নীড় পাতা » পাহাড়ে নির্বাচনের হাওয়া » বিএনপির চোখে দীপংকরের পরাজয় যেসব কারণে

বিএনপির চোখে দীপংকরের পরাজয় যেসব কারণে

BNP coverনবম সংসদের প্রধান বিরোধী দল বিএনপির অংশ গ্রহণ ছাড়া অনুষ্ঠিত দশম সংসদ নির্বাচনে সারাদেশে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের জয়জয়কার হলেও কয়েকটি আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয় ঘটে। এর মধ্যে রয়েছে রাঙামাটি আসনটিও। এ আসনে আওয়ামী লীগের হেভিয়েট প্রার্থী তিনবারের সংসদ সদস্য ও পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার স্বতন্ত্র প্রার্থী ঊষাতন তালুকদারের কাছে হেরে যান। এ হারের পিছনে কেউ কেউ দীপংকর তালুকদারেরর দাম্ভিকতা, অহংকার, জয়ের ব্যাপারে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস, নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ও আরো বিভিন্ন কারণ উল্লেখ করলেও নির্বাচনে অংশ না নেওয়া বিএনপি মনে করছে এর বাইরে আরো অনেক কারণে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দীপংকর তালুকদারের পরাজয় ঘটেছে। বিএনপি নেতারা মনে করছেন, জাল ভোটে পার্থক্য, সরকারি দলের বিভিন্ন অপকর্ম, দুর্নীতি, হরিলুট, স্বেচ্ছাচারিতা, দলীয় কর্মীদের সক্রিয়তা না থাকা ও সর্বোপরি নির্বাচনে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি অংশগ্রহণ না করার কারণে জনগণের আগ্রহ কম থাকায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী দীপংকর তালুকদার হেরে গেছেন।

জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু সাদাৎ মোঃ সায়েম বলেন, সারাদেশে যেভাবে প্রহসনের নির্বাচন হয়েছে, তারই ধারাবাহিকতায় রাঙামাটিতেও প্রহসনের নির্বাচন হয়েছে। এ নির্বাচনে জাল ভোটের প্রাধান্য থাকায় ও জনগণের আগ্রহ কম থাকায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয় হয়েছে।

জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইলিয়াস বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের দুর্নীতি সারা দেশসহ পার্বত্যাঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। জেলা পরিষদে নিয়োগের ক্ষেত্রে আত্মীয়করণ, দলীয়করণ, ওপেন টেন্ডার বন্ধ, জনকল্যাণমুখী কোনো কার্যক্রম না থাকার প্রভাব পড়েছে প্রহসনের এই নির্বাচনে। এসব প্রভাবে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয় ঘটে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

রাঙামাটি সদর বিএনপির সভাপতি এডভোকেট মামুনুর রশিদ মামুন বলেন, প্রথমত আমরা নির্বাচন বয়কট করেছি। তবুও এখানে যে নির্বাচন হয়েছে তাতে আওয়ামী লীগের গত ৫ বছরে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, দুর্নীতি, টেন্ডারবাজি, নির্বাচনী অঙ্গিকার বাস্তবায়ন না করা, চাকুরীর ক্ষেত্রে অনিয়মের কারণে আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে এই এলাকার জনগণ গ্রহণ করেনি।

রাঙামাটি পৌর বিএনপির সভাপতি ও রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র সাইফুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, নির্বাচনী ড্রামায় জাল ভোটের পার্থক্যের কারণে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয় ঘটেছে।এই নির্বাচনে রাঙামাটি আসনে ছিল জালভোটের প্রতিযোগিতা, দুইদিকে সমানতালে জাল ভোট পড়লেও কম-বেশি হওয়ার কারণে দীপংকর তালুকদার হেরে গেছেন। এছাড়া প্রার্থীর জনসম্পৃক্ততা কম, প্রধান শক্ত বিরোধী দল বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় নির্বাচনটি অনেকটা খেলো হয়ে যায়, এই নির্বাচনের ফলে গঠিত সরকারের স্থায়ীত্ব নিয়ে জনমনে দ্বিধা থাকায় সাধারণ জনগণের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও নিবঅচনে সক্রিয় ছিল না। ফলে এই পরাজয় ছিল স্বাভাবিক।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের বিভিন্ন অপকর্ম, হরিলুট, স্বেচ্ছাচারিতা, স্বজনপ্রীতির কারণে আওয়ামী লীগ থেকে জনগণ মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। আর বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় অনেকে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার কারণে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয় ঘটেছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

থানচিতে অবৈধ ইটভাটা ভেঙেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত

বান্দরবানের থানচিতে অনুমোদনহীন গড়ে ওঠা অবৈধ একটি ড্রাম চিমুনীর ইটের ভাটা ভেঙে দিয়েছে ভ্রম্যমাণ আদালত। …

২ comments

  1. DIPEN DEWAN MADARCHUD USHTONER DALAL SINBORD BNP PICHONE JSS ER DALALI KOROS TODER MOTO NETAKE LATTHI MARI

  2. ONEK PAHARI AWAMI BNP RAJNITI KORE SUDHU SUJOG SUBIDHAR JONNO MONE PRANE RAJNITI KORE TADER SONGKHA COM TARA HOCCHE SHITER OTTITI PAKHIR MOTO JOTTO SUB MIRJAFORER BONGSHO

Leave a Reply

%d bloggers like this: