নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » বাবার করুন মৃত্যু দেখলো তিন বছরের শিশু মিশন

বাবার করুন মৃত্যু দেখলো তিন বছরের শিশু মিশন

তিন বছরের শিশু মিশন দেখল বাবার করুন মৃত্যু। বাবা সুশান্তি শিশুকে কোলে নিয়ে ভোরে উঠানে হাটছিলেন। হঠাৎ গুলির শব্দ শুনে শিশু পুত্রকে নামিয়ে রেখে জীবন রক্ষায় দৌড় দেন। সে সময় শত্রুর ছোড়া গুলি পায়ে বিদ্ধ হলে পরে যান তিনি। সাথে সাথে দুর্বৃত্তরা কাছ থেকে আরো কয়েক রাউন্ড গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে চলে যায়। আর শিশু পুত্র তখনও বাবার লাশের পাশে দাঁড়িয়ে ‘বাবা বাবা’ বলে কাঁদছিল। কথাগুলো বলছিলেন দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত সুশান্তি চাকমার পরিবারের লোকজন। ঘটনাটি বৃহষ্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টায় রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ির রুপকারী ইউনিয়নের পাকুজ্জ্যাছড়ি গ্রামে। আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের আধিপত্য বিস্তারের লড়াইয়ে এবার প্রাণ গেল দুই সহোদরের। পাশাপাশি পৃথক নিজ বাড়িতে দুবৃত্তের গুলিতে নিহত হন দুই সহোদর ত্রিদিপ চাকমা (৪০) ও সুশান্তি চাকমা (৩৫)। নিহত দুইজন কামিনী মোহন কার্বারীর ছেলে এবং জেএসএস (এমএন লারমা) পক্ষের কর্মী। ঘটনার জন্য জেএসএস (সন্তু) পক্ষকে সংগঠনের পক্ষ্য থেকে দায়ী করা হলেও ঘটনার সঙ্গে কোন সম্পৃক্ততা নাই বলে জানিয়েছে সন্তু পক্ষ।
নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ভোরে ত্রিদীব চাকমা বাড়ির বাহিরে হাটছিলেন, এসময় স্বশস্ত্র দুর্বত্তরা অতর্কীত এসে তাঁকে লক্ষ করে গুলি চালায়। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। এদিকে তখন আরেক ভাই সুশান্তি চাকমা পাশ্ববর্তী নিজ বাড়িতে শিশুপুত্রকে কোলে নিয়ে হাটছিলেন। গুলির শব্দ পেয়ে শিশুকে রেখে পালানোর চেষ্টা করেও শেষ রক্ষা হয়নি। নিহত ত্রিদীপ চাকমা ৩ সন্তানের জনক। বড় ছেলে রীপন চাকমা ৯ম শ্রেণীতে পড়ে। রীপন কান্না করে বলছিল, ‘রাজনীতির বলি হলো বাবা ও জেঠা। চোখের সামনে করুন মৃত্যু দেখতে হলো। আমাদের পরিবারে আর কেউ থাকলোনা। আর কারো যেন এমন নির্মম ক্ষতি না হয়।’ নিহত সুশান্তি চাকমা চার সন্তানের জনক। তাঁর স্ত্রী পদ্মা দেবী চাকমা বার বার মুর্ছা যাচ্ছিলেন। তিনি বলেন, ‘বাবার কোলে উঠে আদর-সোহাগ পাওয়ার সময় সে পেল বাবার লাশ।’ কামিনী মোহন কার্বারীর ছিল মাত্র দুই ছেলে। আর দুইজনের-ই নির্মম মৃত্যুতে ভাষা হরিয়ে ফেলেছেন বৃদ্ধ কার্বারী (পাড়া প্রধান)। বাড়িতে শুধু শোকের মাতম।
নির্ভরযোগ্য স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, দুই ভাই জেএএসএস (এমএন লারমা) পক্ষের সক্রিয় কর্মী ছিল। প্রতিপক্ষের আক্রমনের আশংকায় বাড়িতে রাত যাপন খুব একটা করতোনা তাঁরা। কিন্তু সোমবার বিকাল থেকে প্রচুর বৃষ্টি হওয়ায় প্রতিপক্ষের দৃষ্টির অগোচরে থাকা যাবে এমন ধারণা থেকেই সেদিন বাড়িতে ছিল দুই ভাই।
জেএসএস (এমএন লারমা) কেন্দ্রীয় কমিটির সহ তথ্য ও প্রচার সম্পাদক প্রশান্ত চাকমা এ ঘটনার জন্য জেএসএস (সন্তু) পক্ষকে দায়ী করে জানান, নিহত দুই ভাই আগে রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকলেও দীর্ঘদিন যাবত সংসার জীবন যাপন করছিল।
অপরদিকে এ অভিযোগ অস্বীকার করে জেএসএস (সন্তু) কেন্দ্রীয় কমিটির সহ তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সজীব চাকমা জানান, ঘটনার সাথে তাদের সংগঠনের কোন সম্পৃক্ততা নাই।
বাঘাইছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ আজিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পরিবারের চাওয়ার কারণে নিহতদের লাশ ময়নাতদন্ত না করেই স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, নিহতের পরিবারের কেউ মামলা করতেই রাজি হয়নি, তাই পুলিশ বাদি হয়ে একটি মামলা করেছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বেইলি সেতু ভেঙে রাঙামাটি-বান্দরবান সড়ক যোগাযোগ বন্ধ

রাঙামাটির রাজস্থলী উপজেলায় রাঙামাটি-বান্দরবান প্রধান সড়কের সিনামা হল এলাকার বেইলি সেতু ভেঙে পাথর বোঝাই ট্রাক …

Leave a Reply