নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » বান্দরবান মুক্ত দিবস আজ

বান্দরবান মুক্ত দিবস আজ

BBN-picবান্দরবান মুক্তি দিবস আজ। ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও স্বাধীনতার দুইদিন আগেই পাক হানাদার মুক্ত হয় এই পার্বত্য জেলা। বান্দরবানের বিভিন্ন পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ১৯৭১ সালে রোয়াংছড়ি উপজেলার ক্যানাইজু পাড়ায় পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর গুলিতে মুক্তিযোদ্ধা সানু অং, উদয় সেন তঞ্চঙ্গ্যা শহীদ হন এবং একই সময় মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয় দেওয়ার অপরাধে ক্যানাইজু পাড়ায় নিরীহ পাহাড়ী মানুষের উপর নির্যাতন এবং নির্মম হত্যাযজ্ঞ চালায় পাকিস্তানী বাহিনী। স্থানীয় দুই পাহাড়ী যুবককে নির্মমভাবে হত্যা এবং অসংখ্য পাহাড়ী নারীর ইজ্জত লুন্ঠন করে বর্বর পাক হানাদার বাহিনী।
আজও সেই নির্মমতার কথা ভুলেনি ক্যানাইজু পাড়ার পাহাড়ীরা। পরেরদিন ১৯৭১ সালে ১৪ ডিসেম্বর পাকিস্তানী হানাদার মুক্ত হয়েছিল বান্দরবান জেলা। শহরের জিরো পয়েন্টে (তখনকার এসডিও বাংলোয়) মুক্তিযোদ্ধারা স্বাধীন দেশের পতাকা উত্তোলন করে বান্দরবানকে হানাদার মুক্ত ঘোষণা দেয়। নানা আয়োজনে আজ শনিবার বান্দরবান মুক্ত দিবস পালনের প্রস্তুতি নিয়ে মুক্তিযোদ্ধারা। সকালে রোয়াংছড়ি উপজেলার ক্যানাইজু পাড়ায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার মেজর টিএম আলী বীর প্রতিকের কবরে পুস্পমাল্য অপর্ন, আলোচনা সভাসহ নানা কর্মসূচী পালনের কথা জানিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধারা। BBN-Map-600

এদিকে স্বাধীনতার ৪২ বছর পরও স্মৃতিস্তম্ভে ঠাঁই হয়নি মুুক্তিযোদ্ধা বীর প্রতিক টিএম আলীর নাম। ১৯৭১ সালে সম্মুকযুদ্ধে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর ছোড়া বোমা বিস্ফোরনে বান্দরবানের রোয়াংছড়ি ক্যানাইজু পাড়ায় শহীদ হয় ভারতীয় নাগরিক মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার মেজর টিএম আলী। তিনি ১৯৭১ সালের ৮ম ইষ্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সুবেদার ছিলেন। যুদ্ধে বীরত্বের জন্য পরবর্তীতে তিনি বীর প্রতিক খেতাব পান। কিন্তু তারপরও জেলা শহরের বাস স্টেশনস্থ শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভে ঠাঁই পাইনি এই মুক্তিযোদ্ধার নাম। সংরক্ষণের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি রোয়াংছড়ি উপজেলার ক্যানাইজু পাড়ায় অবহেলিত পড়ে থাকা বীর মুক্তিযোদ্ধার কবরও।

জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের কমান্ডার আবুল কাসেম, মুক্তিযোদ্ধা সেলিম আহম্মেদ চৌধুরীসহ মুক্তিযোদ্ধারা জানান, জেলা স্মৃতিস্তম্ভে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা টিএম আলী বীর প্রতিকসহ শহীদ সকল মুক্তিযোদ্ধাদের নাম অর্ন্তভুক্ত করা প্রয়োজন। একইসঙ্গে বান্দরবানে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি চিহ্নগুলো সংরক্ষণের দাবিও জানিয়েছেন তারা।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লামায় জেলা পরিষদ নির্মাণাধীন সেতু ধসের শঙ্কা

বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ি এলাকা বড়পাড়া সংলগ্ন ইয়াংছা খালের ওপর কোটি টাকা …

Leave a Reply