নীড় পাতা » ব্রেকিং » বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাঘাইছড়িতে ২০০১ব্যাচ’র পুনর্মিলনী

বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাঘাইছড়িতে ২০০১ব্যাচ’র পুনর্মিলনী

দেশের সীমান্তবর্তী উপজেলা বাঘাইছড়ি। আজ থেকে দেড় যুগ আগে প্রত্যন্ত এই উপজেলার এক ঝাঁক তরুণ অংশ নিয়েছিল এসএসসি পরীক্ষা। এরপর কেউ উচ্চ শিক্ষার জন্য কেউবা জীবন-জীবিকার তাগিদে দলছুট হয়ে যায়। কিন্তু মনের গহিনে সর্বদা উঁকি দিয়ে উঠে সেদিনের উজ্জল-উচ্ছ্বল দিনগুলির কথা, একসাথে ক্লাস করা, খেলা করা আড্ডা দেয়া। আর তাইতো দীর্ঘ দেড় যুগ পরে আবারো তারা মিলিত হবার স্বপ্নে দেখে। আর তাদের সেই স্বপ্ন ও আকাঙ্কাও পুর্নতা পায় শুক্রবারের আয়োজনে।
রাঙামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি ব্যাচ ২০০১ এর প্রাক্তন ছাত্র ছাত্রীদের পুনর্মিলনী শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। মেঘ পাহাড়ের দেশ সাজেকের রুইলুই পাহাড়ে এ পুনর্মিলনীর আয়োজন করা হয়।

দীর্ঘ প্রায় ১৮ বছর পর তাদের পরস্পরের মধ্যে দেখা হয়েছে। পরিবার পরিজন নিয়ে শুক্রবার রুইলুই লুসাই ক্লাবে তারা একত্রে মিলিত হন। বাঘাইছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ইতিহাসে এটি একটি বিরল ঘটনা কারন এটিই তাদের প্রথম উঁচু পাহাড়ে গিয়ে পুনর্মিলন। অনুষ্ঠানের শুরুতে ২০০১ ব্যাচের ছাত্রী শান্তিকা চাকমা দুরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে অকালে মৃত্যুবরন করায় তাকে স্মরন করে মঙ্গল প্রদীপ জ্বালিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

এরপর দিনের অনুষ্ঠান শুরু হয়। পরিবারের সদস্যদের পরিচিত পর্ব আলোচনা, পুরনো দিনের স্মৃতিচারন, গান কৌতুক ইত্যাদি বিষয় অন্তর্ভুক্ত ছিল। বাঘাইছড়ি ২০০১ ব্যাচ’র পুনর্মিলনী আয়োজনের অন্যতম উদ্যোক্তা সবুজ চাকমা বলেন, সেই কৈশোরে অনেক বন্ধুর সাথে সর্বশেষ দেখা হয়েছিল। দীর্ঘ ১৮ বছর পর তাদের সাথে আজ আবারো দেখা হলো। তাদের পরিবার সন্তানদের সাথে পরিচয় হলো। তাই সকলে আজ আবেগাপ্লুত। এ বন্ধন আগামী দিনগুলোতেও অব্যাহত থাকবে।

২০০১ব্যাচ’র বন্ধুদের মধ্যে উপস্থিত ছিল, রিপন, জেনন, লিটন, সবুজ, দিপান্তর, তপন, সবিনয়, রিতেন, নান্টু, জিকো, পিপলী, ললনা, লাকী, পহেল, অমর কৃঞ্চ, ন্যান্সি প্রমুখ। সর্বোপরি উৎসবমুখর এবং আনন্দঘন আয়োজনের মধ্যদিয়ে এবং একসাথে মিলিত হবার প্রত্যয়ে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান শেষ হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কাপ্তাইয়ে ওষুধ সম্পর্কে মতবিনিময় সভা

বাংলাদেশ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতি কর্তৃক নকল, ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সম্পর্কে জনসচেতনতা ফিরিয়ে আনতে …

Leave a Reply