নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » ফ্রান্সের ব্যঙ্গচিত্রের প্রতিবাদে বিভিন্নস্থানে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ

ফ্রান্সের ব্যঙ্গচিত্রের প্রতিবাদে বিভিন্নস্থানে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ

ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপাষকতায় মহানবী (সা.)-র ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলার সর্বস্তরের মুসলিম ‘তৌহিদী জনতা’। গতকাল শুক্রবার জুম্মা নামাজের পর বেলা দুইটার দিকে এই বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। পানছড়ি সদর বাজার থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে মুক্তিযোদ্ধা স্কয়ারে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে এই কর্মসূচি শেষ হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন পানছড়ি বাজার মসজিদের ইমাম দলিলুর রহমান, পানছড়ি উপজেলা মসজিদের ইমাম সাব্বির আহমেদ, পানছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান নাজির হোসেন, মধ্যনগর দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক আব্দুল খালেকসহ বিভিন্ন মসজিদের ইমাম ও কয়েক হাজার ধর্মপ্রাণ মুসলিম জনতা।

এসময় বক্তারা বলেন, মুসলমানরা তাদের নবী (সা.)-কে তাদের প্রাণের চেয়ে বেশি ভালোবাসে। ইসলাম ধর্মাবলম্বীগণ মহানবীর অপমান সইবে না। ফ্রান্স সরকার নবীর বিরুদ্ধে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের মাধ্যমে তাদের হিংসাত্মক মনোভাব প্রকাশ করেছে। বিশ্বনবী (সা.)-কে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় অবমাননার প্রতিবাদে বাংলাদেশে নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতকে তলব করার পাশাপাশি, টোটাল মবিল, সানোফি কোম্পানির ওষুধসমূহ, গার্নিয়ার প্রসাধনী সামগ্রীসহ ফ্রান্সের সবধরনের পণ্য বয়কট করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি বক্তারা আহবান জানান।

খাগড়াছড়ির রামগড় প্রতিনিধি জানিয়েছেন, একই ঘটনায় খাগড়াছড়ি কওমি মাদ্রাসা ও ওলামা ঐক্য পরিষদ রামগড় উপজেলা শাখার আয়োজনে মানববন্ধন, বিক্ষোভ কর্মসূচি ও ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোর কুশপুত্তলিকা দাহ্ করেছে সর্বস্তরের ‘তৌহিদী জনতা’। এতে সংহতি প্রকাশ করেন ‘আমার উদ্যোগ’ (সবার উদ্যোগ), ইসলামি যুব আন্দোলন, শেষ বিদায়ের বন্ধু সংগঠনসহ বিভিন্ন সংগঠন।

শুক্রবার বাদ জুমা রামগড় পুলিশবক্স চত্বরে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে শেষে মুসল্লীরা রামগড় পৌর শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে রামগড় পুলিশবক্স চত্বরে এসে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রোর কুশপুত্তলিকায় আগুন দিয়ে প্রতিবাদ জানানো হয়। এই সময় উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন রামগড় কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব মাওলানা আবদুল হক, মাওলানা আক্তার হোসেন জিহাদি, মাওলানা শহিদুল্লাহ, মাওলানা এমদাদুল্লা, মাওলানা নাছির উদ্দিন, কারী নুর হোসেন, মাওলানা জামাল উদ্দিন ও রামগড় ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ফ্রান্স সরকার রাষ্ট্রীয়ভাবে পুলিশ পাহারায় মুহাম্মদ (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করে বিশ্ব মুসলিমের কলিজায় আঘাত হেনেছে। ফ্রান্স সরকারকে অবিলম্বে এ ধৃষ্টতাপূর্ণ ব্যঙ্গচিত্র প্রচারণা বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় ফ্রান্সের বিরুদ্ধে সারাবিশ্বে প্রতিবাদের দাবানল ছড়িয়ে পড়বে এবং নবীপ্রেমিকরা ফ্রান্সের পণ্যবর্জন করতে বাধ্য হবে। তারা বিশ্বশান্তির দূত হযরত মহানবী (সা.) এর অবমাননা বন্ধে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়ানোর জন্য মুসলিম বিশ্বের প্রতি আহবান জানান।

রামগড় কোর্ট জামে মসজিদের খতিব মওলানা আক্তার হোসেন জিহাদী বলেন, ‘ফ্রান্সে সরকারের প্রত্যক্ষ মদতে ইসলামকে অবমাননা করে রাসুল (সা.)-কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করা হয়েছে।

বান্দরবান থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, এ ঘটনায় প্রতিবাদে বান্দরবানে ঐতিহাসিক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে হাজার হাজার মুসল্লীর অংশগ্রহণে এই বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন আলেমওলামা, বিভিন্ন রাজনৈতিক ও ইসলামী নেতৃবর্গ, ব্যবসায়ী, ছাত্র-যুবসমাজসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেয়। শহরের ট্রাফিকমোড় এলাকায় আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- বান্দরবান কেন্দ্রীয় বাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা এহেসানুল হক, কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব আলাউদ্দিন আল ইমামী।

সমাবেশে জেলার শীর্ষ এই দুই আলেম, ফরাসি পণ্য বর্জন, অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রীয়ভাবে বিশ^নবীকে অবমাননার প্রতিবাদ জানানোর দাবি জানান। অন্যথায় আরো বড় কর্মসূচি হাতে নেওয়ার ঘোষণা দেন। এসময় বান্দরবানে ঐতিহাসিক বিক্ষোভে সমবেত হওয়ায় মুসল্লীদের ধন্যবাদ জানান তাঁরা।

এরআগে জুমার নামাজ শেষে বিভিন্ন মসজিদ থেকে মিছিলসহকারে মুসল্লীরা শহরের ট্রাফিক মোড় এলাকায় মিলিত হয়। এসময় ট্রাফিক মোড়ের চার রাস্তায় দীর্ঘ জনসমাবেশ ঘটে। পরে সমবেত মুসল্লীরা মিছিল নিয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এসময় স্লোগান ও নানা প্লে­কার্ড প্রদর্শন করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। মিছিল শেষে ট্রাফিকমোড় এলাকায় ফরাসি প্রেসিডেন্টের কুশপুত্তলিকা দাহ করে।

আলীকদম প্রতিনিধি জানান, একই ইস্যুতে শুক্রবার জুমার নামাজের পর উপজেলা জামে মসজিদ থেকে মুসল্লিদের একটি দল, আলীকদম সরকারি হাসপাতাল গেটের সামনে (চৌমুহনী) জড়ো হয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। এসময় বিক্ষোভকারী বাংলাদেশে থেকে ফ্রান্সের অ্যাম্বাসি বন্ধ ও ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের আহ্বান জানিয়েছে।

তবে তাৎক্ষণিক খবর পেয়ে আলীকদম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে বিক্ষোভকারীদের শান্ত করে ও বিক্ষোভ সমাবেশ শেষ করার আহ্বান জানান। পুলিশের ডাকে সাড়া বিক্ষোভকারীরা সমাবেশ সমাপ্ত করেন।

আলীকদম থানার ওসি কাজী রকিব উদ্দীন বলেন, খবর পেয়ে দ্রুত আমিসহ পুলিশের একটি টিম চৌমুহনী উপস্থিত হয়ে দেখতে পাই, ১৫০ থেকে ২০০ জন মানুষ বাংলাদেশ ফ্রান্সের পণ্য বয়কট করার জন্য বিক্ষোভ করেন। আমি তাদেরকে শান্ত করে সমাবেশ করার আহ্বান জানাই। আমার কথা মত তারা সমাবেশ শেষ করে শান্ত ভাবে চলে যায়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

শান্তি, সম্প্রীতি ও ঐক্যের লক্ষে বান্দরবানে মতবিনিময় সভা

বান্দরবানের বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রধান, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এবং প্রথাগত জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে সামাজিক শান্তি ও সম্প্রীতি …

Leave a Reply