নীড় পাতা » বান্দরবান » বান্দরবানে জেএসএস’র মিছিল-সমাবেশ

বান্দরবানে জেএসএস’র মিছিল-সমাবেশ

Bandarban-JSS-PiCবান্দরবানে জেএসএস নেত্রী কল্পনা চাকমা অপহরণের ২০ বছর পরও কোনো হদিস না পাওয়ার প্রতিবাদে মিছিল-সমাবেশ করেছে জেএসএস নেতাকর্মীরা। রোববার দুপরে জনসংহতি সমিতির সহযোগী সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সমিতি ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন যৌথ উদ্যোগে পাহাড়ের নারী আন্দোলনের কন্ঠস্বর কল্পনা চাকমা অপহরণের ২০তম বার্ষিকীতে জেলা শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে পাহাড়ী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা। মিছিলটি মধ্যমপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয় থেকে শুরু শহরের গুরুত্বপূর্ন সড়কগুলো প্রদক্ষিন করে।

পরে সংগঠনের কার্যালয়ে উদযাপন কমিটির আহব্বায়ক ডঃ হ্লাচিং মে চাকের সভাপতিত্বে দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ক্যাবামং মার্মা, পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সভানেত্রী ওয়াইচিং প্রু মার্মা, জেএসএস সদর থানা কমিটির সভাপতি উচসিং মার্মা, পার্বত্য চট্টগ্রাম যুব সমিতি জেলা কমিটি সাধারণ সম্পাদক মংএচিং মার্মা, পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ জেলা কমিটি ছাত্রনেতা অজিত তঞ্চঙ্গ্যা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন জেলা কমিটির সহ-সভাপতি আনন্তি তঞ্চঙ্গ্যা, মহিলা সমিতি জেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক রেমএং ময় বম’সহ সংগঠনের নেতারা।

সমাবেশে জেলা জেএসএস’র সাধারণ সম্পাদক ক্যাবামং মার্মা বলেছেন, পাহাড়ের নারী আন্দোলনের কন্ঠস্বর কল্পনা চাকমা’কে ১৯৯৬ সালে অপহরণের পর যে তীব্র আন্দোলন গড়ে উঠেছিল। পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ী নারীদের সম্মান-অধিকার আদায়ের জন্য ছাত্র সমাজের আরো অদম্য সংগ্রামী চেতনা গড়ে তুলতে হবে। সেটি না হলে কল্পনা চাকমার পাহাড়ের নারী ও পুরুষদের বৈষম্য, শোষণ,নিপীড়ন ও বঞ্চনা নিমূল করতে যে আন্দোলনের বীজ বপন করেছিলেন জুম্ম নারীর উপর ধর্ষণ, খুনের বিরুদ্বে সোচ্ছার হওয়া এবং জুম্ম জনগণের আতœনিয়ন্ত্রণাধিকার গড়ে তোলা সম্ভব হবে না।

প্রসঙ্গত: ১৯৯৬ সালে জেএসএস নেত্রী কল্পনা চাকমা’কে রাতের অন্ধকারে নিজ বাড়ী হতে অপহরণ করে যায় দূর্বত্তরা। আজ ২০ বছর পরও কল্পনার এখনো হদিস পাওয়া যায়নি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জুরাছড়িতে গুলিতে নিহত কার্বারির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় স্থানীয় এক কার্বারিকে (গ্রামপ্রধান) গুলি করে হত্যা করেছে অজ্ঞাত বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা। রোববার …

Leave a Reply