নীড় পাতা » সম্পাদকীয় » বাড়ছে পানি, কাটছে শঙ্কা

সম্পাদকীয়

বাড়ছে পানি, কাটছে শঙ্কা

কয়েক দিন ধরে কাপ্তাই হ্রদের পানি বাড়তে শুরু করেছে। বিগত বছর গুলোর তুলনায় এই বছর শুষ্ক মৌসুমে অস্বাভাবিকভাবে হ্রদের পানি শুকিয়ে গিয়েছিল। ফলে অভ্যন্তরীণ ছয়টি উপজেলার সাথে নৌ যোগাযোগ এক প্রকার বন্ধই ছিল। বিকল্প বাহন হিসেবে স্পিডবোট চললেও; এসব বাহনের ভাড়াও বেশি। উপায়ন্তর না থাকায় বাড়তি ভাড়ায় গন্তব্যে পৌঁছুতে হয়েছে ঘরমুখো মানুষদের। অস্বাভাবিক পানি কমে যাওয়ায় উপজেলায় উৎপাদিত ফলমুল আনতেও হিমশিম খেতে হয়েছে চাষিদের। নিয়মিত যাতায়াত করা লঞ্চ ও ইঞ্চিন চালিত বোট যাতায়াত করেনি। এমনকি ঈদুল ফিতরের সময়েও এসব বাহন চলাচল করেনি। পানি কম থাকায় ঈদুল ফিতরের ছুটিতে আসা পর্যটকরাও হ্রদ তীরবর্তী স্পটগুলোতেও যেতে তেমন একটা আগ্রহ দেখাননি। ঈদের ছুটিতে পর্যটকদের জন্য মুখিয়ে থাকা ট্যুারিস্ট বোট মালিকদের ব্যবসাও আশানুরূপ হয়নি। পানি না বাড়ায় হ্রদের ওপর নির্ভরশীল মানুষগুলো জীবিকা নিয়ে দুশ্চিন্তা আর হতাশায় পড়ে যান। প্রাণহীন হয়ে পড়ে লঞ্চ ও বোটঘাটগুলো।

গত কয়েকদিন ধরে বৃষ্টি হওয়ায় এবং উজান থেকে নেমে আসা পানির কারণে বাড়তে শুরু করেছে হ্রদের পানি। ফলে স্বস্থি ফিরে আসে হ্রদের ওপর নির্ভরশীল মানুষগুলোর মাঝে। আবারো প্রাণচঞ্চল হয়ে উঠে লঞ্চ ও বোটঘাট। যাতায়াত বাড়ে অভ্যন্তরীণ উপজেলাগুলোর সাথে। পানি বাড়ার সাথে সাথে এসব মানুষের মনেও প্রাণচাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। কাটছে দুশ্চিন্তা আর হতাশা। প্রাণচঞ্চল হয়ে উঠছে কাপ্তাই হ্রদ।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

চাই ব্যতিক্রমী শীতবস্ত্র বিতরণ

বেশী করে শীত পড়তে শুরু করলেই কেবল এক শ্রেণীর বিবেকবান মানুষকে দৌঁড় ঝাপ করতে দেখা …

Leave a Reply