নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » বিজয় দিবসে ফ্রি মেডিকেল ক্যাসমৎ মাটিরাঙ্গায়

বিজয় দিবসে ফ্রি মেডিকেল ক্যাসমৎ মাটিরাঙ্গায়

DSC09952৪৪ তম মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দু:স্থ ও অসহায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দুই দিনব্যাপী প্রি মেডিকেল ক্যাম্পের স্বাস্থ্য সেবা বৃহস্পতিবার বিকালে সম্পন্ন হয়েছে। মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রথম বারের মতো এ চিকিৎসা ক্যাম্পের আয়োজন করা হয়। বুধবার দুপুরের দিকে বিজয়ের দিনে মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহদি মিনারের পাশে স্থাপিত এ মেডিকেল ক্যাম্পের উদ্বোধন করেন খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজিত এ চিকিৎসা ক্যাম্প গরীব, অসহায় ও দু:স্থ মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে আশার আলো জাগিয়েছে। উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধারা বলেছেন, অতীতে কেউ এমন উদ্যোগ না নিলেও মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানে এ আয়োজন করে আমাদেরকে সম্মানিত করেছেন।

দুই দিনব্যাপী এ ক্যাম্পে দুই‘শ জন মুক্তিযোদ্ধা চিকিৎসা সেবার পাশাপাশি বিনামুল্যে ঔষধ পেয়েছেন। মেডিকেল ক্যাম্পে রিপ্রেজেনটেটিভদের সংগঠন ফারিয়া‘র উদ্যোগে রেনেটা, বেক্সিমকো, ওরিয়ন ও এ্যাডরুকসহ আটটি কোম্পানীর পক্ষ থেকে বিনামুল্যে ঔষধ বিতরণ করা হয় দু:স্থ ও অসহায় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের। মেডিকেল ক্যাম্পে লাইফ ডায়গনস্টিক সেন্টারের উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের বিনামুল্যে ডায়বেটিস ও জন্ডিস পরীক্ষা করা হয়।

ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্পে চিকিৎসা গ্রহণ করা বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: খলিলুর রহমান বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে এমন আযোজন প্রশংসার দাবী রাখে। এমন আয়োজনের জন্য তিনি মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমানকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন একজন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান হওয়ার কারণেই তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

মেডিকেল ক্যাম্পে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের বিনামুল্যে চিকিৎসা প্রদান করেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: মো: আবুল হােসম, মেডিকেল অফিসার ডা: পরাগ দে, ডা: সেওরভ দত্ত প্রমুখ। তাদেরকে সহযোগিতা করেন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার ডা: ইমাম হোসেন রকি ও ডা: আতাউর রশীদ হিমু।

ফ্রি মেডিকেল বিষয়ে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান বলেন, বছরে একদিন বা দুদিন নয় আমাদের উচিত প্রতিদিনই বীর সন্তানদের কথা স্মরণ করা। তাদের কারনেই আমার লাল-সবুজের পতাকা পেয়েছি। বুক ভরে স্বাধীনতার নি:শ্বাস নিতে পারছি। তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে কল্যাণমুখী উদ্যোগ গ্রহন করা হবে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্য বিভাগকে সুরক্ষা সামগ্রী দিলো রাঙামাটি রেড ক্রিসেন্ট

নভেল করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে রাঙামাটির ১২টি সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রসমূহে স্বাস্থ্য …

Leave a Reply