয় দফায় সরকারের ঘোষিত লকডাউন চলছে পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়িতে। প্রথম দফার লকডাউন …

Leave a Reply