নীড় পাতা » পাহাড়ের রাজনীতি » প্রসন্ন’র পাশে জেএসএস

প্রসন্ন’র পাশে জেএসএস

BBN-JSS1বান্দরবানে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী প্রসন্ন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যার পক্ষে প্রকাশ্যেই প্রচারণায় নেমেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস)। সাথে আছেন আওয়ামীলীগের বহিস্কৃত নেতারাও। বৃহস্পতিবার বান্দরবানে আওয়ামীলীগের বহিস্কৃত নেতা সাবেক দুই পৌর মেয়র মিজানুর রহমান বিপ্লব ও আইয়ুব চৌধুরী, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য জেএসএস কেন্দ্রীয় নেতা কেএসমং মারমা, জেএসএস জেলা সভাপতি সাধুরাম ত্রিপুরা মিল্টন, পাহাড়ী বম সম্প্রদায়ের নেতা জুমলিয়ান আমলাইসহ জনসংহতি সমিতি ও আওয়ামীলীগের বহিস্কৃত নেতারা প্রকাশ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী টেবিল ঘড়ি প্রতীকে প্রসন্ন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যার পক্ষে বান্দরবান বাজার, উজানীপাড়া, মধ্যমপাড়াসহ আশপাশের এলাকাগুলোতে দেয়াল ঘড়ির পক্ষে শোডাউন ও গনসংযোগ করেছে।

আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন জেএসএস এবং সাবেক দুই পৌর মেয়র’সহ আওয়ামীলীগের বহিস্কৃত-বঞ্চিত নেতারা একত্রিত হয়ে প্রসন্নের পক্ষে মাঠে নামায় ভোটের হিসাব-নিকাশ বদলে যাবার ইঙ্গিত দিচ্ছে বলে অভিমত স্থানীয়দের। প্রসন্ন ছাড়াও শেষ মুহুর্তের প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত অন্যান্য তিন প্রার্থীও। তবে লড়াই হবে আওয়ামী মতাদর্শের দুই প্রার্থী বীর বাহাদুর এবং প্রসন্ন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা মধ্যে। নির্বাচনী আমেজে সরগরম এখন পাহাড়ী জনপদ বান্দরবান। আওয়ামীলীগের বহিস্কৃত সাবেক পৌর মেয়র মিজানুর রহমান বিপ্লব বলেন, বীর বাহাদুর ঠেকাও জোয়ার উঠেছে বান্দরবানের সর্বত্র। স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রসন্নের টেবিল ঘড়ি’র জয়গান শোনা যাচ্ছে পাহাড়ী এই জনপদে। চমক দেখানোর অপেক্ষায় আছেন ভোটারেরাও।

নির্বাচনী জোয়ারে ভাসছে জেলার সাত উপজেলার ৩১টি ইউনিয়ন। আওয়ামীলীগ প্রার্থীর পাশাপাশি স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। ছুটে বেড়াচ্ছেন ভোটারের দ্বারে দ্বারে। বৃহস্পতিবার রোয়াংছড়ি উপজেলার ছাইঙ্গ্যা, তারাছা, ঘেরাও, বেতছড়াসহ আশপাশের এলাকাগুলোতে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী বীর বাহাদুর (নৌকা)। সঙ্গে ছিলেন সংগঠনের শীর্ষ ও তৃনমূলের নেতাকর্মীরাও।

অপরদিকে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী টেবিল ঘড়ি মার্কা নিয়ে প্রসন্ন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা নির্বাচনী প্রচারণায় চষে বেড়িয়েছেন জেলা সদরের বাঘমারা, রোয়াংছড়ির উপজেলার মনজয়পাড়া, আন্তাপাড়া, ক্যানাইজুপাড়াসহ আশপাশের এলাকাগুলোতে। সঙ্গে রয়েছেন প্রসন্ন অনুসারী আওয়ামীলীগের বঞ্চিত-ত্যাগী লোকজনেরা। এছাড়াও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন ইউপিডিএফ সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী ছোটন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা (হাতি) জেলা সদরের কুহালং ও রাজবিলা ইউনিয়ন এলাকায় এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ কামরুজ্জামান (টিয়া) জেলার লামা পৌার এলাকায় গনসংযোগ ও প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে পোষ্টার আর লিফলেট’এ ছেয়ে গেছে বান্দরবান জেলা শহরসহ পাহাড়ী গ্রামগুলো। জোরে-শোরে চলছে মাইকিং। চায়ের দোকান থেকে অফিস-আদালত সর্বত্র চলছে নির্বাচনী আলাপ-আলোচনা। প্রার্থীরা চষে বেড়াচ্ছে নির্বাচনী অঞ্চলগুলো। বসে নেই প্রার্থীর স্ত্রী-সন্তান আত্মীয় স্বজনেরাও। ভোটারের দ্বারে দ্বারে ছুটে বেড়াচ্ছেন রাত-দিন সমানতালে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লামায় জেলা পরিষদ নির্মাণাধীন সেতু ধসের শঙ্কা

বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ি এলাকা বড়পাড়া সংলগ্ন ইয়াংছা খালের ওপর কোটি টাকা …

Leave a Reply