নীড় পাতা » আলোকিত পাহাড় » প্রধানমন্ত্রীর স্বীকৃতি পেলেন মাসিংনু মারমা

প্রধানমন্ত্রীর স্বীকৃতি পেলেন মাসিংনু মারমা

0515বান্দরবানে পাহাড়ী মাটিতে স্ট্রবেরিসহ গ্রীষ্মকালীন নানা ফসল উৎপাদনের মাধ্যমে কৃষি চাষে বৈপ্লবিক সাফল্যের স্বীকৃতি স্বরূপ প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন মারমা তরুনী মাসিংনু মারমা।
২০১১ সালে রাজশাহী থেকে রাবি-৩ জাতের ৩৬টি ষ্ট্রবেরি চারা কিনে এনে বান্দরবানের চেমীডলু পাড়ায় দুই শতক জমি বন্ধক নিয়ে ষ্ট্রবেরি চাষ শুরু করেন কৃষিবিদ মাসিংনু মারমা। পরের বছর স্বামী এনিমং মারমাসহ নিজেরা নার্সারী গড়ে তোলে নার্সারী থেকে পরীক্ষামূলকভাবে ২০ শতক পাহাড়ী জমিতে দেড় হাজার ষ্ট্রবেরি চারা রোপন করে সাফল্য পান। মাত্র পঞ্চাশ হাজার টাকা খরচে জমিতে ষ্ট্রবেরি চাষ করে প্রায় তিন লক্ষ টাকা আয় করে দারিদ্রতা দূর করে পরিবারে স্বচ্ছলতা নিয়ে আসেন।
পরবর্তীতে পাঁচ শতক বন্ধকি জমিতে স্ট্রবেরির পাশাপাশি গ্রীষ্মকালিন ফসল উন্নত জাতের টমেটো, ড্রাগনফলসহ নানা জাতের সবজি চাষ করে বছরে ৭ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা আয় করেছেন। যা রীতিমতো ঈর্ষনীয় সাফল্য। তার সাফল্য দেখে ঐ এলাকায় আরো অনেকেই উন্নতজাতের ফল চাষ করে সাফল্য অর্জন করেছে ইমিতধ্যে। মাসিংনু মারমা জানান, তার মেধা ও পরিশ্রমে স্বাবলম্বী হওয়ার আত্মবিশ্বাস দেখে স্থানীয় বেকার যুবক ও যুবতীদেরও কৃষি চাষের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করে তোলার সার্বিক চেষ্ঠা চালাচ্ছেন। মাসিংনু’র এই সফল্যের সংবাদ বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় এবং টিভি চ্যানেলগুলোতে প্রচারের পর প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কারের তালিকা ভুক্ত হন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে সাফল্যের জন্য এই বছর ১৫ জন প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার পান। তার মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগের প্রথম হিসেবে জাতীয় পুরস্কার লাভ করেন বান্দরবানের মারমা তরুনী মাসিংনু মারমা। গত ১ নভেম্বর জাতীয় যুব দিবসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাসিংনুর হাতে এই পুরস্কার তুলে দেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

পাহাড়ে জুমের সাথে বাড়ছে পান চাষ

খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় এবার অনেক জুমচাষি জুম চাষের পাশাপাশি করেছেন পান চাষ। পাহাড়ে পান চাষ করে …

Leave a Reply